আচমকা তুলে নিয়ে হামাস নেতা খুদরীর ব্যাপারে মুখ না খুলার শর্তে তার স্ত্রীকে মুক্তি দিলো সৌদি

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


সৌদির ফিলিস্তিনি কয়েদি সাবেক হামাস নেতা মুহাম্মাদ আল খুদরীর বাড়িতে অতর্কিত অভিযান চালিয়ে তার স্ত্রী উইজদান (৭০) ও পুত্রবধূকে তুলে নিয়ে গেছে দেশটির নিরাপত্তা রক্ষীরা।

বুধবার (২১ এপ্রিল) সৌদি আরবের জেদ্দায় এই ঘটনা ঘটে।

ইউরো-ভূমধ্যসাগরীয় মানবাধিকার সংস্থার তথ্যমতে, জেদ্দার বাড়ি থেকে খুদরীর স্ত্রী ও পুত্রবধূকে তুলে নেওয়ার কয়েক ঘন্টা পর সৌদি নিরাপত্তা বাহিনী, তাদের ফিলিস্তিনি কয়েদি খুদরী ও তার পুত্র হানীর কারাজীবন ও স্বাস্থ্য সম্পর্কে টু শব্দ না করার অঙ্গীকারনামায় জোরপূর্বক স্বাক্ষর নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়।

তাছাড়া অতর্কিত অভিযানের সময় নিরাপত্তা অফিসার তাদের বাড়িতে তল্লাশি চালানোর,পুরো বাড়ির ভিডিও চিত্র ধারণ করার এবং খুদরীর স্ত্রীকে জেরা করার কথা উঠে আসে ইউরো-ভূমধ্যসাগরীয় মানবাধিকার সংস্থাটির সংগৃহীত তথ্যে।

সাবেক হামাস নেতা খুদরী ও তার পুত্রকে মুক্তি দিতে তার পরিবার আপিল করায় সৌদির নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষ যে অত্যন্ত ক্ষুব্ধ হয়েছে তা জানিয়ে উইজদানকে তার পুরো পরিবারসহ নির্বাসনে পাঠানোর হুমকিও দেওয়া হয় বলে জানা যায়।

ইউরো-ভূমধ্যসাগরীয় মানবাধিকার সংস্থা সৌদির এধরণের কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলে, কারো ঘরে অতর্কিত অভিযান পরিচালনা করে নির্বাসনের হুমকি-ধামকি দেওয়া এবং ভয় দেখিয়ে পুরো পরিবারকে নিশ্চুপ করিয়ে দেওয়ার জঘন্য প্রচেষ্টা চালানো, অনৈতিক হওয়ার পাশাপাশি সম্পূর্ণ বে-আইনী।

উল্লেখ্য, সৌদি আরবের জেদ্দা নগরীতে প্রায় ৩ দশক যাবত বসবাস করা ফিলিস্তিনের নাগরিক সাবেক হামাস নেতা মুহাম্মাদ আল খুদরীকে ২০১৯ সালের ৪ এপ্রিল গ্রেফতার করে দেশটির ক্রাউন প্রিন্স মুহাম্মাদ বিন সালমানের প্রশাসন।

৩ দশকের সৌদি জীবনে তিনি ২ দশক যাবত ফিলিস্তিন ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের সাথে সৌদি সরকারের সম্পর্ক বজায় রাখার দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন!

২০২০ সালের ৮ মার্চ হামাসের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে ৬৮ জনের সম্মিলিত বিচারের আগে সৌদির উচ্চ আদালতে মুহাম্মাদ আল খুদরী ও তার পুত্র হানীর বিরুদ্ধে একটি ‘সন্ত্রাসী’ সংগঠনে যুক্ত থাকার অভিযোগ আরোপ করা হয়। আর দাবী করা হয়, মুহাম্মাদ আল খুদরী হামাসের বেশ কয়েকটি নেতৃত্বপদে এখনো বহাল আছেন!

গ্রেফতারের পূর্বে খুদরীর ক্যানসারের চিকিৎসা চলমান ছিলো। কিন্তু সৌদি প্রশাসনের বিরুদ্ধে মধ্যপ্রাচ্যের মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল অভিযোগ করে থাকে যে, তাদের বারবার আশঙ্কা প্রকাশ সত্ত্বেও যথাযথ চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় খুদরীর স্বাস্থ্যের আরো অবনতি ঘটছে।

সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *