শনিবার, জুলাই ২৪, ২০২১

ইসরাইলের অপরাধের স্বীকৃতি দিতেই দখলকৃত ফিলিস্তিন সফর করেছে পম্পেও: তুরস্ক

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল কর্তৃক দখলকৃত ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সফরের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে তুরস্ক।

বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) মাইক পম্পেও দখলকৃত ফিলিস্তিন সফর করায় তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিকভাবে নিন্দা জানিয়ে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে।

বিবৃতিতে বলা হয়, মাইক পম্পেও ইসরাইল কর্তৃক দখলকৃত ফিলিস্তিনের ভূমিতে সফরের একমাত্র উদ্দেশ্য হলো স্বাধীন ফিলিস্তিনে ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের দখলদারিত্ব ও অবৈধ কর্মকাণ্ডকে স্বীকৃতি দেওয়া। তাই আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

তাছাড়া, এটি একটি গুরুতর অপরাধ! কেনোনা, আন্তর্জাতিক আইনের বিভিন্ন ধারা অনুযায়ী এই সফরটি সম্পূর্ণ বে-আইনী।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, এই সফরটি রেজুলেশন ২৩৩৪ এরও পরিপন্থী, যা কিনা জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ কর্তৃক ২০১৬ সালে পাশ হয়। হাস্যকর বিষয় হলো, সেই আইন লঙ্ঘনকারী ব্যক্তিটি হলেন এমন এক দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, যারা কিনা আইন পাশ করা সেই নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য!

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিবৃতিতে আরো বলা হয়, এই ধরনের দায়িত্বজ্ঞানহীন এবং অনৈতিক সফর ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংঘাত সমাধানে জাতিসংঘের প্রস্তাবনা অনুযায়ী গৃহীত আন্তর্জাতিক আইন, ফিলিস্তিনি জনগণের অধিকার ও স্বাধীনতার ক্ষতি করবে।

পম্পেওর সফরকে আবারো ধিক্কার জানিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়, তুরস্ক সর্বদা তাদের ফিলিস্তিনি ভাইবোনদের ন্যায্য ও আন্তর্জাতিক আইন সংশ্লিষ্ট অধিকার রক্ষায় নিজেদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে।

উল্লেখ্য, সাধারণ ও আন্তর্জাতিক আইনের তোয়াক্কা না করে অনবরত অপরাধ করে যাওয়া ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেওয়ার পর আমেরিকার উচ্চ পদস্থ কোনো মন্ত্রীর এটাই প্রথম দখলকৃত ফিলিস্তিন সফর।

সূত্র: আনাদোলু।

spot_imgspot_img

আরও