মোবাইল ও টাকা চুরির অভিযোগে মাওলানা মামুনুল হকের ৭দিনের রিমান্ড

২০২০ সালের মোহাম্মদপুর থানার দায়ের করা একটি মামলায় গতকাল রোববার দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে গ্রেফতার করা হয় হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে।

ওই মামলায় আজ সোমবার (১৯ এপ্রিল) আদালতে হাজির করা হলে রিমান্ড আবেদনে মাওলানা মামুনুল হক ও তার বড় ভাই মাওলানা মাহফুজুল হকসহ অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে মোবাইল ও মানিব্যাগ থেকে টাকা চুরির অভিযোগ আনেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাজেদুল হক।

অপরদিকে মামুনুল হকের আইনজীবী তার রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেছেন। উভয়পক্ষের আইনজীবীদের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আদালত তার ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ড আবেদনে দাবি করা হয়, গত বছরের ৬ মার্চ মোহাম্মদপুর সাত মসজিদ এলাকায় সাত গম্বুজ মসজিদে রাত সাড়ে ৮টায় আসামি মাওলানা মামুনুল হক ও তার বড় ভাই মাওলানা মাহফুজুল হকের নির্দেশে জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসার ছাত্র আসামি ওমর এবং ওসমান বাদী ও তার সঙ্গে থাকা অন্যদের মসজিদে আমল (ধর্মীয় কাজ) করতে নিষেধ করেন। তাদের মসজিদ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন আসামিরা।

এতে দাবি করা হয়, বাদী প্রতিবাদ করলে মাওলানা মামুনুল হক ও তার ভাই মাহফুজুল হকের নির্দেশে মাদরাসার আরও ৭০-৮০ জন ছাত্র বের হয়ে বাদীকে এলোপাতাড়ি মারধর করে গুরুতর জখম করেন। আসামি ওমর ও ওসমান তাদের হাতের লাঠি দিয়ে বাদীকে এলোপাতাড়ি আঘাত করেন। লাঠির আঘাতে গুরুতর জখম হয়ে মসজিদের ভেতরে শুয়ে পড়েন বাদী।

‌এরপর আসামিরা বাদীর কাছে থাকা একটি স্যামসাং মোবাইল, নগদ সাত হাজার টাকা, ২০০ ডলার ও ব্র্যাক ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ডসহ বাদীর মানিব্যাগ নিয়ে যান। বাদীকে পুনরায় মসজিদে প্রবেশ করলে হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেন আসামিরা।

মারধর, হত্যার উদ্দেশ্যে আঘাতে গুরুতর জখম, চুরি, হুমকি ও ধর্মীয় কাজে ইচ্ছাকৃতভাবে গোলযোগের অভিযোগ এনে স্থানীয় এক ব্যক্তি মোহাম্মদপুর থানায় মাওলানা মামুনুলের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *