মঙ্গলবার, জুন ২৫, ২০২৪

ভারতের মাথা হেট করেছে লোকরঞ্জনবাদ, হিন্দুত্ববাদ ও আধিপত্যবাদী উচ্চাকাঙ্ক্ষা

সম্প্রতি ভারতের সেনাবাহিনী ‘বড় কিছু’ করে ফেলেছে। তারা শুধু প্রতিবেশি দেশগুলোতেই হানা দেয়নি, ‘সিংহের খাঁচায় ঢুকে’ পড়ার সাহস দেখিয়ে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীর একটি গাড়িকেও টার্গেট করেছে।

পাকিস্তান আইএসপিআর এক বিবৃতিতে জানায়, ভারতীয় সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রণ রেখার (এলওসি) চিরিকোট সেক্টরে বিনা উষ্কানিতে গুলি বর্ষণ করে এবং জাতিসংঘের একটি গাড়িকে টার্গেট করে। ওই গাড়িতে দুজন সামরিক পর্যবেক্ষক ছিলেন। তারা পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন নিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে কথাবার্তা বলতে সেখানে ছিলেন। গাড়িটি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

পাকিস্তান সেনাবাহিনী সময় মতো হস্তক্ষেপ করায় জাতিসংঘ পর্যবেক্ষকরা রক্ষা পান এবং তাদেরকে নিরাপদে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের রাওয়ালকোট এলাকায় নিরাপদে সরিয়ে আনা হয়।

রাশিয়ান মিডিয়া জানায়, ভারতীয় সেনারা হঠাৎ করেই কাশ্মিরে জাতিসংঘ গাড়িবহরের উপর হামলা চালায় এবং গুলি সরাসরি দুই জাতিসংঘ পর্যবেক্ষকের গাড়িতেগিয়ে লাগে। সৌভগ্যবশত সাথে থাকা পাকিস্তানি সেনারা পাল্টা জবাব দেয় এবং জাতিসংঘ পর্যবেক্ষকদের নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায়।

চলতি শতকের শুরুর দিকে আমি আফ্রিকাতে শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেই। সব জাতিসংঘ যানে স্পষ্টভাবে চিহ্ন দেয়া থাকে। ভারতীয় সেনাদের এগুলো দেখতে না পাওয়ার কোনই কারণ নেই। ভারতীয় সেনাদের যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে কথা বলতে গাড়িতে করে যাচ্ছিলেন জাতিসংঘ শান্তিরক্ষীরা। স্বাভাবিকভাবেই ভারত এটা বন্ধ করতে চেয়েছে। ভারতীয় সেনাদের অপরাধ যেন তারা দেখতে না পারেন সেই চেষ্টা করেছে ভারতীয় সেনারা।

ইচ্ছা করে জাতিসংঘ যানে হামলা করে ভারত বুঝিয়ে দিয়েছে যে তারা আন্তর্জাতিক রীতিনীতির তোয়াক্কা করে না।

২২ ডিসেম্বর ভারতীয় সেনারা হঠাৎ করেই এলওসি’র কাছে বেসামরিক জনগণের উপর মর্টার ও ভারি অস্ত্রের গোলাবর্ষণ শুরু করে। এতে ৫০ বছরের এক বৃদ্ধা নিহত ও আরো তিনজন আহত হয়। আহতদের মধ্যে ৪ বছরের একটি শিশুও রয়েছে। ভারত ৩,০০০-এর বেশি বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে এবং এতে ২৭৬ জন বেসামরিক পাকিস্তানি নিহত হয়।

ভারতীয় সেনাদের এই পাগলামি এ বিপজ্জনক বার্তা পাঠাচ্ছে। আর সেটা হলো নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ হারাচ্ছে ভারত। নরেন্দ্র মোদির প্রশাসনের আমালে ক্রমবর্ধমান লোকরঞ্জনবাদ, হিন্দুত্ববাদী মানসিকতা ও আধিপত্যবাদি উচ্চাকাঙ্ক্ষা ভারতের মাথা হেট করে ফেলেছে।

লেখক: চেং শিজহং । সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর

(চেং শিঝোং সাউথওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি অব পলিটিক্যাল সায়েন্স অ্যাণ্ড ল’-এর ভিজিটিং প্রফেসর, চারহার ইন্সটিটিউটের সিনিয়র ফেলো, দক্ষিণ এশিয়া দেশগুলোর সাবেক প্রতিরক্ষা অ্যাটাশে, এবং চায়না শিল্ড কনসাল্টিং সার্ভিস কো. লিমিটেডের নির্বাহী উপদেষ্টা।)

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img