রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

দুই জেনারেলের ক্ষমতার লড়াইয়ে যুদ্ধের ময়দানে পরিণত হয়েছে সুদান

আফ্রিকার গুরুত্বপূর্ণ মুসলিম দেশ সুদানের গৃহযুদ্ধ থামছেই না। দুই জেনারেলের ক্ষমতার লড়াইয়ে যুদ্ধের ময়দানে পরিণত হয়েছে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটি। গত শনিবার দুই পক্ষ সমস্যা সমাধানে চুক্তিতে সাক্ষর করার কথা থাকলেও উলটো সেদিন থেকে নতুন করে লড়াইয়ে নেমেছে তারা।

এদিকে রাজনৈতিক ভাবে সুদান সংকট নিরসনের লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ কামনা করে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

সোমবার গৃহযুদ্ধে জর্জরিত দেশটিতে শান্তি প্রতিষ্ঠায় একটি মানবিক আবেদন জারি করেন তিনি। জাতিসংঘ মহাসচিব এই আবেদনে বিশ্বনেতাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে দেশটির জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান।

সরকার ও বিরোধী সশস্ত্র গোষ্ঠীর মধ্যকার লড়াইয়ে লক্ষ লক্ষ সুদানির দুর্বিষহ জীবনের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এর থেকে পরিত্রাণ পেতে সুদানের জনগণের বিশ্ব সম্প্রদায়ের উদারতা ও সমর্থন প্রয়োজন। ইরান-ইসরাইল উত্তেজনায় সকলে আফ্রিকার এই দেশটির ভয়াবহ পরিস্থিতির কথা ভুলে যাচ্ছে। অথচ সাম্প্রতিক প্রতিবেদন বলছে, গৃহযুদ্ধে জর্জরিত দেশটিতে সহিংসতার মাত্রা বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। যা গভীর শঙ্কা সৃষ্টি করছে। এই ভয়াবহতা থেকে বেরিয়ে আসার একমাত্র উপায় হলো রাজনৈতিক সমাধান। সংকট নিরসনে বৈশ্বিক সমর্থন ছাড়াও শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া অনুসরণে সমন্বিত বৈশ্বিক চাপের মাধ্যমে দেশটিতে যুদ্ধবিরতি প্রয়োজন।

২০২৩ এর এপ্রিল থেকে আফ্রিকার দেশ সুদানে নতুন করে সংঘাতের সূত্রপাত ঘটে। বিরোধ নিরসনে এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে রাষ্ট্র পরিচালনার পন্থা ও ক্ষমতা ভাগাভাগির ব্যাপারে পক্ষ-বিপক্ষের মাঝে আলোচনা হয়। আলোচনায় একটি সমাধানেও পৌঁছেছিলো সামরিক জান্তা সরকার ও বিরোধী পক্ষ। অপেক্ষা ছিলো শুধু শেষবারের মতো একটি আনুষ্ঠানিক বৈঠকের, যেখানে উভয়পক্ষ তাদের মেনে নেওয়া রাষ্ট্র পরিচালনা নীতি ও ক্ষমতা ভাগাভাগির আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিবে।

পুরো মুসলিম বিশ্ব অপেক্ষা করছিলো সুদানে নতুন ভোর দেখার। কিন্তু না, নতুন ভোর আসেনি যুদ্ধবিধ্বস্ত সুদানে। গত ১৫ এপ্রিল শনিবার সকালে তারা আবার সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে।

এক্ষেত্রে কারা প্রথমে হামলা চালিয়েছে এবিষয়ে রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকা সুদানের সেনাবাহিনী আর ক্ষমতা নিয়ে দ্বন্দ্বে থাকা আধাসামরিক বাহিনী র‍্যাপিড সাপোর্ট ফোর্সেস বা আরএসএফ একে অপরের প্রতি পাল্টা অভিযোগ আনে।

জাতিসংঘ সহ বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক মহল সংঘাত বন্ধের আহবান জানালেও উভয় পক্ষ তাদের লড়াই অব্যাহত রেখেছে।

আধাসামরিক আরএসএফ বাহিনীর প্রধান জেনারেল মুহাম্মদ হামদান দাগলো ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, সব সামরিক ঘাঁটি দখল না করা পর্যন্ত তার সেনারা লড়াই চালিয়ে যাবে।

অপরদিকে সুদানের বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আব্দুল ফাত্তাহ আল-বুরহান ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, আরএসএফকে ধ্বংস না করা পর্যন্ত সব ধরণের শান্তি আলোচনার প্রস্তাব নাকচ করে দেওয়া হবে।

জানা যায় আরএসএফ প্রধান দাগলো এবং সেনাপ্রধান আব্দুল ফাত্তাহ বুরহান একে অপরের সহযোগী ও ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। ২০১৯ সালে সুদানের সাবেক প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করতে তারা এক হয়ে কাজ করেন। ২০২১ সনের সামরিক অভ্যুত্থানেও তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন।

বিশ্লেষক ও সংবাদমাধ্যমের তথ্যানুযায়ী, অভ্যুত্থান ঘটিয়ে ক্ষমতায় আসার পর যখন লক্ষাধিক সেনা বিশিষ্ট আধা সামরিক বাহিনী আরএসএফকে সুদানের সেনাবাহিনীর সাথে যুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় তখন থেকে দুই বন্ধুর মাঝে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এজন্য যে, আরএসএফকে মূল সেনাবাহিনীর সাথে অন্তর্ভুক্ত করা হলে সেই বাহিনীর নেতৃত্বে কে থাকবে? কারণ প্রেসিডেন্ট আব্দুল ফাত্তাহ বুরহান আগ থেকেই সুদান সেনাবাহিনীর প্রধান পদে রয়েছেন। আরএসএফ যদি মূল সেনাবাহিনীতে যোগ দেয় তখন হামদান দাগলোর ক্ষমতা খর্ব হবে। সবচেয়ে বড় কথা সে তার সামরিক শক্তি হারিয়ে ফেলবে।

গত এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া এই সংঘাতে দেশটির প্রায় ১৬ হাজার নাগরিক নিহত হয়। বাস্তুচ্যুত হয় ১০ লক্ষাধিক নাগরিক।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img