সোমবার, মে ২৭, ২০২৪

তুরস্কের নির্বাচনের বাকি আর মাত্র ৬দিন; কার্যকর হচ্ছে যেসব নিষেধাজ্ঞা

আর মাত্র ৬দিন পর ১৪ মে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ইউরোপ, এশিয়া ও আফ্রিকা মহাদেশের মাঝে ভৌগোলিক ভাবে সংযোগ রক্ষা করার দিক থেকে বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দেশ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন।

রবিবার (৭ মে) থেকে কার্যকর হতে যাচ্ছে নির্বাচন কেন্দ্রিক কিছু নিষেধাজ্ঞা।

তুরস্কের নির্বাচনী বিধান অনুসারে এসব নিষেধাজ্ঞা মেনে চলতে হবে দেশটির সকল রাজনৈতিক দল ও নেতাকর্মীদের।

টেলিভিশন প্রচারণা:
নির্বাচনী প্রচারণা হবে এমন কোনো টেলিভিশন প্রোগ্রামে কোনো দল বা ব্যক্তি আগামী ৭ দিন পর্যন্ত অংশগ্রহণ করতে পারবে না।

কাগুজে প্রচারণা, জরিপ ও ডিজিটাল মাধ্যম:
জনগণকে নিজেদের প্রতি আকৃষ্ট করতে পক্ষে-বিপক্ষে কাগজপত্র বিতরণ এবং মোবাইল ও ই-মেইলের মতো ডিজিটাল মাধ্যমে প্রভাবিত করার জন্য বিভিন্ন ধরণের অডিও, ভিডিও কিংবা লিখিত বার্তা প্রেরণ করা সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ থাকবে। তবে রাজনৈতিক দলগুলো এই মাধ্যমগুলো ব্যবহার করে তাদের দলীয় সদস্যদের কাছে রাজনৈতিক ও নির্বাচনী বার্তা পাঠাতে পারবে। এক্ষেত্রে তা নিষেধাজ্ঞা বহির্ভূত বলে বিবেচিত হবে।

উদযাপন, রাষ্ট্রীয় যানবাহন ও রাষ্ট্র সংশ্লিষ্ট বিবৃতি:
বর্তমান সরকারের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের কেউ আগামী ৭ দিন পর্যন্ত রাষ্ট্রীয় যানবাহন ব্যবহার করতে পারবে না। শহর-উপশহরের মিউনিসিপালিটি সহ সব ধরণের রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান রাষ্ট্র সংশ্লিষ্ট কোনো ধরণের বিবৃতি প্রকাশ কিংবা জারি করতে পারবে না। এই নির্দিষ্ট সময়ে পটকা, আতশবাজির মতো কোনো কিছু ছুড়ে মারার পাশাপাশি যেকোনো ধরণের উদযাপনও নিষিদ্ধ থাকবে।

নির্বাচনী দিনের নিষেধাজ্ঞা:
নির্বাচনের দিন সকাল ৬:০০ থেকে রাত ২৩:৫৯ বা ১১: ৫৯ মিনিট পর্যন্ত মদ ও অ্যালকাহোল জাতীয় সব ধরণের পানীয় বিক্রি নিষিদ্ধ থাকবে। কেউ কোনো ধরণের অস্ত্র বহন করতে পারবে না। শুধুমাত্র রাষ্ট্র কর্তৃক নিরাপত্তার জন্য নিয়োজিত বাহিনী ও কর্মকর্তারাই অস্ত্র বহন করতে পারবে।

পার্ক, থিয়েটার, সিনেমা কমপ্লেক্স, ক্যাফে, বার ও কফিশপের মতো বিনোদনের জায়গাগুলোর পাশাপাশি অনলাইন ফুড এন্ড ব্রেভারেজ সার্ভিস এবং দর্শনীয় স্থানগুলো নির্বাচনের দিন বন্ধ রাখা হবে।

ঘটনাক্রমে রবিবার(১৪ মে) নির্বাচনের দিন কোনো বিয়ের আয়োজন হলে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার সর্বশেষ সময় সন্ধ্যা ১৮:০০ বা ৬ টার পর থেকে অনুষ্ঠান শুরু করা যাবে। এই সময় পর্যন্ত কেউই জনমত জরিপ পরিচালনা করতে পারবে না। মিডিয়াতে ফলাফল এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কোনো মন্তব্য করা যাবে না।

রবিবার (১৪ মে) ১৮:০০ থেকে ২১:০০ এর মধ্যে অর্থাৎ সন্ধ্যা ৬ টা থেকে রাত ৯টার মধ্যে তুরস্কের সর্বোচ্চ নির্বাচনী সংস্থা সুপ্রিম ইলেকশন কমিটি নির্বাচন ও ফলাফল সংক্রান্ত খবর ও তথ্য প্রকাশ করবে। এরপর থেকেই পুরো দেশে আবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাদের সম্প্রচার কার্যক্রম শুরু করতে পারবে।

উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞগণ বলছেন এটি হতে যাচ্ছে তুরস্কের ইতিহাসের সবচেয়ে স্পর্শকাতর ও গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন। কারণ এর উপরই নির্ভর করছে নতুন বিশ্বব্যবস্থা ও নতুন মেরুকরণের দিকে ছুটে চলা পৃথিবীতে তুরস্কের আগামীর পথচলা।

এক্ষেত্রে সফলতার সাথে দেশ পরিচালনা করে আসা জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি ও ঐতিহাসিক মূল্যবোধ ধারণকারী স্বপ্নবাজ প্রভাবশালী মুসলিম নেতা এরদোগান যদি নির্বাচনে জয়ী হোন তবেই তুর্কি জনগণ ও পুরো বিশ্ব দেখতে পাবে “তুর্কি শতাব্দী”। যা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে তিনি অনেক আগ থেকেই কাজ শুরু করে দিয়েছেন। এখন দরকার শুধু নতুন মেয়াদে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসার।

এছাড়া আগামীর জটিল বিশ্বব্যবস্থায় তুরস্ককে অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক হুমকি থেকে রক্ষা এবং প্রতিরোধমূলক সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করতে দারুণ ভাবে মুন্সিয়ানা দেখানো অভিজ্ঞ এরদোগানের বিকল্প পাওয়াও এখন দুষ্কর। তাই আসন্ন নির্বাচনে রাষ্ট্রক্ষমতায় এরদোগানের বিপরীতে কেউ ক্ষমতায় আসলে তুরস্ককে অনেক ধরণের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে।

কারণ সুকৌশলে পরাশক্তিদের সাথে পাল্লা দিয়ে এরদোগান তুরস্ককে যে অবস্থানে নিয়ে গিয়েছেন সেই পরিমাণ দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা না থাকায় দেশটির অবস্থা মুহুর্তেই শোচনীয় পর্যায়ে এসে ঠেকবে।

একারণে এরদোগানের দলও দেশটির বিভিন্ন স্থানে ‘দোউরু যামান দোউরু আদাম’ স্লোগান সম্বলিত বিলবোর্ড স্থাপন করে প্রচারণা চালাচ্ছে। যার মাধ্যমে দলটি তুর্কি জনগণকে বার্তা দিতে চাইছে যে, এই সময়ের উপযুক্ত ব্যক্তি হলেন এরদোগান। সঠিক সময়ে সঠিক ব্যক্তিকে বেছে নিন।

সূত্র: আল জাজিরা

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img