মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪

হামাসের প্রতিষ্ঠাতা শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনের শাহদাত বার্ষিকী

২০০৪ সালের ২২ মার্চ ইসরাইলী হামলায় শাহদাত বরন করেন মুসলিম বিশ্বের অন্যতম বিপ্লবী নেতা ও হামাসের প্রতিষ্ঠাতা শায়েখ আহমাদ ইয়াসিন। তিনি ছিলেন বিংশ শতাব্দীর ইসলামী আন্দোলনের অন্যতম প্রধান সিপাহশালার। মুসলমানদের প্রথম কিবলা আল আকসার মর্যাদা রক্ষায় আজন্ম লড়াই করা এই বিপ্লবী মহানায়ক পুরো জীবন ছিলেন হুইল চেয়ার বন্দি।

হুইল চেয়ারে বসে কিভাবে তিনি বিশ্বের মানবাধিকারের টুটি চেপে ধরা ক্ষমতাধর ইসরাইলের ভিত নড়িয়ে দিয়েছিলেন? কিভাবে তিনি গড়ে তুলেছিলেন আল আকসার জন্য প্রান উৎসর্গকারী বিপ্লবী সংগঠন হামাসকে! আসুন জানি এই মহান বিপ্লবী সম্পর্কে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯২০ সালে উসমানী খেলাফত থেকে দক্ষিণ সিরিয়াকে ছিনিয়ে নিয়ে ”Mandatory Palestine” বা ”কর্তৃত্বপ্রাপ্ত শক্তির অধীন ফিলিস্তিন” নামক অঞ্চল গঠন করে দখলদার ব্রিটিশ সাম্রাজ্য। এই অঞ্চলেই রয়েছে মুসলমানদের প্রথম কিবলা পবিত্র বাইতুল মোকাদ্দাস বা আল আকসা মসজিদ।

দখলের পর সারা বিশ্ব থেকে ইহুদীদের এনে অবৈধভাবে বসতি স্থাপনের ব্যবস্থা করে দেয় ব্রিটিশরা। অবৈধ দখলদাররা হাজার বছর ধরে বসবাস করে আসা মুসলিমদের উচ্ছেদ করার ধ্বংসলীলায় মেতে উঠে। ব্রিটিশ বাহিনীর সহযোগিতায় গ্রামের পর গ্রাম তারা দখল করে নেয়।

১৯৩৬ সালের জানুয়ারি মাসে যখন আহমাদ ইয়াসিন জন্মগ্রহণ করেন, তখনও ফিলিস্তিনের আসকালান শহরের অদূরে অবস্থিত তাদের গ্রামটি দখলমুক্ত ছিলো। আহমাদ ইয়াসিনের বাবা আব্দুল্লাহ ইয়াসিন যখন ইন্তেকাল করেন, তখন তার বয়স ছিলো মাত্র ৩ বছর। চার ভাই ও দুই বোনকে একাই মানুষ করেন মা সা’দা আল হাবেল।

১৯৪৮ সালে অবৈধভাবে ইসরাইল রাষ্ট্র ঘোষণার পর আহমাদ ইয়াসিনদের গ্রামও দখল করে নেয় হানাদাররা। পরিবারের অন্য সদস্যদের সাথে বালক আহমাদ ইয়াসিনের জায়গা হয় গাজ্জার আল শাতিঈ শরণার্থী শিবিরে।

ফিলিস্তিনের অন্যান্য শিশুদের মতো ছোট্ট আহমাদ ইয়াসিনের মনেও পরাধীনতার শিকল ভেঙ্গে স্বাধীন হওয়ার স্বপ্ন জাগে। হয়তো এজন্যই বন্ধু আব্দুল্লাহর সঙ্গে কুস্তি লড়ে নিজেকে স্বাধীনতার সেনানী রূপে তৈরি করতে চেয়েছিলেন। কুস্তি লড়তে গিয়ে এক পর্যায় মেরুদণ্ডে প্রচণ্ড আঘাত পান শিশু আহমাদ ইয়াসিন। এই আঘাতে আজীবনের জন্য পঙ্গু হয়ে যান ভবিষ্যতের এই মহান বিপ্লবী!

একদিকে পঙ্গুত্ব ও অন্যদিকে শরণার্থী শিবিরের প্রতিকূল জীবন ব্যবস্থাও আহমাদ ইয়াসিনের শিক্ষাগ্রহণের পথে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। হুইল চেয়ারকে সঙ্গী করে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের জন্য তিনি ভর্তি হোন মিশরের কায়রোতে অবস্থিত ঐতিহাসিক আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ে। কিছুকাল পড়াশুনার পর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে  তিনি ফিরে আসেন গাজ্জায়। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শেষ করতে না পারলেও শায়েখ আহমাদ ইয়াসিন নিজ চেষ্টায় পাণ্ডিত্য অর্জন করেছেন দর্শন, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, সমাজবিজ্ঞান, অর্থনীতি ও ইসলামী শরিয়ার সব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে।

১৯৫৯ সালে দ্বিতীয়বার মিসরে যেয়ে ইখওয়ানুল মুসলিমিনের সাথে পরিচয় ঘটে শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনের। ইখওয়ানের কর্মকাণ্ডে তিনি বিপ্লবের ধারণা খুঁজে পান। ফিলিস্তিনে ফিরে এসে তিনি দাওয়াতী কাজে মনোনিবেশ করেন। একই সাথে তিনি এলাকার মসজিদে জুমার নামাজ পড়াতে শুরু করেন। প্রখর যুক্তি এবং মানুষকে আকৃষ্ট করার যোগ্যতার কারণে তার খুৎবা কার্যত পরাধীন ফিলিস্তিনিদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে উঠে। বিশেষ করে তরুণরা তার খুতবায় খুজে পান ফিলিস্তিনের মুক্তির মন্ত্র। এভাবে নানা এলাকার মসজিদে মসজিদে লোকে তাকে ডাকতে থাকে। এর পাশাপাশি আয়ের জন্য একটি স্কুলে শিক্ষকতা শুরু করেন। শিক্ষক হিসেবেও ছাত্রদের মধ্যে তার সুনাম ছড়িয়ে পড়ে। তার ছাত্রদের মনেও তিনি বপন করে দেন স্বাধীনতা আন্দোলনের বীজ।

১৯৬৭ সালে মুসলিম দেশগুলো সম্মেলিতভাবে আল আকসা রক্ষার চেষ্টা চালায়। শুরু হয় আরব-ইসরাইল যুদ্ধ। পশ্চিমাদের সহযোগিতায় এবারও যুদ্ধে বিজয়ী হয় ইসরাইলীরা। দখল করে নেওয়া হয় ফিলিস্তিনের বাকি অংশটুকুও। এসময় বিভিন্ন সমাবেশে শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনের আল আকসা রক্ষায় দেওয়া ভাষণ জনগনের মধ্যে জাগরণ সৃষ্টি করে। দলে দলে যুবকেরা যোগ দিতে থাকে তার এসব সমাবেশে।

১৯৭৮ সালে ৪৯ বছর বয়সে শায়েখ আহমাদ ইয়াসিন সেবামূলক সংগঠন ”আল মুজাম্মা আল ইসলামি” বা ইসলামী সমাজ সংস্কার সংস্থা গঠন করেন। এই সংগঠনের মাধ্যমে ব্যাপকভাবে সেবামূলক বিভিন্ন কাজ চালিয়ে যান তিনি।

১৯৮০ সালে এই সংগঠনের নাম পরিবর্তন করে রাখেন ”আল মুজাহিদ আল ফিলিস্তিনিয়্যুন”। নামের সাথে সংগঠনের কাজেও পরিবর্তন আনেন শায়েখ আহমাদ ইয়াসিন। এই সংগঠনের মাধ্যমেই শুরু হয় বিপ্লবী কর্মকাণ্ডের। দখলদার ইসরাইলী বাহিনীর ওপর হামলা শুরু হয়।

১৯৮৩ সালে শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনকে বন্দি করে ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেয় ইসরাইলী আদালত। ১৯৮৫ সালে বন্দি বিনিময় চুক্তির অংশ হিসেবে তিনি মুক্তি পান।

১৯৮৭ সালে সমমনাদের নিয়ে আহমাদ ইয়াসিন প্রতিষ্ঠা করেন ”হারাকাত আল-মুকাওয়ামা আল-ইসলামিয়া”- বা হামাস।

১৯৮৮ সালে ফিলিস্তিনকে মুক্ত করার লক্ষ্যে “হামাস চার্টার” ঘোষণা করেন তিনি। একই সাথে হামাসের সামরিক শাখাও গঠন করেন।

ফিলিস্তিনিদের উদ্দেশ্যে শায়েখ আহমাদ ইয়াসিন বলেন, ‘ফিলিস্তিনের সমস্যা আমাদের, আমাদেরকেই এর সমাধান করতে হবে। অস্ত্র ধরে প্রতিরোধে নামতে হবে। আমাদেরকে আরবের কোন দেশ বা আন্তর্জাতিক কেউ সাহায্য করতে আসবে না।’

শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনের ডাকে সাড়া দিয়ে ১৯৮৭ সালে স্বাধীনতার দাবিতে ফিলিস্তিনিরা আন্দোলনে নেমে আসে। এই আন্দোলনের নাম দেওয়া হয় ”ইন্তিফাদাহ”, যার বাংলা অর্থ গণ-অভ্যুত্থান।

হাতের কাছে যা পাওয়া যাবে তাই নিয়েই ইসরাইলীদের প্রতিরোধে তিনি জনগণকে উত্সাহিত করতে থাকেন। শিশুরা পর্যন্ত তার ডাকে রাস্তায় নেমে আসে। ১৯৮৭ সাল থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত চলে প্রথম ইন্তিফাদা।

শায়েখ আহমাদ ইয়াসিন ইন্তিফাদা সম্পর্কে বলেন, ”আমরা এই পথ বেছে নিয়েছি, হয় বিজয় নাহয় মৃত্যুর মাধ্যমে এর শেষ হবে।” পরবর্তীতে তার এই কথাকে ফিলিস্তিনী জনগণ গণজাগরণের মূলমন্ত্র হিসেবে গ্রহণ করে।

ইন্তিফাদা চলাকালীন ১৯৮৯ সালে আবারো ইসরাইলী বাহিনীর হাতে বন্দি হোন শায়েখ আহমাদ ইয়াসিন। এবার তাকে ৪০ বছরের কারাদন্ড দেয় ইসরাইলী আদালত। কারাগারে থাকা অবস্থায় তাকে বিভিন্নরকম নির্যাতন করা হয়।জেলখানায় তার শরীরের অবনতি ঘটতে থাকে। আস্তে আস্তে ডান চোখের দৃষ্টি শক্তি হ্রাস পায়। আক্রান্ত হন শ্বাসকষ্টজনিত রোগে। আট বছর পর ১৯৯৭ সালে অসুস্থ আহমাদ ইয়াসিনকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয় ইসরাইল।

২০০০ সাল থেকে শুরু হওয়া দ্বিতীয় ইন্তিফাদাতেও বড় ভূমিকা রাখেন তিনি।

শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনকে বারবার হত্যা চেষ্টা চালায় ইসরাইলী বাহিনী। ২০০৪ সালের ২২ মার্চ ভোরে বাসা থেকে হুইল চেয়ারে করে ফজরের নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে যাওয়ার সময় হেলিকপ্টার থেকে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়ে শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনকে হত্যা করে ইসরাইল।

শায়েখ আহমাদ ইয়াসিন ছিলেন এমন এক মহান নেতা, যিনি চূড়ান্ত শারীরিক প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও নেতৃত্ব দিয়েছেন বাইতুল মোকাদ্দাস রক্ষার আন্দোলনে। তৈরি করেছেন হামাসের মতো দক্ষ ও জানবাজ সংগঠন। জেল-জুলুম কিছুই তাকে লক্ষ্য থেকে টলাতে পারেনি।

ইসরাইলী সেনারা শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দিতে পেরেছে, কিন্তু তার আন্দোলন ও তার আদর্শকে মিটাতে পারেনি। যতদিন আল আকসা মুক্ত হবে না, ততদিন শায়েখ আহমাদ ইয়াসিনের আন্দোলনের সমাপ্তি ঘটবে না।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img