মঙ্গলবার, জুন ২৮, ২০২২

ইসরাইলী বিমান হামলায় প্রতিবন্ধী, গর্ভবতী নারী ও শিশু শহীদ

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


দখলকৃত ফিলিস্তিনের গাজায় একটি পারিবারিক ঘরকে লক্ষ্য করে হামলা চালায় ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল।

হামলায় ওই ফিলিস্তিনি পরিবারের প্রতিবন্ধী কর্তা, তার গর্ভবতী স্ত্রী ও ৩ বছর বয়সী ছোট কন্যাশিশু শহীদ হয়েছে বলে জানা যায়।

বুধবার (১৯ মে) পরিবারটির আত্মীয়-স্বজন ও গাজার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এই হৃদয়বিদারক ঘটনার কথা প্রকাশ করে।

দেশটির উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইউসুফ আবু আল-রিশ উক্ত ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, নিষ্পাপ লোকজনকে তাদের ঘরে হত্যা করা মারাত্মক অপরাধ। আর কত বেশি লাশ পড়লে বিশ্বের বিবেক বৃদ্ধি পাবে?

বুধবারের এই হৃদয়বিদারক ঘটনার ব্যাপারে এখনো মুখ খুলেনি বর্বর ও উগ্র ইহুদিদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল। যদিও তাদের সন্ত্রাসী সেনারা দাবী করে থাকে যে, বেসামরিক লোকজনকে হত্যা ও জনসাধারণের ক্ষয়ক্ষতি এড়িয়ে তারা শুধু সামরিক ও সন্ত্রাসী স্থাপনাগুলোকে টার্গেট করে থাকে এবং গাজার বেসামরিক ফিলিস্তিনি নিহত ও জনসাধারণের ক্ষয়ক্ষতির ঘটনাগুলো হামাসের লক্ষ্যচ্যুত রকেটগুলোর কারণে হয়ে থাকে!

জানা যায়, ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের বর্বরোচিত বোমা হামলায় নিহত পরিবারটির নাম হলো সালহা পরিবার।

নিহত হওয়া ফিলিস্তিনি প্রতিবন্ধী আয়াদ সালহার ভাই ওমর সালহা (৩১) এর বক্তব্য থেকে জানা যায়, তার ভাই আয়াদ সালহা (৩৩), গর্ভবতী স্ত্রী আমানী (৩৩) ও তাদের ৩ বছর বয়সী কন্যা শিশু নাগাম দুপুরের খাবার খাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলো এমন সময় হঠাৎ দিয়ারুল বালাহর সমুদ্রতীরবর্তী তাদের ফ্ল্যাটের সম্মুখভাগে একটি মিসাইল আঘাত হানে এবং ফ্ল্যাটটিকে ধ্বংসস্তুপে পরিণত করে।

বিস্ফোরণ পরবর্তী অবস্থা বর্ণনা করতে গিয়ে ওমর সালহা বলেন, বিস্ফোরণের কারণে তার ভাইয়ের ফ্ল্যাটের ফ্যামিলি লিভিং রুমটি একেবারে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে গিয়েছিলো, বাচ্চাদের একটি লাল রঙের সাইকেল দুমড়েমুচড়ে ধ্বংসস্তুপের নিচে পড়েছিলো এবং ধ্বংসস্তুপের নিচে নড়বড়ে হয়ে কিছু অংশ খুলে পড়ে থাকা একটি ফ্রিজও ছিলো যেখানে দেখা যায় এক গামলা লাল টকটকে তাজা টমেটো যা ধুলায় ধূসরিত।

এএফপিকে সাক্ষাতকার দানকালে মর্গে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছিলেন, তার ভাই আয়াদের কী দোষ ছিলো? তিনি তো কোনো সশস্ত্র যোদ্ধা ছিলেন না! ১৪ বছর যাবত নিজ পায়ে হাটতেও পারেন না বরং হুইলচেয়ারে বসে দিন কাটাতেন।

মিসাইল হামলার সময় ঘটনাস্থলে ছিলেন না উল্লেখ করে প্রতিবেশীদের সাথে দুপুরের খাবারের প্রস্তুতি নিতে থাকা ওমর সালহা আরো ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আয়াদের নিতান্তই ছোট কন্যাশিশু কী আদৌ কিছু করেছিলো কিংবা তার গর্ভবতী স্ত্রী কী কোনো অপরাধ করেছিলো?

উল্লেখ্য, ১০ মে থেকে শুরু হওয়া ইসরাইলী বিমান হামলায় ৬৪ জন শিশু ও ৩৭ জন নারীসহ এখন পর্যন্ত মোট ২২৭ জন ফিলিস্তিনি শহীদ হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে।

সূত্র: আল জাজিরা।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img