শুক্রবার, মার্চ ১, ২০২৪

বায়তুল মোকাররমে মোদি বিরোধী আন্দোলন; হেফাজতের মহাসচিবসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ভারতের বিজেপি সরকারের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে গত ২৬ মার্চ জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে তাওহীদি জনতার সাথে সরকার দলীয় নেতাকর্মী ও পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনায় হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা নুরুল ইসলাম এবং যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হকসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়ের করেছে রাজধানীর ওয়ারীর বাসিন্দা খন্দকার আরিফ-উজ-জামান নামের এক ব্যক্তি। ওই ব্যক্তি হামলার শিকার হয়ে আহত হয়েছেন দাবি করে এ মামলা দায়ের করে।

সোমবার (৫ এপ্রিল) রাতে রাজধানীর পল্টন মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

পল্টন মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বক্কর সিদ্দিক বিষয়টি সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ওয়ারীর একজন বাসিন্দা এ মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং ৮।

মামলার আসামিরা হলেন, হেফাজতের মহাসচিব আল্লামা নুরুল ইসলাম, নায়েবে আমীর মাওলানা সাজিদুর রহমান, নায়েবে আমীর মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়া, হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সভাপতি মাওলানা জুনায়েদ আল হাবিব, হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হক, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা লোকমান হাকিম, যুগ্ম-মহাসিচব মাওলানা নাসির উদ্দিন মনির, সহকারী মহাসচিব মাওলানা জসিম উদ্দিন, মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী, অর্থ সম্পাদক মুফতী মনির হোসাইন কাসেমী, সহকারী দাওয়াহ সম্পাদক মাওলানা মুশতাকুন্নবী, প্রচার সম্পাদক মাওলানা যাকারিয়া নোমান ফয়েজী, মাওলানা হাবিবুর রহমান, মাওলানা মাসুদুল করিম, মাওলানা ফয়সাল আহমেদ, মাওলানা হাফেজ জোবারের এবং মাওলানা হাফেজ তৈয়ব।

ওয়ারীর বাসিন্দা খন্দকার আরিফ-উজ-জামান নামের ওই ব্যক্তি নিজেকে একজন ব্যবসায়ী দাবি করেন। থানায় হেফাজত নেতাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলার অভিযোগপত্রে তিনি দাবি করেন যে, গত ২৬ মার্চ দুপুরে তিনি বায়তুল মোকাররম মসজিদে সাড়ে ১২টার দিকে জুম’আর নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন। এদিন তিনি নামাজ শেষে মসজিদ থেকে বের হয়ে উত্তর গেটের সিঁড়িতে কয়েক হাজার জামাত-শিবির-বিএনপি-হেফাজতের ‘উগ্র মৌলবাদী’ ব্যক্তির বিশাল জমায়েত দেখতে পান বলে তিনি দাবি করেন।

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হকের নেতৃত্বে শীর্ষস্থানীয় ‘জামাত-শিবির-বিএনপি-হেফাজত নেতারা’ ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ‘গোপন বৈঠকে’ মিলিত হয়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে দেশি-বিদেশি সরকার প্রধানদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত কর্মসূচিকে বানচাল করা এবং ঢাকাসহ সারা দেশে ব্যাপক নৈরাজ্য সৃষ্টির পরিকল্পনা ও ষড়যন্ত্র করেন বলে তিনি দাবি করেন। সেখানে রাষ্ট্র ও সরকারবিরোধী নানান স্লোগান দেওয়া হয় বলেও তিনি দাবি করেন।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img