শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪

নীতির বিষয়ে আজীবন আপোষহীন মুফতী মাহমুদ রহ.

সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার


বৃটিশ আমলের ঘটনা। বালক মাহমুদ তখন ক্লাস এইটে পড়াশোনা করে। একদিন স্কুল পরিদর্শনে আসেন এক ইংরেজ অফিসার। মাহমুদকে জিগ্যেস করেন, বড় হয়ে কি হতে চাও? উত্তরে মাহমুদ বলেন, হিন্দুস্তানের মাটি থেকে আপনাদের বিদায় করবো। স্কুলের প্রিন্সিপাল ঘাবড়ে গিয়ে বালক মাহমুদকে এক পাশে নিয়ে ইংরেজদের বিরুদ্ধে কথা না বলতে বুঝিয়ে শুনিয়ে আবার অফিসারের সামনে নিয়ে আসেন। প্রিন্সিপাল ইংরেজ অফিসারকে বললেন, স্যার আপনি এই ছেলেকে আবার প্রশ্ন করুন। অফিসার একই প্রশ্ন আবার করলে বালক মাহমুদ উত্তরে বলেন, বড় হয়ে আমি হিন্দুস্তানের মাটি থেকে ইংরেজ ও ইংরেজদের দোসর এই প্রিন্সিপালকে বিদায় করবো!

নীতির বিষয়ে বাল্যকাল থেকেই এমন আপোষহীন ছিলেন মাহমুদ, যিনি পরবর্তীতে পরিচিত হোন মুফতী মাহমুদ নামে।

সীমান্ত প্রদেশের পাঠান পরিবারে জন্ম নেওয়া মুফতী মাহমুদ খান ছিলেন মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানীর ছাত্র এবং রাজনৈতিক মতবাদের অনুসারী। তাই তিনি মুসলিম লীগের পরিবর্তে কংগ্রেসকে সমর্থন করতেন।

জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকায় মুফতী মাহমুদ দেশ ভাগের বিরোধিতা করেছিলেন। একারণে পাকিস্তান সৃষ্টির পর তাকে হয়রানিরও শিকার হতে হয়েছিল।

পরবর্তীতে তিনি মাওলানা শাব্বির আহমদ উসমানীর নেতৃত্বে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামে যুক্ত হোন। ১৯৫৩ সালে মাওলানা আহমদ আলী লাহোরীর নেতৃত্বে খতমে নবুওয়াত আন্দোলন শুরু হলে, তিনি তাতে অগ্রভাগে থেকে অংশ নেন। এসময় তিনি গ্রেপ্তার হয়ে ৭ মাস জেল খাটেন।

১৯৬৫ সালে সামরিক শাসক আইয়ুব খানের আমলে অল পাকিস্তানে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে আইয়ুবের বিরুদ্ধে বিরোধী জোটের প্রার্থী করা হয় কায়েদে আজম মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর ছোটবোন ফাতেমা জিন্নাহকে। আইয়ুবের বিরুদ্ধে ফাতেমা জিন্নাহকে সমর্থন জানান তৎকালীন সময়ে উলামাদের প্রধান রাজনৈতিক দল (জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের রাজনৈতিক শাখা) নেজামে ইসলাম পার্টি।

আলেম-উলামাদের প্রায় সবাই যেহেতু তখন নেজামে ইসলামের সাথে যুক্ত, তাই তাদের সমর্থনও ছিলো ফাতেমা জিন্নাহর পক্ষে।

তবে নারী নেতৃত্বের প্রশ্নে পুরো পাকিস্তানের দুজন বড় আলেম ফাতেমা জিন্নাহর বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। একজন মুফতীয়ে আজম মুফতী ফয়জুল্লাহ রহ. অন্যজন মুফতী মাহমুদ রহ.। তারা ফাসেক আইয়ুবের বিরুদ্ধে নাজায়েজ নারী নেতৃত্বকে স্বীকৃতি দিতে অস্বীকৃতি জানান।

আইয়ুবের পতনের পর ১৯৭০ সালে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে মাওলানা জাফর আহমদ উসমানীর নেতৃত্বে জমিয়ত ও মুফতী মাহমুদের নেতৃত্বে জমিয়ত আলাদাভাবে অংশ গ্রহণ করে।

মুফতী মাহমুদ তার নিজ আসনে চ্যালেঞ্জ জানান ততকালীন সময়ে পশ্চিম পাকিস্তানের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভুট্টোকে। চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে সেই আসন থেকে ভুট্টোও নির্বাচনে অংশ নেন। ভুট্টোর প্রতীক ছিলো তলোয়ার আর মুফতী মাহমুদদের প্রতীক খেজুর গাছ। নির্বাচনে খেজুর গাছের কাছে হেরে যায় তলোয়ার! ১২ হাজার ভোটে ভুট্টোকে হারিয়ে নির্বাচনে বিজয় ছিনিয়ে আনেন মুফতী মাহমুদ! যদিও অন্য দুইটি আসন থেকে ভুট্টো নির্বাচিত হয়েছিলেন।

১৯৭০ সালের নির্বাচনে অল পাকিস্তানে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ। কিন্তু ভুট্টোর আপত্তির কারণে মুজিবকে ক্ষমতা বুঝিয়ে দিতে পারছিলেন না ইয়াহিয়া খান। সে সময় আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য বারবার দাবি জানান মুফতী মাহমুদ। এসময় বঙ্গবন্ধুর সাথে বেশ কয়েকটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় মুফতী মাহমুদসহ ততকালীন ভুট্টোর বিরুদ্ধে থাকা নেতাদের।

সব চেষ্টা ব্যর্থ হয়। ভুট্টোর আপত্তির কারণে কওমী এসেম্বলির বৈঠক বাতিল করেন ইয়াহিয়া। মুফতী মাহমুদ যখন বুঝলেন পাকিস্তান ভেঙ্গে যাচ্ছে, তখন তিনি বঙ্গবন্ধুকে উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন, ১৯৪৭-এ আপনারা মুসলিম লীগের পক্ষে ছিলেন, আমরা ছিলাম কংগ্রেসি। আপনারা পাকিস্তান বানাচ্ছিলেন, আমরা নিষেধ করেছিলাম। আমরা বলেছিলাম এতে মুসলমানদের ক্ষতি হবে। আর এখন আপনারা পাকিস্তান ভাঙতেছেন, এখন আমরা বলতেছি এমনটা করবেন না। এতে মুসলমানদের ক্ষতি হবে।

মুক্তিযুদ্ধের সময় নিজ দেশের জনগণের ওপর সেনাবাহিনীর গণহত্যার কঠোর প্রতীবাদ জানান মুফতী মাহমুদ। মুক্তিযুদ্ধের পর যখন পাকিস্তান ভেঙ্গে যায়, ভুট্টোকে উদ্দেশ্য করে মুফতী মাহমুদ বলেন, আমরা তো হিন্দুস্তান ভাঙ্গার পক্ষেই ছিলাম না, পাকিস্তান ভাঙ্গার পক্ষে কিভাবে থাকতে পারি। দেশ ভাঙ্গা আপনাদের কাজ। কালকেও আপনারা দেশ ভাগ করেছেন, আজকেও আপনারা দেশকে দুই টুকরা করে ফেলেছেন। যদি দেশ ভাঙ্গা গুনাহ হয়, তাহলে আল্লাহর শোকর যে, আমরা এই গুনাহে কালকেও শরিক ছিলাম না, আজকেও শরিক নই।

১৯৭২ সালে আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির সমর্থন নিয়ে সিমান্ত প্রদেশে (বর্তমান নাম খাইবার পাখতুনখোয়া) সরকার গঠন করেন মুফতী মাহমুদ। প্রায় এক বছর তিনি সিমান্ত প্রদেশের উজিরে আলা বা মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। মুখ্যমন্ত্রী থাকা অবস্থায় কোনো বেতন নিতেন না তিনি। পার্লামেন্টের সদস্য হিসেবে যে ১৫০০ রুপি সম্মানী পেতেন, তা দিয়েই চলতেন। তাঁর আমলে মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয় ২৪ ঘণ্টা জনগণের জন্য খোলা থাকতো। আসর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সাধারণ মানুষ মুখ্যমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাতের সুযোগ পেতো। এক বছরের মধ্যে তিনি সিমান্ত প্রদেশে মদ, জুয়া ও যৌতুক প্রথা নিষিদ্ধ করেন, নারীদের পর্দা বাধ্যতামূলক করেন, এহতেরামে রমজান অডিনেন্স, উর্দুকে অফিসিয়াল ভাষা ও রবিবারের পরিবর্তে শুক্রবার ছুটি চালু করেন।

১৯৭৩ সালে বেলুচিস্তানে আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির সরকার ভেঙে দেয় ভুট্টো। প্রতিবাদে সিমান্ত প্রদেশের উজিরে আলার পদ থেকে পদত্যাগ করেন মুফতী মাহমুদ। ভুট্টো মুফতী মাহমুদকে বলেন, আপনি ইমাম সাহেব মানুষ, আপনার সাথে কিসের বিরোধ। যতদিন মন চায় আপনি সরকার চালিয়ে যান। লোভও দেখান ভুট্টো। নীতির ব্যাপারে বরাবরের মতো আপসহীন মুফতী মাহমুদ ভুট্টোর প্রস্তাবে রাজি হননি।

মুফতী মাহমুদকে বিব্রত করার জন্য পিপলস পার্টির নারী সংসদ সদস্যরা একবার পার্লামেন্টে বোরকা পরে আসেন। মুফতী মাহমুদ পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে বললেন, মাননীয় স্পিকার আলহামদু লিল্লাহ আমাদের নারী সংসদ সদস্যরা বুঝতে পেরেছে যে, পরপুরুষের সামনে ইসলামী বিধান মতে পর্দা করা জরুরী। জবাবে সরকারী দলের সংসদ সদস্যরা মজা করে বলতে গাললেন, মহিলা সদস্যরা তো শুধু আপনার কাছ থেকে পর্দা করতেছে। (অর্থাৎ তারা আপনাকে দেখানোর জন্য পর্দা করতেছে। আসলে তারা পর্দা করে না।) জবাবে মুফতী মাহমুদ বলেন, পর্দা করা হয় পুরুষের সামনে। হয়তো পুরো এসেম্বেলিতে নারীরা আমাকে ছাড়া আর কাওকে পুরুষ মনে করে না! জবাব শুনে সরকারী দলের সদস্যরা থ হয়ে যান।

সফল রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের পরেও তিনি সন্তুষ্ট ছিলেন না। মুফতী মাহমুদ আফসোস করে বলতেন, আমি ছিলাম হাদীসের মসনদের মানুষ। আমাকে এমন পার্লামেন্টে গিয়ে বসতে হয়, যেখানে নারী সংসদ সদস্যরা ফিল্মের নায়িকাদের মতো সেজেগুজে আসে। এটা আমার জন্য বেশ কষ্টকর। আমি চিন্তা করতাম, আল্লাহ আমাকে কেন এই শাস্তি দিচ্ছেন। তবে যখন পার্লামেন্টে আমাদের চেষ্টার কারণে কাদিয়ানীদের কাফের ঘোষণা করা হলো, তখন আমার মনে হলো,আল্লাহ মনে হয় এজন্যই আমাকে এই পার্লামেন্টে পাঠিয়েছেন।

১৯৭৩ সালে যখন কাদিয়ানীদের অমুসলিম ঘোষণার দাবি উঠে, তখন মাঠের আন্দলোনের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন মাওলানা ইউসুফ বান্নুরী রহ. আর পার্লামেন্টে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন মুফতী মাহমুদ রহ.।

মাঠে হজরত বান্নুরীর নেতৃত্বে প্রবল আন্দলোন ও পার্লামেন্টে মুফতী মাহমুদ এবং বেরলভী আলেম মাওলানা শাহ আহমদ নুরানীর চেষ্টাতেই পাকিস্তানে রাষ্ট্রীয় ভাবে কাদিয়ানীদের অমুসলিম ঘোষণা সম্ভব হয়।

এছাড়াও পাকিস্তান যে এখন অফিসিয়াল ইসলামি রাষ্ট্র, এর পিছনেও বড় অবদান ছিলো মুফতী মাহমুদের। ১৯৭২ সালে পাকিস্তানের সংবিধান প্রণয়ন কমিটির সদস্য ছিলেন মুফতী মাহমুদ ও বেরলভী আলেম মাওলানা শাহ আহমদ নুরানী। পাকিস্তানের সংবিধানে যতগুলো ইসলামি ধারা আছে, তার সবগুলোই এই দুই আলেমের অবদান। বিশেষ করে মুফতী মাহমুদ যদি তখন ভূমিকা না রাখতেন, তাহলে পাকিস্তানের সংবিধানেও সেকুলারিজম ঢুকে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিলো। কারণ তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টো ছিলেন আদতে সেকুলার।

ভুট্টো ঘোষণা দিয়ে মদের আসর বসাতেন৷ এর প্রতিবাদে মাঠে নামেন মুফতী মাহমুদ। ফলস্বরূপ তাকে গ্রেপ্তার করে ভুট্টো সরকার। তিনি জীবনে অনেকবার গ্রেফতার হয়ে জেল খেটেছেন। প্রথম গ্রেপ্তার হোন বৃটিশ আমলে। পরবর্তীতে আইয়ুব, ভুট্টো ও জিয়ার আমলেও গ্রেফতার করা হয় তাকে।

মুফতী মাহমুদ ঐক্যের প্রতীক ছিলেন। ভুট্টোর বিরুদ্ধে ১৯৭৭ সালে বিরোধী দলগুলো ঐক্যবদ্ধ হয়ে জোট গঠন করে। নাম দেওয়া হয় পাকিস্তান কওমী ইত্তেহাদ (পাকিস্তান ন্যাশনাল এলায়েন্স-পিএনএ)। এর প্রধান করা হয় মুফতী মাহমুদকে।

কওমী ইত্তেহাদের অন্য নেতারা ছিলেন, জামায়াতে ইসলামীর আমীর মাওলানা আবুল আ’লা মওদুদী, জমিয়তে উলামা পাকিস্তান (বেরলভী উলামাদের দল) -এর আমীর মাওলানা শাহ আহমদ নুরানী, জামায়াতে আলিয়ায়ে মুজা*হিদীনের সভাপতি জেনারেল আমীর আব্দুল্লাহ খান নিয়াজী (জেনারেল নিয়াজী), মুসলিম লীগের খান আব্দুল কাইয়ুম খান, পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক পার্টির সভাপতি নওয়াবজাদা নাসরুল্লাহ খান, তেহরিকে ইশতিকলালের সভাপতি আসগর খান, মুসলিম লীগের চৌধুরী জহুর ইলাহী, আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির আবদুল ওয়ালী খান, মুসলিম লীগের পীর পাগারা প্রমুখ।

এসময় মুফতী মাহমুদসহ কওমী ইত্তেহাদের নেতাদের ইহু@#দীদের সাথে তুলনা করতো ভুট্টোর দল পিপলস পার্টি। ভুট্টোর দরবারী মোল্লা মাওলানা কাউসার নিয়াজী (যাকে মাওলানা হুইস্কি বলা হতো) প্রকাশ্য জনসভায় কওমী ইত্তেহাদের নেতাদের ইহু@#৳দী নেতাদের সাথে তুলনা করতো।

১৯৭৭ সালের নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির মাধ্যমে বিজয় হয় ভুট্টোর দল পাকিস্তান পিপলস পার্টি। প্রতিবাদে আন্দলোনে নামে কওমী ইত্তেহাদ বা ন্যাশনাল এলায়েন্স। ধীরে ধীরে এই আন্দলোন ভয়াবহ রূপ নেয়। এক সময় এটি তেহরিকে নেজামে মুস্তফা (সাঃ) আন্দলোনে পরিনত হয়। ফলে সেনাপ্রধান জেনারেল জিয়াউল হকের নেতৃত্বে সেনাঅভ্যুত্থান ঘটে। ভুট্টোকে ক্ষমতাচুত্য করে গ্রেপ্তার করা হয়। জেনারেল জিয়ার আমলে পরবর্তীতে ভুট্টোকে নওয়াব মুহাম্মাদ আহমদ খান কসুরীর হত্যার অভিযোগে ফাঁসি দেওয়া হয়।

মুফতী মাহমুদ জেনারেল জিয়ার আমলেও আন্দলোন চালিয়ে গেছেন। জেলও খেটেছেন।

মুফতী মাহমুদ রহ. আজীবন নীতির বিষয়ে আপোষহীন থেকেছেন। দেশভাগের বিরুদ্ধে ছিলেন। নারী নেতৃত্বের বিষয় তিনি কখনোই আপোষ করেননি। ভুট্টোর দেওয়া ক্ষমতার লোভ তাকে স্পর্শ করেনি। স্বল্প সময়ের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতা হাতে পেয়ে সুশাসনের নজির স্থাপন করেছেন। পাকিস্তানের সংবিধানকে ইসলামীকরণ করেছেন। কাদিয়ানীদের অমুসলিম ঘোষণার পিছনে অন্যতম প্রধান ভূমিকা পালন করেছেন। ডান-বাম, জামায়াত-বেরলভীদের নিয়ে গঠিত জোটের নেতৃত্ব দিয়েছেন।

এতো কিছুর মধ্যে তিনি হাদীসের মসনদ থেকে দূরে ছিলেন না। আমৃত্যু তিনি মুলতানের জামিয়া কাসেমুল উলুমের শাইখুল হাদীস ছিলেন। পুরো জীবনে প্রায় ২৫ হাজার ফতোয়া দিয়েছেন তিনি।

মুফতী মাহমুদ ২ বিয়ে করেছেন। প্রথম স্ত্রীকে বিয়ে করেন ১৯৪৬ সালে। প্রথম স্ত্রীর ঘরে দুই পুত্র সন্তান মাওলানা ফজলুর রহমান ও মাওলানা আতাউর রহমান। দ্বিতীয় স্ত্রীকে বিয়ে করেন ১৯৬০ সালে। এই সংসারে লুতফুর রহমান, জিয়াউর রহমান ও উবায়দুর রহমান নামে ৩ ছেলের জন্ম হয়। এছাড়াও তাঁর ৩ কন্যা রয়েছে।

১৯৮০ সালে হজ্বের উদ্দেশ্য রওয়ানা হয়ে করাচী আসেন মুফতী মাহমুদ। এসময় করাচীর জামিয়া বান্নুরীয় অবস্থানকালে তিনি হার্টঅ্যাটাক করে ইন্তেকাল করেন।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img