সোমবার, জুন ২৪, ২০২৪

ভারতে করোনার টিকা নিতে স্বাস্থ্যকর্মীদেরই অনীহা

এঁরা প্রত্যেকেই স্বাস্থ্যকর্মী। সকাল, বিকাল অন্যকে ইনজেকশন বা টিকা দেন। আট থেকে আশি সকলেরই হাতে, কোমরে, পেটে অনায়াসেই সুচ চালনা করেন। প্রয়োজনে স্যালাইন দেওয়া কিংবা রক্ত নেওয়ার জন্য হাতের শিরা-উপশিরা খুঁজে সুচ ফোটাতে দেখা যায়। অথচ, নিজেদের দেহে সুচ ফোটাতেই অনেকে আঁতকে উঠলেন।

শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) এমনই দৃশ্য দেখা গেল ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ ২৪ পরগনার ভাঙড়ের জিরানগাছা গ্রামীণ হাসপাতালে।

সেখানে এদিন কোভিশিল্ড টিকা প্রদান করা হয় স্বাস্থ্যকর্মীদের। সেই টিকা নিতে গিয়েই অনেকে ভয় পান। তবে তালিকায় নাম থাকলেও প্রতিবাদ স্বরূপ এ দিন টিকা নেননি ফার্স্ট এএনএম-রা। ভাঙড়ের অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীরাও টিকা নিতে আসেননি।

ভারতের ওই রাজ্যের সঙ্গে শুক্রবার ভাঙড়-১ ব্লকের নলমুড়ি গ্রামীণ হাসপাতাল এবং ভাঙড়-২ ব্লকের জিরানগাছা গ্রামীণ হাসপাতালে কোভিশিল্ড টিকা দেওয়া হয় সামনের সারিতে থাকা করোনাযোদ্ধা স্বাস্থ্যকর্মীদের। বিডিও, ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক, থানার ওসি এবং জন প্রতিনিদিধের উপস্থিতিতে এই শিবিরের উদ্বোধন হয়। জিরানগাছায় শিবিরের উদ্বোধন করেন ভাঙড়-২ পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি আরাবুল ইসলাম। জিরানগাছাতে ২০০ জন স্বাস্থ্যকর্মীর নাম তালিকায় থাকলেও ব্লকের ২৪ জন ফার্স্ট এএনএম ভ্যাকসিন নেননি।

রাজারহাটের রেকজোয়ানি ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এ দিন ১০০ জনের টিকা নেওয়ার কথা থাকলেও সেখানে ৫০ জনও টিকা নেননি। নলমুড়ি ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ১৩০ জনের নাম নথিভুক্ত থাকলেও সেখানে মাত্র ৪৮ জন টিকা নিয়েছেন। ব্লকের কোনও অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীও টিকা নেননি।

সূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img