মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪

ব্রিটিশ উপনিবেশিকতা যেভাবে ৪০ বছরে ১০ কোটি ভারতীয়কে হত্যা করেছিল

১৮৮০ সাল থেকে ১৯২০ সালের মধ্যে এই চার দশকে ভারতবর্ষে (বর্তমান বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও ভারত) ব্রিটিশ উপনিবেশ কালে প্রায় ১০০ মিলিয়ন (১০ কোটি) মানুষ নিহত হয়েছিল।

সম্প্রতি ডিলান সাল্লিভান ও জেসন হাইকেলের ওয়ার্ল্ড ডেভেলপমেন্ট জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় এ ভয়ংকর তথ্যটি উঠে এসেছে।

ডিলান সাল্লিভান ম্যাককুয়ারি ইউনিভার্সিটির স্কুল অফ সোশ্যাল সায়েন্সেসের একজন অধস্তন সহকারী ও জেসন হাইকেল ইনস্টিটিউট ফর এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির অধ্যাপক এবং রয়েল সোসাইটি অফ আর্টস এর সিনিয়র ফেলো।

গবেষণায় বলা হয়েছে, ভারতে মৃত্যু হারের উপর শক্তিশালী তথ্য শুধুমাত্র ১৮৮০ এর দশক থেকেই পাওয়া যায়। ১৮৮০ সাল থেকে ১৯২০ সাল পর্যন্ত আদমশুমারির তথ্য অধ্যায়ন করার মাধ্যমে জানা যায়,
ব্রিটিশ উপনিবেশবাদের কারণে এই সময়ে ভারতীয়দের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ ছিল। যদি ও ব্রিটেনের অধিবাসীরা এখনও উপনিবেশবাদ নিয়ে গর্ব করে থাকে।

১৮৮০ থেকে ১৯২০ সাল পর্যন্ত আদমশুমারির তথ্য অনুযায়ী এই সময়ে ভারতীয়দের মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়ে যায়। ১৮৮০ এর দশকে প্রতি ১০০০ জনে ৩৭ জন মারা গেলেও ১৯১০ এর দশকে‌ তা বেড়ে দাঁড়ায় ৪৪ জনে। গড় আয়ু ২৬.৭ থেকে কমে ২১.৯ বছরে নেমে আসে। এক কথায় এত মানুষের মৃত্যু একটি বিস্ময়কর পরিসংখ্যান। এর প্রধান কারণ হিসেবে গবেষণায় বলা হয়েছে দুর্ভিক্ষ, অনাহার ও স্বল্প মজুরি।

গবেষণায় অর্থনৈতিক ইতিহাসবিদ রবার্ট সি. অ্যালেনের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়, ব্রিটিশ নিয়ন্ত্রিত ভারতে ১৮৮০ সালে দারিদ্রতার হার ছিল শতকরা ২৩ শতাংশ। তবে বিশ শতকের মাঝামাঝি তা বেড়ে ৫০ শতাংশে দাঁড়ায়।

গবেষকরা বলেন,প্রকৃত বেতনের তথ্য অনুসন্ধনের মাধ্যমে জানা যায় ১৮৮০ সালের মধ্যে ভারতীয়দের জীবনযাত্রার মান দ্রুত নিচে নামতে থাকে। অ্যালেন এবং অন্যান্য শিক্ষাবিদরা বলেন, উপনিবেশিকতার আগে ভারতীয় জীবনযাত্রার মান পশ্চিম ইউরোপের উন্নয়নশীল অংশের সমপর্যয়ের ছিল।

গবেষকরা বলেন, মৃত্যুর সুনির্দিষ্ট সংখ্যা আমরা জনি না, তবে বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে এটা স্পষ্ট যে ব্রিটিশ উপনিবেশিকতার ফলে ১০ কোটি কাছাকাছি মানুষের অকাল মৃত্যু হয়েছিল।

গবেষকরা দাবি করেন , মানব ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ও জঘন্যতম মৃত্যুর পরিসংখ্যান এটি। যা মেঙ্গিস্তুর ইথিওপিয়া,সোভিয়েত ইউনিয়ন, মাওবাদী চীন, উত্তর কোরিয়া, পোল পটের কম্বোডিয়ায় সমস্ত দুর্ভিক্ষের সময় ঘটে যাওয়া মৃত্যুর সম্মিলিত সংখ্যাকে ও ছাড়িয়া যায়।

গবেষকরা আরও বলেন ব্রিটেন নিজের স্বার্থে কার্যকর ভাবে ভারতের উৎপাদন খাতকে ধ্বংস করে দিয়েছিল।

ব্রিটিশ উপনিবেশ স্থাপনের আগে ভারত ছিল বিশ্বের বৃহত্তম শিল্প উৎপাদকদের মধ্যে একটি। ভারতের উৎপাদিত উচ্চমানের কাপড় পৃথিবীর সমস্ত কোনায় পৌঁছে যেত। স্বাভাবিকভাবেই ইংল্যান্ডে উৎপাদিত নিম্নমানের কাপড় ভারতের কাপড়ের সাথে প্রতিযোগিতা করতে পারেনি।

১৭৫৭ সালে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি বাংলা দখল করার পর থেকেই উৎপাদন খাত পরিবর্তন হতে শুরু করে।

১৮৮০ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির চেয়ারম্যান ব্রিটিশ পার্লামেন্টে গর্ব করে বলেছিলেন, এই কোম্পানিটি ভারতকে একটি উৎপাদনকারী দেশ থেকে কাঁচা পণ্য রপ্তানিকারক দেশে পরিণত করতে সফল হয়েছে।

ফলে ইংরেজ কারিগররা ভারতকে দারিদ্রতার দিকে ঠেলে দিয়ে এক ভয়ংকর সুবিধা অর্জন করেছিল। যার কারণে এখানের জনগণ ক্ষুধা ও রোগের সম্মুখীন হয়ে মারাত্মক মৃত্যু ঝুঁকিতে পড়ে।

পরিস্থিতি আরো খারাপ হয় যখন ব্রিটিশ উপনিবেশকারীরা আইনীভাবে ভারতের সম্পদ লুটতরাজ করার একটি ব্যবস্থা তৈরি করেছিল। ইংল্যান্ডের ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্য এডমন্ড বার্ক এটিকে “ড্রেইন অব ওয়েলথ” বা সম্পদের নির্গমন বলে আখ্যায়িত করেন।

ব্রিটেন ভারতীয় জনগণের উপর কর আরোপ করে। অতঃপর করের টাকায় ভারতীয় পণ্য (নীল, শস্য, তুলা ও আফিম) ক্রয় করতে শুরু করে। পরবর্তীতে এই পণ্য গুলি লাভজনক মূল্যে ইউরোপের বাজারে বিক্রি করতো। পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করত। এইভাবেই এই পণ্যগুলি বিনামূল্যে ভারতবর্ষ থেকে সংগ্রহ করত ব্রিটিশ রা।

ব্রিটিশরা এসব রাজস্ব ব্যবহার করে ব্রিটেনের অভ্যন্তরে ও এর উপনিবেশগুলিতে (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়ার) শিল্প বিকাশে আর্থিক সহায়তা করতো।

এই ব্যবস্থার মাধ্যমে ভারতবর্ষ থেকে বর্তমান হাজার হাজার কোটি টাকা মূল্যের পণ্যগুলি পাচার করেছে তৎকালীন ব্রিটিশ।

ব্রিটিশরা এই ব্যবস্থা চাপিয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে নির্দয় ছিল। বন্যা,খরা ও স্থানীয় জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়লেও তারা ভারতকে খাদ্য রপ্তানি করতে বাধ্য করেছিল।

ইতিহাসবিদরা লিপিবদ্ধ করেছেন যে ১৯ শতকের শেষের দিকে বেশ কয়েকটি দুর্ভিক্ষের সময় লক্ষ লক্ষ ভারতীয়রা অনাহারে মারা গিয়েছিল। কারণ তাদের সম্পদ তৎকালীন ব্রিটেন ও এর বসতি স্থাপনকারী উপনিবেশগুলিতে চলে গিয়েছিল।

গবেষনায় আরো বলা হয়, উপনিবেশিক প্রশাসকরা তাদের নীতির ভবিষ্যৎ সম্পর্কে পুরোপুরি জ্ঞাত ছিলেন। তারা লক্ষ লক্ষ মানুষকে ক্ষুধার্ত অবস্থায় দেখা সত্বেও এ পথ পরিবর্তন করেননি। তারা ইচ্ছাপূর্বক মানুষকে বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় সম্পদ থেকে বঞ্চিত করতে থাকে। আর এই অস্বাভাবিক মৃত্যুসংকট কে কোন দুর্ঘটনা বলা যায় না।

গবেষকরা বলেন, (১৮৮১-১৯২০) সময়কালে ব্রিটেনের এই শোষণমূলক নীতিগুলোর দ্বারা আনুমানিক ১০০ মিলিয়ন (১০ কোটি) মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক আইনে এটি শক্তিশালী প্রমাণ সহ একটি সহজবোধ্য মামলা।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সংগঠিত হলোকাস্টে আক্রান্তদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য “ক্ষতিপূরণ চুক্তিতে” স্বাক্ষর করেছে জার্মানি। সম্প্রতি জার্মানি ১৯৯০ এর দশকে নামিবিয়াতে সংঘটিত উপনিবেশিক অপরাধের জন্য সেখানেও ক্ষতিপূরণ দিতে সম্মত হয়েছে। বর্ণবৈষম্যের পরিপ্রেক্ষিতে, দক্ষিণ আফ্রিকায় শ্বেতাঙ্গ-সংখ্যালঘু সরকার দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত ১৯ হাজারেরও বেশি লোকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে।

পবেষক সুল্লিভান ও হাইকেল সম্মিলিতভাবে উপসংহারে বলেন, ইতিহাস যেমন পরিবর্তন করা যায় না ঠিক তেমন ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অপরাধও মুছে ফেলা যায় না। কিন্তু রাষ্ট্রকর্তৃক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার মাধ্যমে উপনিবেশবাদ থেকে উৎপন্ন বঞ্চনা ও বৈষম্যের উত্তরাধিকারীদের সাহায্য হতে পারে।

যদি ও এটি ন্যায়বিচার পাওয়ার জন্য একটি জটিলতা পূর্ণ পদক্ষেপ ।

সূত্র: মুসলিম মিরর ও আল জাজিরা

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img