Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

আসমানে যিনি আছেন, তিনি তোমাদের প্রতি রহম করবেন

শায়েখ সাজিদুর রহমান | মুহতামিম : জামিয়া দারুল আরকাম আল-ইসলামিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া, শায়খুল হাদিস : জামিয়া ইউনুছিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও সহ সভাপতি : বেফাক


বর্তমানে করোনার এই বিপর্যয় আমাদের জীবনের বিপর্যয়ের আরো কত করুণ ও করুণার ঘটনা সামনে এনে দিয়েছে! সংবাদমাধ্যমগুলোর মাধ্যমে এর কিছু কিছু আমাদের গোচরে আসছে। শুধুমাত্র করোনার উপসর্গের কারণেই উপসর্গযুক্ত মানুষটির সাথে কত নির্মম-নির্দয় আচরণ করা হয়। আর যদি নিয়মতান্ত্রিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে মানুষটির করোনা শনাক্ত হয় তাহলে-তো নির্মমতা ও নির্দয়তার চূড়ান্ত হয়। করোনা সন্দেহে আপন মাকে গভীর জঙ্গলে ফেলে আসার মতো নিষ্ঠুর ও হৃদয়বিদারক ঘটনারও শ্রোতা হতে হয়েছে আমাদেরকে। আপনারাও হয়তো শুনেছেন, একজন মা এবং একজন বাবা তাদের করোনা আক্রান্ত ছেলেটিকে রাতের অন্ধকারে বাঁশের ঝাড়ে ফেলে এসেছে। মহাসড়কের পাশে করোনা আক্রান্ত সন্তানের লাশ ফেলে আসা বাবার কথা শুনেআপনারও অন্তরে রক্তক্ষরণ হয়েছে। ঘটনাবহুল এই পৃথিবীতে এভাবেই কিন্তু নতুন অমানবিক ও পৈশাচিক ঘটনাগুলো ঘটতে থাকবে? আল্লাহর রহম ছাড়া আমাদের আর কোনোই ঠিকানা নেই।

অবশ্য এতসব মন্দ খবরের ভীড়ে কিছু ভালো সংবাদ যে নেই; তা-নয়। ব্যক্তি পর্যায়ে আবার প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়েও করোনা রোগীদের সেবা, করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদের গোসল, কাফন-দাফন এবং করোনার উপসর্গযুক্ত রোগীদের নমুনা সংগ্রহকরা, এরকম নানা বিষয়ে প্রীতিকর ও উদ্দীপক বিভিন্ন সংবাদ আমরা জানতেপারছি। সেসব ভালো সংবাদের নীতিসম্মত প্রচারণার ক্ষেত্রে সংবাদমাধ্যমগুলোর ইতিবাচক ভূমিকার মাধ্যমে যেমন মানুষজনের আতঙ্ক-অস্থিরতা দূর হতেপারে; সেই সাথে একটি ইতিবাচক পরিবর্তনের ধারাও শুরুহতে পারে।

পুরো পৃথিবীতেই, বিশেষকরে আমাদের মতো গরীব দেশে করোনার কারণে অসংখ্য মানুষ তাদের জীবিকা হারিয়েছে। অতি অভাব-অনটনের মধ্য দিয়ে তারা মানবেতর দিন-গুজরান করেআসছে। তাদের সাহায্য-সহযোগিতার চেষ্টা আমরা অতিসামান্য পরিমাণেই দেখতে পাচ্ছি। একটি দরিদ্র দেশে এত বিপুল জনগোষ্ঠী শুধুমাত্র সরকারের সীমিত সাহায্য ও অনুদান বিশেষ কোনো উপকার করতে পারবেনা। আমাদের প্রত্যেককেই যার যার সামর্থ্য নিয়ে এই দুর্যোগে আক্রান্ত মানুষজনের পাশে দাঁড়াতে হবে। এছাড়া সরকারের পক্ষ থেকে যে সীমিতঅনুদান বরাদ্দহয়েছে, সেগুলো নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমেই বুভুক্ষ আত্মসাতের ঘটনা প্রকাশিত হচ্ছে! সেগুলোর খুব সামান্য অংশই গ্রাহকদের কাছে পৌঁছতে পারছে। যার ফলে অভাব-অনটন দিনদিন প্রকট থেকে প্রকটতর হতে চলেছে!

কোনো সন্দেহ নেই যে, এই যে অমানবিকতা, দুর্নীতি ও লালসাগ্রস্ত মানসিকতা, এর মূলে হলো ব্যক্তি ও সমাজের ইসলামের বিধান থেকে দূরে সরে যাওয়া, যার ফলে আল্লাহর পক্ষ থেকে রহমত ও বরকত সমাজ থেকে উঠে যাওয়া। করোনার এই পরিস্থিতিতে মানবিক ও সহৃদয়পূর্ণ আচরণের মাধ্যমেই আমরা আল্লাহর রহমত ডেকে আনতেপারি।

দেখুন হাদীস শরীফে কত স্পষ্ট ইরশাদ হয়েছে,হযরতআবদুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আস রাযি. থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন,
الرَّاحِمُونَ يَرْحَمُهُمُ الرَّحْمَنُ، ارْحَمُوا مَنْ فِي الأَرْضِ يَرْحَمْكُمْ مَنْ فِي السَّمَاءِ.
যারা দয়াশীল, দয়াময় আল্লাহ তাদেরই প্রতি দয়া করেন, রহম করেন। তোমরা জমিন বাসীদের প্রতির হমকরো, তাহলে আসমানে যিনি আছেন, তিনি তোমাদের প্রতি রহম করবেন। (সুনানেতিরমিযী, হাদীস ১৯২৪)

মানুষের সাথে মানুষের অমানবিক ও হৃদয়হীন আচরণের কারণেই আল্লাহর দয়া ও রহমত মানুষের থেকে উঠে যায়। আর মানুষের সাথে মানবিক ও আন্তরিক আচরণের মাধ্যমে, এমনকি পশুর সাথেও মানুুষের মমতাপূর্ণ আচরণের মাধ্যমে পৃথিবীতে আল্লাহর রহমত নেমে আসে।

সহীহ বুখারী শরীফের সেই প্রসিদ্ধ ঘটনা আমরা জানি, এক পাপাচারী নারী পিপাসার্ত কুকুরকে হৃদয় দিয়ে, আবেগ দিয়ে কূয়া থেকে পানি পান করানোর মাধ্যমে আল্লাহর ক্ষমা ও মাগফিরাত লাভকরেছে। (সহীহবুখারী, হাদীস ৩৪৬৭)
অন্যদিকে এক (ইবাদতগুজার, সতী-সাধীপূণ্যবতী)নারী একটি নির্দোষ বিড়ালকে দানা-পানিনা দিয়ে বেঁধে রাখার কারণে জাহান্নামের ভাগীদার হয়েছে। (সহীহবুখারী, হাদীস ২২৩৬)

বর্তমান পরিস্থিতিতে আল্লাহর রহম ও করুণা লাভের অন্যতম উপায় হলো, আমরা নিজেদের পরিসরে অনেক বেশি মানবিক হবো, সবার সাথে মমতা ও ভালোবাসাপূর্ণ আচরণ করবো। আমাদের চারপাশে গরীব-দুঃখীদের পাশে দাঁড়াবো। অসুস্থ ও মা‘যুরদের সেবা-শুশ্রষায় এগিয়েআসবো। প্রিয়জনদের সাধ্যমতো প্রয়োজন পূরণে সচেষ্ট হবো। আল্লাহ যেন আমাদেরকে ভরপুর তাওফীক দান করেন। আমীন।

০১.১১.১৪৪১ হিজরী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *