শনিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২১

ইসরাইলকে মরক্কোর স্বীকৃতি : যা বলছে ফিলিস্তিন, ইরান, ওমান, মিশর, স্পেন ও জাতিসংঘ

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


ইউনাইটেড স্টেটস-ব্রোকার্ড চুক্তির আওতায় ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সাথে মরক্কো কর্তৃক সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে বিশ্ব।

শুক্রবার (১১ ডিসেম্বর) আল জাজিরার খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর) চতুর্থ আরব দেশ হিসেবে মরক্কো ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে তাদের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়ার পর বিশ্বজুড়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

ইউএস-ব্রোকার্ড চুক্তির আওতায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পশ্চিম সাহারা অঞ্চলকে মরক্কোর স্বাধীন ভূখণ্ড হিসেবে স্বীকৃতি দিতে রাজি হয়। এটি সেই অঞ্চল যেখানে আলজেরিয়া সমর্থিত পলিসারিও ফ্রন্টের সাথে মরক্কোর পুরোনো আঞ্চলিক বিরোধ চলে আসছে। কেনোনা, পলিসারিও ফ্রন্ট সেখানে আলাদা রাষ্ট্র গঠন করতে বহু আগে থেকেই মরিয়া হয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে।

ফিলিস্তিনের প্রতিক্রিয়া:

ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে চুক্তিবদ্ধ আরব রাষ্ট্রগুলোর সমালোচনা করে ফিলিস্তিন বলে, ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দেওয়ার আগেই ইহুদিবাদী ইসরাইলকে ফিলিস্তিনের ভূমি ছেড়ে যেতে হবে এই গণদাবীকে অগ্রাহ্য করে আরব দেশগুলো শান্তি ইস্যুকে ব্যাহত করেছে।

প্যালেস্টাইন লিবারেশন অরগানাইজেশানের এক্সিউটিভ কমিটির সদস্য আল-সালেহী ইহুদিবাদী সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ইসরাইলের সাথে মরক্কো এবং অন্যান্য আরব রাষ্ট্রগুলোর চুক্তির তীব্র সমালোচনা করেন।

তিনি বলেন, আরব শান্তি উদ্যোগ বা আরব পিস ইনিশিয়েটিভ চুক্তি (২০০২) থেকে পিছু হটে যে কোনো আরব ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণে রাজি হওয়ার পিছনে ফিলিস্তিন ও আরব ভূখণ্ডের অবৈধ দখল ছেড়ে দেওয়ার শর্তারোপ করা অগ্রহণযোগ্য একটি বিষয়। কেনোনা এতে করে ইহুদিবাদী ইসরাইলের আগ্রাসী মনোভাব আরো বৃদ্ধি পাবে এবং ফিলিস্তিনি জনগণের অধিকারকে তারা অগ্রাহ্য করবে।

অপরদিকে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে মরক্কোর চুক্তি সম্পর্কে হামাসের মুখপাত্র হাজেম ক্বাসেম বলেন, এটি পূন্য নয় বরং পাপ। ফিলিস্তিনি জনগণ এর দ্বারা উপকৃত হবে না। কেনোনা অবৈধ দখলবাজ ইসরাইল প্রতিটি স্বাভাবিকীকরণ চুক্তিকে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে তাদের আগ্রাসন বাড়াতে এবং অবৈধ ইহুদি বসতি সম্প্রসারণে ব্যবহার করবে।

পলিসারিও ফ্রন্ট:

১৯৭৫ থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করা পলিসারিও ফ্রন্ট যা পশ্চিম সাহারার স্থানীয়দের নিয়ে গঠিত, তাদের নিন্দার ভাষা ছিল সবচেয়ে বেশি আক্রমণাত্মক। তারা বলেছে, ট্রাম্প মরক্কোকে সেটি দেওয়ার চেষ্টা করছে যা তার কখনোই ছিলো না।

পলিসারিও ফ্রন্টের বিবৃতিতে আরো বলা হয়, পশ্চিম সাহারার উপর মরক্কোর সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেওয়ার ব্যাপারে ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত, আইনসম্মত সাহারার বৈধ ইস্যুকে পরিবর্তন করতে পারবে না। কেনোনা, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পশ্চিম সাহারার উপর মরক্কোর সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি এখনো দেয় নি।

ইরান:

ইরানের সংসদীয় স্পিকারের উপদেষ্টা হুসাইন আমির আব্দুল-লাহিয়ান বলেন, ইসরাইলের সাথে মরক্কোর সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণ হল ফিলিস্তিনিদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা এবং তাদের পিঠে ছুরিকাঘাতের ন্যায়।

এসময় ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে চুক্তিবদ্ধ অন্যান্য আরব রাষ্ট্রগুলোরও নিন্দা জানায় ইরান।

মিশর:

শান্তি চুক্তির আওতায় ১৯৭৯ থেকে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলা মিশরের প্রেসিডেন্ট আব্দুল ফাত্তাহ আল-সিসি ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের ঘোষণাকে সাধুবাদ জানান।

আল-সিসি, মধ্যপ্রাচ্যে আঞ্চলিক সহযোগিতা ও দীর্ঘস্থায়ী স্থিতিশীলতার জন্য মরক্কোর এই পদক্ষেপকে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হিসেবে আখ্যায়িত করে তার ভূয়সী প্রশংসাও করেন।

ওমান:

ওমানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে মরক্কোর কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, মরক্কোর এই সিদ্ধান্ত মধ্যপ্রাচ্যে দীর্ঘস্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টাকে আরো শক্তিশালী করবে।

স্পেন :

স্পেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরঞ্চা গঞ্জালেজ লায়া বলেন, স্পেন, মরক্কোর সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানায় তবে মরক্কোর ভূখণ্ড হিসেবে পশ্চিম সাহারাকে ট্রাম্পের স্বীকৃতি প্রদান করাকে প্রত্যাখ্যান করছে।

তিনি বলেন, সব স্বাভাবিক সম্পর্কের ন্যায় ইসরাইলের সাথে মরক্কোর এই স্বাভাবিক সম্পর্ককেও আমরা অভ্যর্থনা জানাচ্ছি। তবে দুঃখজনক বিষয় হল, ফিলিস্তিনের সাথে ইসরাইলের সম্পর্ক এখনো স্বাভাবিক হয়নি। ইসরাইল-ফিলিস্তিন ইস্যুটি এখনো অমীমাংসিত। অমীমাংসিত বিষয়টির সমাধান জাতিসংঘের রেজুলেশনেই আছে। আর বিষয়টি সমাধানের ক্ষেত্রে স্পেনের অবস্থান খুবই স্পষ্ট।

জাতিসংঘ:

জাতিসংঘের পক্ষ থেকে বলা হয়, আমেরিকার স্বীকৃতির পরেও পশ্চিম সাহারার ব্যাপারে তাদের অবস্থান অপরিবর্তিত রয়েছে।

তাছাড়া, ইউএন সেক্রেটারি জেনারেল আন্তেনিও গুতেরেসের মুখপাত্র জানান, গুতেরেস মনে করেন জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের রেজুলেশন অনুযায়ী এই সমস্যার সমাধান এখনো সম্ভব।

মরক্কো এবং পশ্চিম সাহারার পলিসারিও ফ্রন্টের উদ্দেশ্যে গুতেরেসের আহবান হল, তারা যাতে এমন কোনো কাজ না করে বসে, যা পরবর্তীতে উত্তেজনাকর পরিস্থিতিকে আরো বাড়িয়ে তুলবে।

উল্লেখ্য, মরক্কো এবং মরিতানিয়ার যৌথ প্রশাসনের কাছে প্রশাসনিক ক্ষমতা বুঝিয়ে দেওয়ার আগে ১৯৭৫ সন পর্যন্ত পশ্চিম সাহারা স্পেনের দখলে ছিল। স্পেন, সাহারার মানুষের সাথে তাদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রেখেছে। এমনকি পশ্চিম সাহারার বহু মানুষ ও সামাজিক ব্যক্তিত্ব বছরের পর বছর স্পেনে পড়াশুনা করেছেন।

তাছাড়া, গণভোটের মাধ্যমে অন্যদেশের সাথে যুক্ত হতে চাওয়া পশ্চিম সাহারার স্বাধীন পলিসারিওরা পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র আলজেরিয়া থেকেও বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা পেয়ে আসছে। এমনকি হাজার হাজার সাহারাবী শরণার্থীদের যুগ যুগ ধরে আশ্রয়ও দিয়ে আসছে আলজেরিয়া।

বিরোধপূর্ণ পশ্চিম সাহারার ৮০ শতাংশ অঞ্চল নিয়ন্ত্রণ মরক্কোর কাছে। এমনকি ফসফরাসের খনি সম্বলিত বিভিন্ন এলাকা এবং সেখানকার একমাত্র মাছ সম্বলিত জলাধারগুলোও মরক্কোর দখলে!

সূত্র: আল জাজিরা

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img