বুধবার, জুন ১৯, ২০২৪

আবু ওবায়দার ঘোষণা, ইসরাইলের বিরুদ্ধে দীর্ঘ যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হামাস

ফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের সামরিক শাখা আল-কাসসাম ব্রিগেড বলেছে, তারা ইহুদিবাদী ইসরাইলের বিরুদ্ধে দীর্ঘযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। ঘনবসতিপূর্ণ রাফাহ শহরে ইসরাইলি আগ্রাসন তাদেরকে এ ধরনের যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিতে বাধ্য করেছে।

গতকাল (শুক্রবার) এক ভিডিও বার্তায় আল-কাসসাম মুখপাত্র আবু ওবায়দা একথা বলেন। তিনি বলেন, “আমাদের জনগণের বিরুদ্ধে ইসরাইলি আগ্রাসন বন্ধ করার বিষয়ে পরিপূর্ণ ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আমরা শত্রুর বিরুদ্ধে দীর্ঘস্থায়ী যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত। আমরা তাদের একটি জলাভূমিতে টেনে নিয়ে যাচ্ছি যেখানে তারা তাদের সৈন্যদের মৃত্যু এবং তাদের অফিসারদের বন্দী করা ছাড়া আর কিছুই পাবে না। এর কারণ হচ্ছে আমরা এই ভূখণ্ডের বাসিন্দা এবং এর আসল মালিক আমরা।”

আবু ওবায়দা বলেন, “গত ১০ দিনে ইহুদিবাদী ইসরাইলের ট্যাংক, সৈন্যবাহী গাড়ি এবং বুলডোজার সহ ১০০টি সামরিক যানকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছি। তারা বড় রকমের হতাহতের মুখে পড়েছে। হামাস যোদ্ধারা টানেল থেকে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে, রকেট ও মর্টারের গোলা ছুঁড়ে এবং স্নাইপারের মাধ্যমে ইসরাইলি সেনাদের হতাহত করেছে। কিন্তু গাজায় ইসরাইল সেনাদের ক্ষয়ক্ষতির প্রকৃত তথ্য দখলদার বাহিনী প্রকাশ করে না।”

আবু ওবায়দা বলেন, হামাস যোদ্ধারা রাফাহ শহরের পূর্বাঞ্চলে ইহুদিবাদী সেনাদের মারাত্মক ক্ষয়ক্ষতির মুখে ফেলেছে। রাফাহ, যেইতুন এবং জাবালিয়া শরণার্থী শিবিরে আগ্রাসন চালিয়ে ইহুদিবাদী ইসরাইল বড় রকমের ভুল করেছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। আবু ওবায়দা বলেন, ইসরাইলের সেনারা ফিলিস্তিনের জন্য এখন সহজ লক্ষ্যবস্তু।

আবু ওবায়দা আরো বলেন, “তারা ভেবেছিল সাত মাস ধরে গাজা ভূখণ্ডের সবকিছু জ্বালিয়ে দিলে সামান্য প্রতিরোধের মুখে পড়বে কিন্তু তারা এখন বিস্মিত হচ্ছে যে, তারা দোজখের মধ্যে পড়েছে। গাজায় তারা আগের চেয়ে বেশি প্রতিরোধের মুখে পড়েছে।”

পার্সটুডে

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img