বৃহস্পতিবার, মে ১৯, ২০২২

নিজেদের মিসাইল ফ্যাক্টরিতে এক ইউক্রেনীয় সেনার গুলিবর্ষণ; নিহত ৫ জন সেনা

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


নিজেদেরই মিসাইল ফ্যাক্টরিতে এক ইউক্রেনীয় সেনার গুলিবর্ষণে ৫ জন সেনা নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) সেন্ট্রাল ইউক্রেনের পিভদেনমাস মিসাইল ফ্যাক্টরিতে এই ঘটনা ঘটে।

ইউক্রেন পুলিশের বর্ণনা অনুযায়ী, নিপ্রো শহরের মিসাইল ফ্যাক্টরির দৈনিক কার্যক্রম শুরু করার সময় প্রথম শিফটের গার্ডদের যখন অস্ত্র দেওয়া হচ্ছিলো তখন একজন ব্যক্তি ক্লাশ্নিকোভ এসল্ট রাইফেল (একে ৪৭) দিয়ে ওপেন ফায়ার করে বসে। গুলিবর্ষণ করতে করতে ঘটনাস্থল থেকে সে পালিয়ে যায়।

পরবর্তীতে পিডগরোডনি নামক স্থান থেকে ইউক্রেন পুলিশ হামলাকারীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

দেশটির স্বররাষ্ট্র মন্ত্রী ডেনিস মোনাস্টিরস্কির বিবৃতিতে জানা যায়, ওই বন্দুক হামলায় আহত ৫জন সেনা সদস্য বা মিসাইল ফ্যাক্টরি গার্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

মোনাস্টিরস্কির বক্তব্য মতে, গার্ডদের উপর সশস্ত্র হামলা চালানো ব্যক্তিটি ইউক্রেন ন্যাশনাল গার্ডের একজন সেনা সদস্য। তার নাম আর্টেম রায়াবচাক (২১)।

সে কোনো হামলা চালিয়েছে বা কোন জিনিস তাকে হামলায় উদ্বুদ্ধ করেছে তা এখনো জানা যায়নি। তাকে এখনো জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

মোনাস্টিরস্কি বলেন, তাকে দেশ রক্ষার জন্য বাছাই করে নিরাপত্তার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিলো, সহকর্মীর উপর গুলি চালানোর জন্য নয়। তার অপরাধের কারণ খতিয়ে দেখতে একটি কমিশন গঠন করা হয়েছে। আর্টেম রায়াবচাক আইন অনুসারে সবচেয়ে কঠিন শাস্তির মুখোমুখি হতে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, নিজেদেরই সামরিক স্থাপনার রক্ষীদের উপর হামলার ঘটনাটি এমন মুহুর্তে সংঘটিত হয়েছে যখন ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার লক্ষাধিক সেনা সমাগমের কারণে দেশটির সেনারা তটস্থ!

এই বিশাল সেনা সমাগমকে ইউক্রেন, ন্যাটো ও আমেরিকা রাশিয়ার সামরিক অভিযান কিংবা দখলদারিত্ব চালানোর হুমকি বলে অভিযোগ করলেও মস্কো বরাবরের মতোই তা অস্বীকার করে আসছে। সামরিক অনুশীলনের উদ্দেশ্যেই পূর্ব ইউক্রেন সীমান্তে সেনা সমাবেশ ঘটানো হয়েছে বলে দাবী করছে তারা।

অপরদিকে ন্যাটো ও আমেরিকাও পালটা পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানা যায়। ইউক্রেনের সহায়তায় ইতিমধ্যেই ৮৫০০ মার্কিন সেনা দেশটিতে গিয়ে পৌঁছেছে। তাছাড়া ন্যাটো সম্প্রতি বাল্টিক অঞ্চলে যুদ্ধজাহাজ ও যুদ্ধবিমান পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়। স্পেনও পূর্বের তুলনায় নৌশক্তি বাড়িয়ে দিয়েছে। যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় নেদারল্যান্ডসও তাদের যুদ্ধজাহাজ ও স্থল সামরিক বাহিনীকে প্রস্তুত রেখেছে।

উত্তেজনা নিরসনে বেশ কয়েক সপ্তাহ যাবত রাশিয়ার সাথে ন্যাটো ও আমেরিকার ধারাবাহিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও সব বৈঠকই অমীমাংসিত অবস্থায় শেষ হয়েছে বলে জানা যায়।

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে জার্মানির বার্লিনে আরেক দফা বৈঠক শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

সূত্র: আল জাজিরা।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img