রবিবার, মে ১৯, ২০২৪

তুরস্ক তালেবানের সাথে শীঘ্রই আলোচনায় বসবে : এরদোগান

কাবুল বিমানবন্দর নামে পরিচিত যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানের প্রধান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ইস্যুতে তালেবানের সাথে বৈঠকে বসার চিন্তাভাবনা করছে তুরস্ক।

সোমবার (১৯ জুলাই) এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান একথা বলেন।

এরদোগান বলেন, আফগানিস্তান থেকে পরিপূর্ণরূপে মার্কিন সেনাদের প্রস্থানের পর আঙ্কারা কর্তৃক কাবুল বিমানবন্দর পরিচালনার ক্ষেত্রে তালেবানের অস্বীকৃতির বিষয়ে তাদের সাথে কথা বলবে তুরস্ক।

তিনি বলেন, ইন শা-আল্লাহ, বৈঠকে বসার পর দেখা যাবে যে, তাদের সাথে আমাদের কী ধরণের (ফলপ্রসূ নাকি ব্যর্থ) আলোচনা হয়েছে। আর ওই আলোচনা আমাদের কোথায় নিয়ে যায়।

আফগান প্রবেশের একমাত্র আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এবং প্রধান প্রধান অন্যান্য পরিবহন রুটগুলোর নিরাপত্তা কীভাবে নিশ্চিত করা হবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের এমন প্রশ্নে কাবুল বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ভার নিজেদের কাধে তুলে নেওয়ার প্রস্তাব দেয় তুরস্ক।

জুনের ন্যাটো সম্মেলনের সাইডলাইনে তুর্কী প্রেসিডেন্ট এরদোগান এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মধ্যকার প্রথম মুখোমুখি বৈঠকে এই ইস্যুতে আলোচনাও করেছিলেন তারা।

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানে তুরস্কের শতশত সেনার অবস্থান থাকলেও তাদের সরকারি কর্মকর্তারা দাবি করে আসছেন যে, ওই সেনারা যুদ্ধক্ষেত্রের সামরিক সদস্য নয় বরং বেসামরিক সদস্য।

এর আগে গত সপ্তাহে তুরস্কের বিমানবন্দর পরিচালনার প্রস্তাবকে নিন্দনীয় ও অগ্রহণযোগ্য বলে উল্লেখ করেছিলো তালেবান।

তারা হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছিলো, যেকোনো অজুহাতে যেকোনো দেশের আফগানিস্তানে অবস্থান করাকে আমরা দখলদারিত্ব বলে বিবেচনা করবো। এক্ষেত্রে তাদের সাথেও দখলদার বিরোধী আচরণ করা হবে।

জানা যায়, মার্কিন ও ন্যাটো সেনারা দেশটি থেকে সরে আসার পর বহির্বিশ্বে আফগান থেকে কূটনৈতিক মিশনগুলো পরিচালনার ক্ষেত্রে ওই বিমানবন্দরটির নিরাপত্তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, বিমানবন্দরটির কৌশলগত অবস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জায়গায়। আফগান রাষ্ট্রপতি ভবন এবং বিদেশী কূটনৈতিক মিশনগুলোর কাছাকাছি অবস্থান হওয়ায় জরুরি পরিস্থিতিতে নিরাপত্তার জন্য কূটনীতিকদের সরিয়ে নেওয়ার একমাত্র জায়গাও সেটি।

আফগানিস্তানে কূটনৈতিক মিশনগুলোর কার্যক্রম অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে একটি নিরাপদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসেবে কাবুল বিমানবন্দরের কার্যক্রম নিরবিচ্ছিন্ন রাখার ও অবাধ নিরাপত্তা নিশ্চিতের যে টাস্ক রয়েছে তার দায়িত্বভার ভাগাভাগির আহবান জানিয়েছে তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

সূত্র : ডেইলি সাবাহ, টিআরটি ওয়ার্ল্ড

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img