মঙ্গলবার, মে ২৪, ২০২২

সমালোচকদের উদ্দেশ্যে চ্যালেঞ্জ ছুড়লেন মাওলানা মামুনুল হক

গত শনিবার (৩ এপ্রিল) বিকেল ৩টায় নারায়গঞ্জের সোনারগাঁও রিসোর্টে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ-এর যুগ্ম মহাসচিব ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক এবং তাঁর স্ত্রীকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে হেনস্তা করে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মাওলানা মামুনুল হক ও তার স্ত্রীকে উদ্ধার করে। এর আগে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মাওলানা মামনুল হককে নানা রকম অপবাদ দিয়ে লাঞ্ছিত করে।

তখকার একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, সোনারগাঁও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম নান্নু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সোহাগ রনি, পৌরসভা ছাত্রলীগ নেতা মাহবুবুর রহমান রবীনসহ স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতারা মাওলানা মামনুল হককে অবরুদ্ধ করার সময় উপস্থিত ছিলেন।

মাওলানা মামুনুল হক ও তার স্ত্রীর এ ঘটনা নিয়ে রোববার (৪ এপ্রিল) সংসদে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটা রিসোর্টে ধরা পড়েছেন হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব। তিনি ধরা পড়লেন এবং সেটা ঢাকার জন্য নানা রকম চেষ্টা। পার্লারে কাজ করে এক মহিলা তাকে বৌ হিসাবে পরিচয় দেন, আবার নিজের বৌ এর কাছে বলে যে অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আমি বলে ফেলেছি। যারা ইসলাম ধর্মে বিশ্বাস করে এরকম অসত্য কথা বলতে পারে? তারা তো বলতে পারে না। এরা কি ধর্ম পালন করে? মানুষকে কি ধর্ম শেখাবে?’

তিনি বলেন, ‘হেফাজতের যারা সদস্য তাদেরকেও অনুরোধ করব-একটু বুঝে নিন কেমন নেতৃত্ব আপনাদের। আগুন লাগিয়ে জ্বালাও পোড়ায় করে বিনোদন করতে গেলেন একটা রিসোর্টে তাও একজন সুন্দরী মহিলা নিয়ে। এটাই তো বাস্তবতা। অর্থাৎ এরা ইসলাম ধর্মের নামে কলঙ্ক। ইসলাম ধর্মকে তারা ছোট করে দিচ্ছেন।’

নিজের দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়ে বারবার স্পষ্ট করার পরও নানা সমালোচলনার প্রেক্ষিতে সমালোচকদের উদ্দেশ্যে চ্যালেঞ্জ চুড়লেন মাওলানা মামুনুল হক। নিজস্ব ফেসবুক পেজে লাইভে এসে তিনি বলেন, আমি তাদের সকলকে আহ্বান জানাব, তারাও আমার মতো এরূপ বক্তব্য দিক, যদি তাদের সৎ সাহস থাকে। তারা এ কথা বলুক- যদি আমি মিথ্যাবাদী হয়ে থাকি তো আমার ওপর খোদার গজব নাজিল হোক, আর তারা যদি মিথ্যাবাদী হয়ে থাকে তাদের ওপর যেন আল্লাহর গজব নাজিল হয়। এবং তাদের বংশ যেন নির্বংশ হয়ে যায়। তাহলে তাদের ব্যাপারে আমার আর কোনো অভিযোগ থাকবে না।

মাওলানা মামুনুল হক বলেন, আমি যদি মিথ্যা তথ্য দিয়ে থাকি তবে কুরআনের আয়াত অনুযায়ী, আমি যেন ধ্বংস হয়ে যাই। আমার ওপর যেন আল্লাহর গজব নাজিল হয়। পক্ষান্তরে যারা আমার ব্যাপারে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন, মিথ্যা প্রচার করছেন, আমার স্ত্রীর সম্পর্কে অসত্য ও ভুল তথ্য দিয়েছেন, আমার চরিত্রের উপর কালিমা লেপন করেছেন, আমি আল্লাহর কাছে ফরিয়াদ করি, ও আল্লাহ তুমি তাদের ওপর তোমার গজব নাজিল কর। ও আল্লাহ তুমি তাদের ওপর তোমার গজব নাজিল কর। ও আল্লাহ তুমি তাদের ওপর তোমার গজব নাজিল কর।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img