মঙ্গলবার, জুন ১৮, ২০২৪

বাইতুল মোকারমে জমে ওঠেছে ইসলামি বইমেলা; পাঠকদের উচ্ছাস

রবিউল আউয়াল মাস উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের আয়োজনে রাজধানীর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ চত্বরে শুরু হয়েছে ইসলামী বইমেলা। রোববার (৯ অক্টোবর) থেকে শুরু হয়েছে এই মেলা। মেলার উদ্বোধন করেছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান।

আজ বুধবার (১২ অক্টোবর) ছিল বইমেলার চতুর্থ দিন। এদিন পাঠক সংখ্যা ছিল চোখে পড়ার মতো। অনেক ষ্টলে দেখা গেছে উপচে পড়া ভীড়। সেই সাথে দেখা গেছে পাঠকদের ব্যাপক উচ্ছাস। এবারের মেলায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন বই বিক্রি কেন্দ্র, গার্ডিয়ান পাবলিকেশন্স, বই ঘর, সমকালীন প্রকাশন, কালান্তর প্রকাশনী, চেতনা প্রকাশন, মাকতাবাতুল ফোরকান, সালসাবীল পাবলিকেশন্স, ইত্তেহাদ পাব্লিকেশন্স, রফরফ প্রকাশনীসহ ৬৪ টি স্টল বরাদ্দ পেয়েছে।

নূর হোসেন নামে একজন পাঠকের সাথে কথা বলে জানা যায়, পাঠকদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে বাড়তি ছাড়ে বই বিক্রি করছে ষ্টলগুলো। অনেক ষ্টল সৌজন্য উপহারও প্রদান করছে পাঠকদের। অনেকেই আবার আয়োজন করেছেন সিরাত (সা.)-এর উপর কুইজ প্রতিযোগীতা। সেই সাথে প্রশস্ত যায়গা এবং সুন্দর পরিবেশ থাকায় পাঠকরা বেশ সময় নিয়ে বই দেখতে ও পড়তে পারছেন বলেও জানা যায়।

স্ত্রী-কে নিয়ে মেলায় আসা মাহমুদ বিন মুনির ইনসাফকে বলেন, ইসলামি বইমেলার আয়োজন হচ্ছে বেশ কয়েক বছর যাবৎ। এখানে পাঠক সংখ্যাও ধিরে ধিরে বাড়ছে। বইমেলাকে কেন্দ্র করে নতুন পাঠকশ্রেণী গড়ে ওঠছে। তাদের উদ্দীপনাকে আরও প্রসারিত করতে গণমাধ্যমে যেভাবে প্রচার হওয়া দরকার, সেটি হচ্ছে না। বলতে গেলে মিডিয়াগুলো তেমন কোনো সাড়াই দিচ্ছে না। বিষয়টি নিয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কাজ করা উচিত বলেও তিনি মনে করেন।

ভাইকে নিয়ে মেলায় এসেছেন মোহাম্মাদ রেজাউল করীম। তিনি ইনসাফকে বলেন, আসলে ইসলামি বই মেলা আমাদের জন্য খুব দরকার। বর্তমান যুুব-সমাজের মধ্যে মোবাইলের আসক্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিভিন্ন গেম ও অনলাইন প্ল্যাটফর্ম যুবকদের মস্তিষ্ককে গ্রাস করে নিচ্ছে। এমন অবস্থায় নৈতিক চরিত্র গঠনের ক্ষেত্রে এই বইমেলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

মোহাম্মদ পাব্লিকেশন্স-এর প্রকাশকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এবারের বইমেলায় তুলনামূলক বই বিক্রি বেশি হচ্ছে। এই ইসলামি বইমেলার মাধ্যমে নতুন পাঠক তৈরি হচ্ছে। তাছাড়া অন্যান্ন বছরের তুলনায় ধর্মমন্ত্রণালয় ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সক্রিয়তা একটু বেশি। এ বছরই প্রথম “লেখক কর্নার” চালু করেছে কতৃপক্ষ।

তিনি আরও বলেন, এই মেলা আরও বড় পরিসরে হওয়া উচিত। আরও বেশি ষ্টল বরাদ্দ দেওয়া দরকার। আমরা আশা করছি বিষয়টির প্রতি ইসলামিক ফাউন্ডেশন দৃষ্টি রাখবে।

পাঠকদের উদ্দেশ্যে চেতনা প্রকাশনের স্বত্বাধীকারী বুরহান আশরাফী ইনসাফকে বলেন, আপনারা বই কিনুন আর না কিনুন মেলায় আসুন। বই দেখুন; অন্তত নতুন বইয়ের ঘ্রাণ নিতে মেলায় আসুন। ইসলামি বইয়ের যেই বিপ্লব শুরু হয়েছে, সেটিকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করুন।

ইত্তেহাদ পাব্লিকেশন্স ষ্টলের দায়িত্বে থাকা রাশেদ মুহাম্মাদ বলেন, আমাদের ষ্টল থেকে মেলা উপলক্ষে প্রতি বইয়ে ৫৫% ছাড় দেওয়া হচ্ছে। তৃতীয় দিনে পাঠক সংখ্যা সন্তুষ্টজনক। পাঠকরা খুব উচ্ছাস নিয়ে বই দেখছেন এবং কিনছেন। এই ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে ইসলামি বইয়ের পাঠক

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img