বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪

আয়াসোফিয়াকে মসজিদে রূপান্তর করা নিয়ে জাতিসংঘের সমালোচনার কড়া জবাব দিল তুরস্ক

ঐতিহাসিক আয়াসোফিয়া মসজিদ নিয়ে ইউনেস্কোর অবস্থান পুরোপুরি ‘রাজনৈতিক ও পক্ষপাতপূর্ণ’ বলে অভিযোগ করেছে তুরস্ক। আয়া সোফিয়া নিয়ে সংস্থাটির মনোভাবে খুবই অবাক হয়েছে দেশটি।

জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সাংস্কৃতিক সংস্থার (ইউনেস্কো) তরফ থেকে জানানো হয়েছে, আয়াসোফিয়ার ভবিষ্যৎ নিয়ে তারা খুবই উদ্বিগ্ন।

সম্প্রতি ‘ইস্তাম্বুলের ঐতিহাসিক অঞ্চল’ শিরোনামে একটি প্রবন্ধ প্রকাশ করেছে ইউনেস্কো। সেখানেই তারা আয়াসোফিয়া নিয়ে গভীর চিন্তার কথা জানিয়েছে। কিন্তু তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, আয়াসোফিয়া নিয়ে যে ভাষা ব্যবহার করা হয়েছে, তা মেনে নেওয়া যায় না। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে এই নিবন্ধ লেখা হয়েছে।

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দাবি, মসজিদ করা হলেও এই ঐতিহাসিক ভবনের কোনো পরিবর্তন করা হয়নি। এই সিদ্ধান্তের কোনো নেতিবাচক প্রভাব ভবনের ওপর পড়েনি।

তুরস্ক সরকার জানিয়েছে, জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ তালিকায় থাকা ঐতিহাসিক ভবন নিয়ে সরকারের দায়িত্ব, অধিকার ও ক্ষমতা সম্পর্কে তারা সচেতন।

ডয়চে ভেলে জানিয়েছে, চীনে এখন ইউনেস্কোর বার্ষিক বৈঠক চলছে। তারা আয়া সোফিয়ার রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে তুরস্কের কাছ থেকে রিপোর্ট চেয়েছে।

ইউনেস্কোর কমিটি জানিয়েছে, তাদের কাছে বেশি তথ্য নেই, এ নিয়ে তাদের সঙ্গে আলোচনাও করা হয়নি। তাই তারা এই বিষয়ে তুরস্কের পরিকল্পনা জানতে চেয়েছে এবং তারা চায় আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এটা নিয়ে আলোচনা হোক।

২০২০ সালের ২৪ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে জুমআর নামাজের মাধ্যমে আয়া সোফিয়াকে পুনরায় মসজিদে রূপান্তর করা হয়।

২০২০ সালের ১০ জুলাই তুরস্কের শীর্ষ আদালত আদালত ১৯৩৪ সালে জারিকৃত ফরমান বাতিল ঘোষণা করে আয়াসোফিয়াকে মসজিদে রূপান্তরের পক্ষে রায় দেয়।

এই রায়ে ১৯৩৪ সালের ক্ষমতাসীন তুর্কী সরকারের বিতর্কিত ফরমান (আয়াসোফিয়াকে মসজিদ থেকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করণ) বাতিল বলে গণ্য করা হয়।

বিশ্বের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যবাহী আয়াসোফিয়া ষষ্ঠ শতাব্দীতে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের রাজত্বকালে নির্মিত হয়েছিল। গ্রীক অর্থোডক্স চার্চের মূলকেন্দ্র হিসাবে এই স্থাপনাটি ব্যবহৃত হয়েছিল। এবং সেখান থেকেই মুসলমানদের বিরুদ্ধে নানান ষড়যন্ত্র ও কূটচাল চালাত ততকালীন বাইজেন্টাইনরা।

১৪৫৩ সালে ইস্তাম্বুলে উসমানীয়দের বিজয়ের মাধ্যমে এটি একটি রাজকীয় মসজিদে রূপান্তরিত হয়েছিল।

১৯৩৫ সালে কামাল পাশার শাসনকালে এই মসজিদটিকে যাদুঘরে রূপান্তরিত করা হয়।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img