আমিরাতের কাছে ট্রাম্পের অস্ত্র বিক্রির বিরুদ্ধে সিনেটরদের প্রস্তাব

সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে কমপক্ষে ২৩০০ কোটি ডলারের ড্রোন ও অন্যান্য অস্ত্র বিক্রি থামিয়ে দিতে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনের বিরুদ্ধে প্রস্তাব আনছেন তিনজন সিনেটর। প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে কয়েক সপ্তাহের মধ্যে তার পদ ছাড়তে হবে। তার আগে এই প্রস্তাবে তিনি বড় রকম হোঁচট খাবেন বলেই মনে করা হচ্ছে। ওই তিন সিনেটর হলেন ডেমোক্রেট দলের সিনেটর বব মেন্ডেজ, ক্রিস মারফি এবং রিপাবলিকান সিনেট র‌্যান্ড পল। অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করতে তারা আলাদা আলাদা চারটি প্রস্তাব আনবেন। এর ফলে সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে আমেরিকার রিপার ড্রোন, এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান, আকাশ থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র এবং অন্য সামরিক সরঞ্জাম বিক্রি বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করা হবে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স এর খবরে বলা হয়, সংযুক্ত আরব আমিরাতে এত বিপুল পরিমাণ সমরাস্ত্র বিক্রির ফলে মধ্যপ্রাচ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য পাল্টে যেতে পারে।

এ নিয়ে তাড়াহুড়ো করে ট্রাম্প প্রশাসনের সিদ্ধান্ত নিয়ে সমালোচনা করেছেন কংগ্রেস সদস্যরা। তারা মাত্র গত সপ্তাহে কংগ্রেসের কাছে অস্ত্র বিক্রি নিয়ে আনুষ্ঠানিক নোটিশ পাঠিয়েছে। মার্কিন কংগ্রেসের অনেক আইন প্রণেতার উদ্বেগ এ জন্য যে, সংযুক্ত আরব আমিরাত এসব অস্ত্র ব্যবহার করতে পারে যুদ্ধে। তাতে ইয়েমেনের বেসামরিক মানুষজন ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন। এ দেশটিতে এমনিতেই দীর্ঘ সময় ধরে চলছে গৃহযুদ্ধ। তাতে সেখানে সৃষ্টি হয়েছে এক মানবিক বিপর্যয়।

ট্রাম্প প্রশাসন থেকে অস্ত্র বিক্রির এই চুক্তির ঘোষণা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মানবাধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। তারা বলেছে, আন্তর্জাতিক মানবাধিকারের আইন লঙ্ঘন করে এ অস্ত্র ব্যবহার করে হামলা চালানো হতে পারে। তাতে হতাহত হতে পারেন ইয়েমেনের হাজার হাজার বেসামরিক মানুষ। বিক্রির তালিকায় যেসব অস্ত্র রয়েছে তার মধ্যে আছে জেনারেল এটোমিক, লকহিড মার্টিন কোরের এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান ও রেথিওনের প্রস্তুতকৃত ক্ষেপাণাস্ত্র।

কিন্তু এই তিন সিনেটরের প্রস্তাব এই অস্ত্র বিক্রিতে কতটুকু ভূমিকা রাখতে পারবে তা অনিশ্চিত। তবে তারা বিষয়টি কংগ্রেস সদস্যদের নজরে আনছেন। এতে হয়তো অস্ত্র বিক্রি বিলম্বিত হবে। কিন্তু বন্ধ হওয়ার সম্ভাবনা কম।

সূত্র: রয়টার্স

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *