পশ্চিমবঙ্গ সরকার মুসলিমদের উন্নয়নে কিছুই করেনি: ওয়াইসি

ভারতের মজলিশ-ই-ইত্তেহাদুল মুসলেমিন (মিম) এর প্রধান মুসলিম নেতা ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি এমপি বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গ সরকার মুসলিমদের উন্নয়নের জন্য কিছুই করেনি।

বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) ‘আজতক’ হিন্দি টিভি চ্যানেলে প্রকাশিত তার বিশেষ সাক্ষাৎকারে ওই মন্তব্য করেন তিনি।

পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন তৃণমূল সরকারকে টার্গেট করে ওয়াইসি বলেন, রাজ্যে কেন এত নিরক্ষরতা, কেন শিক্ষার হার নেমে এসেছে? ১০০ জন মুসলিমের মধ্যে মাত্র ৩ জন মুসলিম স্নাতক কেন? তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষ দল বিজেপির ভয় দেখিয়ে মুসলিম ভোট নিতে চায়। রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার যদি মুসলিমদের পক্ষে কাজ করে থাকে তাহলে বিজেপি কীভাবে বাংলায় ১৮ টি লোকসভা আসনে জিতেছে?

ভারতের বিহারে সাম্প্রতিক বিধানসভা নির্বাচনে এই প্রথম প্রার্থী দিয়ে ওয়াইসির ‘মিম’ দল ৫ আসনে জয়ী হয়েছে। একইসঙ্গে বেশকিছু আসনে নির্বাচনী ফলের অভিমুখ পরিবর্তন করে দেওয়ার ফলে বিজেপি নেতৃত্বাধীন ‘এনডিএ’ সুবিধা পেয়েছে এবং কংগ্রেস-আরজেডি নেতৃত্বাধীন ‘মহাজোট’ ব্যর্থ হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে ‘মিম’কে ‘ভোট কাটা দল’ বলে কটাক্ষ করা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে ‘মিম’ দল মাঠে নামার ঘোষণা দেওয়ায় রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্নমহলে প্রশ্ন উঠেছে ‘মিম’ দল কী বিহারের মতো পশ্চিমবঙ্গেও ভোট বিভাজনে সমর্থ হবে? এরফলে বিজেপি কী তাহলে বিশেষ সুবিধা পাবে? এমনটি হলে রাজ্যের ক্ষমতাসীন তৃণমূল সরকারের পক্ষে তা আশঙ্কার এবং একইসঙ্গে বিজেপি’র ক্ষমতায় আসার পথ সুগম হতে পারে বলে জল্পনা ছড়িয়েছে।

বিহার নির্বাচন প্রসঙ্গে ‘মিম’ প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি বলেছেন, কংগ্রেস দল কখনই তার ভুলগুলোর দিকে মনোযোগ দেয় না। যদি এমনটাই থেকে যায় তবে ওই দল শেষ হয়ে যাবে। আমরা বিহারে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছিলাম। বিহারের সীমাঞ্চলে কেউ প্যারাসুট থেকে নেমে আসেনি। আমরা সেখানে কাজ করছিলাম। এমন পরিস্থিতিতে ধর্মনিরপেক্ষ ও উদারপন্থিদের উচিত আমাদের বিজয় নিয়ে প্রশ্ন না করা। একইসঙ্গে জনগণের রায়কে স্বীকার করে নেওয়া উচিত।

ওয়াইসি আরও বলেন, ৮ মাস আগে জোটের জন্য দু’জন শীর্ষ আরজেডি নেতার সাথে কথা বলার চেষ্টা করেছিলাম। তাদের একজন আমাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, আপনি নির্বাচনে কেন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন? আপনার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা উচিত নয়। এরপরে আমার দলের নেতারা পাটনায় গিয়ে আরজেডি নেতাদের সাথে সাক্ষাতও করেছেন। তারা বিহারের বিশিষ্ট আলেম ও সমাজকর্মীদের সাথে সাক্ষাত করেছিলেন এবং তাদের বলেছিলেন যে আমাদের জোটে আসতে দিন, পরে ভোট বিভাজনের হওয়ার কথা বলবেন না। কিন্তু এই লোকেরা এখন কাঁদছে কেন?

অন্যদিকে, পশ্চিমবঙ্গে ‘মিম’-এর দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা ও মুখপাত্র আসিম ওয়াকার বলেছেন, আমরা বিজেপিকে পরাজিত করতে চাই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদি আমাদের সঙ্গে কথা বলে একসঙ্গে এগোতে চান, দরজা খোলা রয়েছে। দিদিকেই তাঁর পথ বেছে নিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, পশ্চিমবঙ্গের ২২টি জেলায় কাজ শুরু করে দিয়েছি। সম্পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়ে বিধানসভা নির্বাচনে ঝাঁপাব আমরা। কেন্দ্রীয় সরকারের পাশাপাশি এই রাজ্যের নেতৃত্বও মুসলিমদের ধোঁকা দিয়েছেন। তাঁদের কর্মসংস্থান, সংরক্ষণ, জমি হাতছাড়া হয়ে যাওয়ার ঘটনা প্রচারের অন্যতম বিষয় হবে।

ওয়াইসি’র ঘনিষ্ঠ হায়দরাবাদের নেতা এবং দলটির বিধান পরিষদের সদস্য সৈয়দ আমিন জাফারী বলেন, বিষয়টি বাংলা-উর্দুর নয়। সামগ্রিকভাবে মুসলিম সমাজের বঞ্চনার। পশ্চিমবঙ্গের প্রায় প্রত্যেক জেলায় আমাদের সংগঠন রয়েছে। সেখান থেকেই নিয়মিত খবর পাই যে, সংখ্যালঘু সমাজকে বঞ্চিত করে তাদের বোকা বানিয়ে ভোট কেনা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *