রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

হারিয়ানার মুসলিমদের বয়কট ও গ্রাম ছাড়া করতে ভীতি ছড়াচ্ছে উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা

হারিয়ানার মুসলিমদের বয়কট ও গ্রাম ছাড়া করতে ভীতি ছড়াচ্ছে ভারতের উগ্র হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসীরা।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদ ও বজরঙ্গি দলের মতো উগ্র হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসী দলগুলো মুসলিমদের অর্থনৈতিকভাবে বয়কট করে গ্রাম ছাড়া করার পায়তারা করছে।

হিসার জেলার হানসি:

উগ্র হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসী সংগঠন বজরঙ্গি দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ও বক্তা কৃষ্ণা গুরজার সম্প্রতি হারিয়ানার হিসার জেলার হানসি গ্রামে তার ভক্তদের নিয়ে উসকানিমূলক শোডাউন করেন। এসময় তিনি ঘোষণা দিচ্ছিলেন যে, মুসলিম কর্মচারীদের বরখাস্ত করতে হবে। মুসলিমরা এখানে চাকরি কিংবা ব্যবসা কিছুই করতে পারবে না। হারিয়ানা শুধুই হিন্দুদের। এখানে হিন্দু ছাড়া কেউ ব্যবসা করতে পারবে না।

আগামী ২ দিনের মধ্যে মুসলিম ব্যবসায়ীরা যদি ব্যবসা বন্ধ না করে তবে যা কিছু ঘটবে এরজন্য সে নিজেই দায়ী থাকবে।

আর যারা মুসলিম কর্মচারীদের বরখাস্ত না করে কাজে রাখবে তাদেরকে বয়কটের মুখোমুখি হতে হবে। তাদের দোকানের সামনে আমরা বয়কট করার পোস্টার লাগিয়ে দিবো। তাদের জাতীয় গাদ্দার হিসেবে চিহ্নিত করবো। মনে করা হবে তারা স্বজাতিদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করছে।

এই উস্কানীমূলক শোডাউনে হারিয়ানার পুলিশদের নিরাপত্তা দিতে দেখা যায়। পরবর্তীতে গুরজারকে প্রশ্নের মুখোমুখি করা হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, আমি রোহিঙ্গাদের ন্যায় বহিরাগত মুসলিমদের উদ্দেশ্য করে এই হুমকি দিয়েছি।

ভীতি প্রদর্শন করে হারিয়ানার মুসলিমদের গ্রাম ছাড়া করা এই শোডাউনের উদ্দেশ্য কি না জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, কাউকে ভীতি প্রদর্শনের উদ্দেশ্য নেই বজরঙ্গ দলের। কিন্তু এর প্রয়োজন হলে বজরঙ্গ দল কাউকে ভয় পাবে না। আমরা হিন্দু সম্প্রদায়কে (মুসলিমদের কারণে) ভয় পেতে দিবো না।

উগ্র হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসী দলের নেতা গুরজারের এমন উসকানিমূলক শোডাউন ও আলটিমেটামের বিরুদ্ধে শাহরুখ আলম নামের এক আইনজীবী আদালতে চ্যালেঞ্জ করেন। একে তিনি মুসলিমদের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ও সহিংসতার অংশ বলে উল্লেখ করেন।

পুলিশী নিরাপত্তায় এমন শোডাউন ও দাবী ভারতে মুসলিমদের অধিকার না থাকার স্বীকৃতি দেয়। এর কারণে এই আশঙ্কাও তৈরি হয়েছে যে, যেকোনো সময় তাদেরকে শহর কিংবা জেলা ছেড়ে যাওয়ার আদেশ দেওয়া হবে! এধরণের দাবী ভারতের জাতীয় অখণ্ডতা ও নিরাপত্তার জন্যও হুমকি। এর ফলে জাতীয় ঐক্য, নিরাপত্তা ও ভারতীয় মুসলিমদের সুস্পষ্ট সাংবিধানিক অধিকারেরও লঙ্ঘন হয়।

গত এপ্রিলে সুপ্রিম কোর্ট এসব বিদ্বেষমূলক বক্তব্য ও কর্মকাণ্ডকে আমলে নিয়ে প্রশাসনকে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ার যে আদেশ দিয়েছিলো তা পালন না করে উল্টো তাদের নিরাপত্তা প্রদান আদালত অবমাননার শামিল।

হানসির পুলিশ প্রধানকে প্রশ্নের মুখোমুখি করা হলে ভিরেন্দর সাঙ্গওয়ান সাংবাদিকদের জানান, গুরজার ও তার ভক্তদের সাম্প্রদায়িক উস্কানি ও বিদ্বেষমূলক বক্তব্য দেওয়ার অপরাধ নথিভুক্ত করা হয়েছে। এবিষয়ে তদন্ত চলমান রয়েছে।

গুরুগ্রাম:

অপরদিকে বজরঙ্গি দলের নেতা কুলভূষণ ভরদ্বাজও গুরুগ্রামের এক সমাবেশে বলেন, শত শত মুসলিম কাঠমিস্ত্রী, নাপিত ও ম্যাকানিক, ক্যাব ড্রাইভার, সবজি বিক্রেতা হিসেবে গুরুগ্রামে কাজ করেন। এসব কাজে সহায়তা করে থাকেন। আমরাও তাদের সহযোগিতা করতাম। কিন্তু এখন আমরা অঙ্গীকার করছি যে, তারা আমাদের কাছ থেকে কোনো সহায়তা পাবে না। কেননা তারাই শহরের শান্তি বিনষ্টের জন্য দায়ী। তারা এখানে থাকতে পারবে না। কোনো কাজ-কর্মও করতে পারবে না। আমরা শহরবাসীকে আহবান জানাচ্ছি, তারা যেনো কোনো মুসলিমকে এপার্টমেন্ট কিংবা বসতিতে থাকার সুযোগ না দেন। ঘর ভাড়া না দেন।

সংবাদমাধ্যমের তথ্যমতে, ভরদ্বাজের বিরুদ্ধেও মামলা করা হয়েছে। কিন্তু গুরুগ্রাম পুলিশ প্রশাসনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাদের কাছ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

মাহেন্দরগড়, রিওড়ী, ঝাজ্জার:

মাহেন্দরগড়, রিওড়ী ও ঝাজ্জার এই ৩টি জেলার ৫০টিরও বেশি গ্রাম পরিচালনা কমিটি সম্প্রতি বিবৃতি দেয় যে, নূহ গ্রামে হিন্দুদের সম্প্রতি যা ঘটেছে এর প্রেক্ষিতে তাদের এলাকায় মুসলিম ব্যবসায়ীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হচ্ছে।

গ্রাম প্রধানরা একটি চিঠিও লিখেন। চিঠিতে তারা লিখেন, কোনও মুসলমানকে গ্রামে কোনো ধরণের ব্যবসা, জিনিস বিক্রি করা, গবাদি পশু কেনার, কিংবা ভিক্ষা করার অনুমতি দেওয়া হবে না।

আইনজীবী শাহরুখ আলম এবিষয়ে বলেন, এমন চিঠি ও বিবৃতি উভয়টি আইনের লঙ্ঘন।

সুপ্রিম কোর্টে পিটিশন:

এসব ঘটনার প্রেক্ষিতে কপিল শৈবাল নামক এক আইনজীবী গত ৮ আগস্ট মুসলিমদের অর্থনৈতিক ভাবে বয়কটের আহবানের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে একটি পিটিশন জারি করেন।

বয়কটের বিরুদ্ধে কৃষকদের বিক্ষোভ:

এছাড়া গত ৯ আগস্ট হিসার জেলায় কৃষকদের একটি সংগঠন বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে। বিক্ষোভের আহবায়ক কৃষক নেতা সুরেষ কোঠ বলেন, মুসলিম ব্যবসায়ীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপের চিঠি অসংবিধানিক। সকল গ্রামবাসী তা মেনে নিবে বলে মনে হয় না।

তিনি সাংবাদিকদের জানান, এমন উদ্ভট ও অসংবিধানিক সিদ্ধান্তের কারণে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তা নিয়ে আলোচনার জন্য হিন্দু, মুসলিম ও শিখসহ দেশের সব ধর্মের নেতাদের হারিয়ানায় আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

আর আমাদের বার্তা হলো, আমরা শান্তি চাই। দাঙ্গা সৃষ্টিকারীদের বিচারের আওতায় আনা হোক।

উল্লেখ্য; গত ৩১ জুলাই হারিয়ানার নূহ জেলা ও গুরুগ্রামে ইসলাম বিদ্বেষী উগ্র হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসীরা তাণ্ডব ও হত্যাকাণ্ড চালায়। এসময় তারা মসজিদে আগুন, ইমাম ও সাধারণ মুসলিমদের হত্যার মতো জঘন্য অপরাধও করে।

সূত্র: আল জাজিরা

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img