রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

জ্বলছে ফ্রান্স; নেপথ্যে বর্ণবাদী বৈষম্য

সম্প্রতি ইঞ্জিন বন্ধ করে গাড়ি থেকে বের হওয়ার পুলিশী নির্দেশ অমান্য করাই ফ্রান্সের নান্তেরে নগরীতে নাহেল এম বা নাইল মারজুক নামের ১৭ বছর বয়সী এক আলজেরিয়ান-ফ্রেঞ্চ কিশোরকে হত্যা করা হয়।

হত্যাকাণ্ডের জেরে নজিরবিহীন বিক্ষোভ শুরু করে প্রতিনিয়ত বর্ণবাদ ও ইসলাম বিদ্বেষের শিকার লোকজন। আর সংহতি প্রকাশে অন্যান্য কিশোর-তরুণরাও তাদের সাথে যোগ দেয়। কেননা তাদের ধারণা মতে, নাহেল বা নাইল হত্যাকাণ্ডের সূত্রপাতও হয়েছিলো বর্ণবাদ ও ইসলাম বিদ্বেষ থেকে।

এই হত্যাকাণ্ডকে কেউ কেউ আইন অমান্য করাই বৈধতা দিচ্ছেন তো আবার অনেকে ইসলাম বিদ্বেষ বলে আখ্যায়িত করছেন। তবে অধিকাংশ লোকজনই গুলিবিদ্ধ করার আইনি প্রক্রিয়াকে বাড়াবাড়ি হিসেবে নিয়ে নিজেদের ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। কিন্তু দেশটিতে বসবাসকারী ফ্রেঞ্চ-আরবের মতো দৈত নাগরিকত্বের অধিকারী কিশোর-তরুণদের হত্যাকাণ্ড পূর্ব জীবনযাপনের তিক্ত অভিজ্ঞতা ভিন্ন কিছুর বার্তা দেয়।

হত্যাকাণ্ডকে বাড়াবাড়ি, ইসলাম বিদ্বেষ কিংবা বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা বলে মনে করা অথবা নির্দেশ অমান্য করাই বৈধতার তকমা দেওয়া কতটা যুক্তিযুক্ত হতে পারে তা দেশটির হত্যাকাণ্ড পূর্ব পরিস্থিতি বিবেচনা করলেই স্পষ্ট হয়ে যায়।

নামের শেষ অংশ যা পরিবারের নামের দিকে ইঙ্গিত করে তা গোপন রাখার শর্তে দৈত নাগরিকত্বের অধিকারী রাইয়ান ও রিদা নামের দুই ফ্রেঞ্চ তরুণ সংবাদমাধ্যমকে বলেন, সব জায়গায় দাঙ্গা পুলিশের প্রচুর সমাগম পরিলক্ষিত হচ্ছে। তারা বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে ফ্ল্যাশ বল (রাবার বুলেটের মতো বিশেষ মেটাল বুলেট) নিক্ষেপ করছে। আমরাও তাদের মারধরের শিকার হয়েছি। পূর্ণ ক্ষোভ নিয়ে আমাদের পিটিয়েছে তারা।

রিদা বলেন, আমরা সহিংসতার সাথে জড়িত ছিলাম না। এরপরও ফ্রেঞ্চ পুলিশ আমাদের মারধর করেছে। ফ্রেঞ্চ পুলিশের মারধরের বিষয়টি নতুন কিছু নয়। নাইল হত্যাকাণ্ডের আগ থেকেই ফ্রেঞ্চ মুসলিম, দৈত নাগরিকত্বের অধিকারী ফ্রেঞ্চ-আরব ও ফ্রেঞ্চ-আফ্রিকান এবং তুলনামূলক অনুন্নত এলাকায় বসবাসরত মধ্য ও নিম্নবিত্ত শ্রেণির লোকজন, বিশেষত মুসলিম ও কৃষ্ণাঙ্গ কিশোর-তরুণরা বৈষম্যের শিকার হয়ে আসছে। ফ্রেঞ্চ পুলিশ কর্তৃক তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হেনস্তার শিকার হতে হয়। তাদেরকে সন্দেহের চোখে দেখা হয়।

রিদার মতো অপর এক তরুণও এক ফ্রেঞ্চ গণমাধ্যমকে প্রায় একই কথা বলেন। তিনি বলেন, পুলিশের সহিংসতা এখন নিত্যদিনের ঘটনা। বিশেষত আপনি যদি আরব বা কৃষ্ণাঙ্গ হোন। অথবা অনুন্নত কোনো এলাকার বাসিন্দা হোন।

রাইয়ান বলেন, আমরা সহিংসতায় জড়াইনি। তবে ৩ দিনব্যাপী প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশে অংশগ্রহণ করে নিজেদের সংহতির জানান দিয়েছি। কারণ এখানে মার্সেইতে আমাদের পরিবারের কারো সাথে একই ঘটনা ঘটতে পারতো।

প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোর সাম্প্রতিক এক বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, সহিংসতা কোনো সমাধান নয় এটা আমরা সবাই বুঝি। কিন্তু অনেক সময় অনবরত বর্ণবাদ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে সহিংস কর্মকাণ্ড জরুরী হয়ে পড়ে। বর্ণবাদী, ইসলাম বিদ্বেষী ও নির্যাতনকারীদের এই বার্তা দেওয়ার জন্য যে, আমরাও চাইলে পাল্টা আঘাত হানতে পারি। আমরা নিষ্ক্রিয় নই।

এসময় তিনি ম্যাক্রো ও বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রচারিত প্রতিবেদনে বিভ্রান্ত না হওয়ার আবেদন জানিয়ে বলেন, এটা একটা বিপ্লব। আশাকরি কেউ একে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড মনে করে ভুল করবে না। এর মাধ্যমে পুলিশের বর্ণবাদী বৈষম্যের অবসান ঘটবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

সূত্র: আনাদোলু

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img