বৃহস্পতিবার, মার্চ ৪, ২০২১

বিখ্যাত পপ তারকা ক্যাট স্টিভেন্স যেভাবে হলেন ইউসুফ ইসলাম

সাবেক ব্রিটিশ পপ তারকা ক্যাট স্টিভেন্স। জন্ম ১৯৪৮ সালে ব্রিটেনের এক খ্রিস্টান পরিবারে। তার বাবা ছিলেন একজন গ্রিক অর্থোডক্স খ্রিস্টান ও মা ছিলেন সুইডিশ ক্যাথলিক। স্টিভেন্স ব্রিটেনের প্রোটেস্টান্ট খ্রিস্টান সমাজে বসবাস করতেন প্রোটেস্টান্ট ধর্মমত অনুযায়ী। ২০ বছর বয়স হওয়ার আগেই তার ৮টি অ্যালবাম প্রকাশিত হয়, অর্জন করেন ব্যাপক খ্যাতি।

১৯৬৯ সালে যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত হন স্টিভেন্স। তার শারীরিক অবস্থা এতই খারাপ হয়ে পড়েছিল যে চিকিৎসকরা তার বেঁচে থাকার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছিলেন। প্রায় এক বছর ধরে হাসপাতালে থাকার পর তার মধ্যে বড় রকমের মানসিক পরিবর্তন ঘটে। এ সময় তিনি গভীর আগ্রহ নিয়ে প্রাচ্যের নানা ধর্ম সম্পর্কে পড়াশুনা শুরু করেন। এরপর থেকে তার গানের ভাবধারা ও পরিবেশ বদলে যেতে থাকে এবং সেগুলো হয়ে উঠতে থাকে আধ্যাত্মিক অর্থবহ।

১৯৭৬ সালে আমেরিকার ম্যালিবু সৈকতে সাঁতার কাটতে গিয়ে প্রায় ডুবতে বসেছিলেন তিনি। মৃত্যুর ভয়ে চিৎকার করছিলেন- ‘হে সৃষ্টিকর্তা, আমাকে বাঁচান, আমি আপনার জন্য কাজ করবো।’ এরপর অপ্রত্যাশিত উল্টো একটি ঢেউ তাকে তীরে আছড়ে ফেলে। এই ঘটনার পর থেকে ক্যাট স্টিভেন্সের মনে আমূল পরিবর্তন আসে।

ভাই ডেভিড গর্ডন জেরুজালেম ঘুরতে গিয়ে তার জন্য একটি পবিত্র কুরআন নিয়ে আসেন। ধারণা করা হয়, তখন থেকেই স্টিভেন্সের ইসলামকে জানার আগ্রহ তৈরি হয়। কুরআন পড়ে স্টিভেন্স এতই অভিভূত হন যে, তিনি ইসলাম সম্পর্কে সার্বিক গবেষণা ও পড়াশোনা করার সিদ্ধান্ত নেন।

স্টিভেন্সের ভাষায় ‘পবিত্র কুরআনের যে দিকটি সব কিছুর আগে আমার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল তা হলো, এ মহাগ্রন্থের মলাটে লেখকের নাম নেই। শুরু করলাম কুরআন অধ্যয়ন। যতবারই এ মহাগ্রন্থ পড়তাম ততবারই প্রশান্তি অনুভব করতাম। মনে হতো, এ কুরআন যেন আমার জন্যই লেখা হয়েছে, তাই বারবার পড়েও তৃষ্ণা মিটত না। কুরআন পড়ে বুঝতে পারলাম যে, ইসলামই সেই ধর্ম, যার সন্ধান আমি করছিলাম। কারণ, আমার মনের সব প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেয়েছি এ মহান ধর্মে।

স্টিভেন্স বলেন, কুরআন পড়ার আগে পার্থিব জীবনকে আমার কাছে ধাঁধা মনে হতো। এ জগতের যে একজন স্রষ্টা রয়েছেন, তা বিশ্বাস করতাম। কিন্তু জানতাম না, এই যে স্রষ্টা, যাকে চোখে দেখা সম্ভব নয়, তিনি কে। যখন পবিত্র কুরআন অধ্যয়ন করলাম, তখন অনুভব করলাম যে, এ বই যেন আমার সঙ্গে কথা বলছে।

একবার এক ছুটিতে স্টিভেন্স মরোক্কো ঘুরতে গিয়ে প্রথম আজানের ধ্বনি শুনতে পান। মরক্কোয় আজানের ধ্বনি শুনে অভিভূত হন পপ সঙ্গীতের তারকা স্টিভেন্স। তিনি জানতে চান, ‘এটা কিসের শব্দ?’ উত্তরে জানতে পারেন, ‘এটা আজান, ঐশ্বরীয় বার্তা। যার মাধ্যমে ডাকতে মুসলমানদের মসজিদে আহ্বান করা হয়।’ এসময় তাঁর মনে ভাবনার উদয় হয়- ‘জীবনে টাকার জন্য গান করতে শুনেছি, গান হয়েছে খ্যাতির জন্য, ক্ষমতার জন্য, কিন্তু ঐশ্বরিক গান?’

১৯৭৭ সালে স্টিভেন্স খ্রিষ্টান ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম গ্রহণ করেন। নিজের নাম রাখেন- ইউসুফ ইসলাম। খ্রিষ্টানরা বলে- যোসেফ।

ইউসুফ নামটি বেছে নেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি সব সময়ই যোসেফ নামটি পছন্দ করতাম। যে স্কুলে আমি প্রথম ভর্তি হই, সেই স্কুলের নাম সেন্ট যোসেফ। অবশ্য, এই নাম বেছে নেওয়ার মূল কারণ হলোÑ কুরআনের সুরা ইউসুফ অধ্যয়ন। এই সুরা দারুণভাবে নাড়া দিয়েছে আমার মনকে।’

ইসলাম গ্রহণের পর ইউসুফ ইসলাম মুসলমানদের প্রথম ক্বিবলা বায়তুল মুকাদ্দাস শহর সফর করেন। এই পবিত্র শহর সফরের কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এই পবিত্র স্থানে আমার ভাইয়ের সফরের সুবাদেই আমি ঈমানের সম্পদ পেয়েছি। এ পবিত্র স্থান মুসলিম বিশ্বের হৃৎপিণ্ড। যতদিন এ হৃৎপিণ্ড অসুস্থ থাকবে, ততদিন গোটা মুসলিম বিশ্ব অসুস্থ থাকবে। এই মসজিদুল আকসাকে দখলমুক্ত করা আমাদেরই দায়িত্ব।’

মুসলিম হওয়ার পর তিনি কিছু দিন গান গাওয়া ও অ্যালবাম করা ছেড়ে দিয়েছিলেন। বিয়ে করার পর তিনি ব্রিটিশ মুসলিম সমাজের সেবায় নিয়োজিত হন। পপ তারকা হিসেবে তার বার্ষিক আয় ছিল দেড় মিলিয়ন ডলার। তার জমানো সেইসব অর্থ ও ভবিষ্যৎ আয়কে লন্ডন ও অন্যান্য অঞ্চলের মুসলিমদের শিক্ষার কাজে ও অন্যান্য দাতব্য খাতে ব্যয় করার পরিকল্পনা করেন।

ইউনিসেফের বিশেষ দূত হয়ে ইউসুফ ইসলাম ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশের ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাঙ্গামাটি, পটুয়াখালি, ভোলা, রংপুর ইত্যাদি স্থানে ঘুরে বেড়িয়েছেন।

শিশুদের ইসলাম শিক্ষা নিয়ে কাজ করেছেন ইউসুফ ইসলাম। ১৯৮৩ সালে লন্ডনে ‘ইসলামিয়া প্রাইমারি স্কুল’ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৮৯ সালে ‘ইসলামিয়া গার্লস সেকন্ডারি স্কুল’ প্রতিষ্ঠা করে অভূতপূর্ব সাফল্য পান। ইউসুফ ইসলাম ‘ব্রন্ডেসবারি কলেজ’ নামে আরেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন।

১৯৮৫ সালে ইউসুফ ইসলাম প্রতিষ্ঠা করেন আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা ‘মুসলিম এইড’। পৃথিবীর অন্যান্য মুসলিম সাহায্য সংস্থার সঙ্গে মিলিতভাবে তারা কাজ করে যাচ্ছেন। ‘ক্যাট স্টিভেন্স মিউজিক’-এর বার্ষিক আয় প্রায় দেড়শ মিলিয়ন ডলারের পুরোটা ইসলাম প্রচার-প্রসার এবং বিভিন্ন ত্রাণকাজে ব্যবহার করা হয়।

ইউসুফ ইসলাম ‘ইউকে ইসলামিক এডুকেশন ওয়াকফ’-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। এ প্রতিষ্ঠান মূলত ইসলামিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে অর্থ সাহায্য দিয়ে থাকে। তিনি ‘অ্যাসোসিয়েশন অব মুসলিম স্কুলস’-এর চেয়ারম্যান।

১৯৯২ সালে ইংল্যান্ডে তার তত্ত্বাবধানে ‘ওয়াকফ আল-র্বি এডুকেশনাল ট্রাস্ট’ নামে একটি চ্যারিটি প্রতিষ্ঠান নথিভুক্ত হয়।

১৯৯৪ সালে ইউসুফ ইসলাম ‘মাউন্টেইন অব লাইট’ প্রতিষ্ঠা করেন। সংস্থাটি মূলত দাওয়াতি তথ্য উপকরণ, প্রচারের বিভিন্ন মাধ্যম তৈরি করে থাকে।

শুধুমাত্র মুসলিম হওয়ার কারণে তাকে অনেক প্রতিবন্ধকতা পাড়ি দিতে হয়েছে। ‘সন্ত্রাসী’ সংশ্লিষ্টতা রয়েছে অজুহাতে ২০০৪ সালের সেপ্টেম্বরে রেকর্ডিংয়ের কাজে লন্ডন থেকে ওয়াশিংটনে যাওয়ার পথে তাকে আটক করা হয়। ফিলিস্তিনি সংস্থা ‘হামাস’-কে সাহায্য করার কারণে ২০০০ সালে ইহুদিদের সন্ত্রাসবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল সরকারও তাকে ঢুকতে দেয়নি।

‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’ লেখার জন্য ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিকদের গুরু সালমান রুশদির মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছিলেন ইউসুফ ইসলাম।

Newsinsaf-march-2021-desknewse-05