ফ্রান্সে মহানবী (সা.)-কে অবমাননার প্রতিবাদে ‘ইত্তেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়া’র বিক্ষোভ

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবীয়া বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ও জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহফুজুল হক বলেছেন, ফ্রান্স রাষ্ট্রীয়ভাবে মহানবী মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করে গোটা বিশ্বের মুসলমানদের অন্তরে আগুন জালিয়েছে। এ আগুন নিবাতে হলে ফ্রান্সকে অবিলম্বে ক্ষমা চাইতে হবে। যারা মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর অবমাননা করবে তাদের সাথে মুসলমানদের কোনো সম্পর্ক নেই, থাকতে পারে না।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর মুহাম্মদপুরস্থ টাউন হল চৌরাস্তায় ‘ইত্তেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়া মুহাম্মদপুরের উদ্যোগে ফ্রান্সে মহানবী মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর অবমাননার প্রতিবাদে আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব সমাবেশে প্রধান সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশনে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব পাশ করতে হবে। বাংলাদেশের তাওহিদী জনতার ঈমানের দাবীর সাথে একাত্বতা প্রদর্শন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাবেন এটা দেশের মানুষের প্রত্যাশা।

তিনি বলেন, ফ্রান্সের পণ্য ঐক্যবদ্ধভাবে বর্জন করতে হবে। কোনো ব্যবসায়ী ফ্রান্সের কোনো পণ্য আমদানী করবেন না। রাসূলের ইজ্জত ও সম্মান রক্ষার্থে ফ্রান্সের সঙ্গে সকল ধরনের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন ও অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করতে হবে। নবীর ইজ্জত রক্ষার্থে প্রয়োজনে প্রতিটি মুসলমানকে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দেওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।

বায়তুল জান্নাত মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা ওমর ফারুকের পরচিালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জামিয়া মুহাম্মাদিয়া আরাবিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা আবুল কালাম, জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়ার মুহাদ্দিস মাওলানা মামুনুল হক, জামিয়া ইসলামিয়া লালমাটিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা ফারুক আহমাদ, জামিয়া ইসলামিয়া বায়তুল ফালাহ এর প্রিন্সিপাল মাওলানা মুহাম্মাদ তালহা, ভাইস প্রিন্সিপাল ও শিক্ষাসচিব মাওলানা
জালালুদ্দীন আহমদ, জামিয়া ওয়াহিদিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা যোবায়ের, মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন, জামিয়া মুহাম্মাদিয়া আরাবিয়ার ভাইস প্রিন্সিপাল মাওলানা মুহাম্মাদ ফয়সাল, বাইতুল আমান আদাবরহ এর প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহমুদুর রহমান, আদাবর আহসানুল উলূম মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আমির হোসেন, ফাতেমাতুজ জোহরা মাদরাসার মুহামিম মাওলানা সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *