বুধবার, অক্টোবর ২৭, ২০২১

মরিশাসের আগালেগা দ্বীপে গোপনে সামরিক নৌঘাটি তৈরি করছে ভারত

দুটি দ্বীপ নিয়ে গঠিত ছোট দেশ মরিশাসের আগালেগা দ্বীপে গোপনে সামরিক নৌঘাঁটি তৈরি করছে ভারত।

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) প্রকাশিত আল জাজিরার অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসে।

কীভাবে হিন্দুত্ববাদী ভারত গত ২ বছর যাবত ওই ছোট্ট দ্বীপটিতে গোপনে ৩ কিলোমিটার বা ১.৮ মাইলের দীর্ঘ বিমান উড্ডীন ও অবতরণের জন্য রানওয়ে নির্মাণ করে আসছে এবং বিশালাকার দুটি নৌ জেটি নির্মাণের উদ্দেশ্যে নকশা করেছে তা আল জাজিরার অনুসন্ধানী টিম আই ইউনিটের গোপন অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে।

সামরিক বিশেষজ্ঞগণ আল জাজিরার প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জানিয়েছেন যে, দ্বীপটি সামুদ্রিক গুপ্তচরবৃত্তি ও নজরদারি মিশন পরিচালনার জন্য ভারতীয় নৌবাহিনী কর্তৃক ব্যবহৃত হওয়ার আশঙ্কা প্রবল।

জানা যায়, মরিশাসের কল্যাণের উদ্দেশ্যে ২৫০ মিলিয়ন ডলারের বিশাল বাজেটে আগালেগা দ্বীপে সামরিক স্থাপনা তৈরি করছে বলে ওই দ্বীপের বাসিন্দাদের আশ্বস্ত করেছে ভারত এবং তার ব্যয়ভারও সম্পূর্ণরূপে ভারত সরকারই বহন করবে।

তবে দ্বীপের বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, শুধুমাত্র তাদের কল্যাণে ভারত সরকারের ২৫০ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে সামরিক স্থাপনা তৈরির বিষয়ে নিশ্চিত না। বরং তারা নিজেদের ক্ষেত্রে অতীতের ডিয়াগো গার্সিয়া দ্বীপের দুর্ভাগ্য নেমে আসে কি না তা নিয়ে শঙ্কিত।

দ্বীপের বাসিন্দা ফ্রাঙ্কো প্যোলাই বলেন, আমরা অন্ততপক্ষে একটি বিমানবন্দর ও হাসপাতাল চেয়েছিলাম, বিশালাকৃতির বিমানবন্দর নয়। আমরা যখন এই বিমানবন্দরটির দিকে তাকাই তখন আমরা শঙ্কিত হয়ে উঠি!

তার ভাই আরনআউদ প্যোলাইও ঠিক একই ধরণের মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, আমাদের একটি বন্দরের প্রয়োজন রয়েছে ঠিকই কিন্তু অপরপক্ষে আমরা এটাও বুঝতে পারছি যে, এই বিশালাকার বিমানবন্দরটি আমাদের উপকারার্থে নয়। আবার দেখুন, নতুন বন্দরে কাজের জন্য এখন পর্যন্ত কোনো আগালিনকে (আগালেগানবাসী) প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়নি। তারমানে এটা স্পষ্ট হয়ে গেলো যে বন্দরটিতে যারা কাজ বা চাকরি করবে তাদের সবাই হবে ভারতীয় কর্মচারী। আমাদের যে সমস্ত সন্তান ও যুবকেরা বেকার, তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়নি।

অন্যান্য বাসিন্দারা বলছেন যে, দ্বীপে বসবাস করাকে আরো কষ্টসাধ্য করে তুলা হচ্ছে। গর্ভবতী নারীদের উপর বিভিন্ন বিষয় বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। বাইরে থেকে দ্বীপে সিমেন্ট আনার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এমনকি দ্বীপে বর্তমানে কোনো ধরণের গবাদিপশু আনাও অনুমোদিত নয়, বরং সম্পূর্ণ অবৈধ! আগালেগা থেকে নিয়মিত যাতায়াতকারী ব্যক্তিরা আসা-যাওয়ার ক্ষেত্রে ৩ মাস পর্যন্ত মরিশাসের মূল দ্বীপ থেকে ছেড়ে আসা জাহাজের জন্য অপেক্ষা করে থাকেন। প্রতি ৩ মাস অন্তর অন্তর জাহাজ আসা-যাওয়া করে, যে সামুদ্রিক যাত্রার দুর্ভোগ বর্তমানে আরো প্রকট হয়ে উঠছে! তাই যারা একবার দ্বীপ ছেড়ে গিয়েছে তাদের পক্ষে আবার দ্বীপে ফিরে প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে।

৬৭ বছর বয়সী রোজালেট জেসমিন সামুদ্রিক যাতায়াতের দুর্ভোগের কথা উঠে আসে। তিনি জানান, ২০১৩ সাল থেকে তিনি মরিশাসের মূল দ্বীপ থেকে আগালেগায় ফিরে যেতে চাচ্ছেন। তবে যতবারই তিনি জাহাজের টিকেট কাটতে যান ততবারই তারা জানায় যে, পুরো জাহাজ ভর্তি হয়ে গিয়েছে। পরেরবার চেষ্টা করুন। আপনি যখনই যাবেন যতবারই যাবেন তারা প্রতিবারই পরেরবার চেষ্টা করুন বলতে থাকবে। এই পর্যন্ত যে আপনি তা শুনতে শুনতে বিরক্ত ও আগালেগায় যেতে অনাগ্রহী হয়ে যাবেন।

আরেক আগালীন (আগালেগা দ্বীপের বাসিন্দা) অ্যালিক্স ক্যালাপিন বলেন, নিজেদের ভূখণ্ডকে অন্যের দ্বারা শোষিত হতে দেখা খুবই দুর্ভাগ্যের। অপরপক্ষে আমরাও ক্ষণিকের জন্য সেখানে গিয়ে মুক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে পারছি না যেখানে আমাদের জন্ম!

অ্যালিক্স ক্যালাপিনও বহু বছর ধরে মরিশাসের মূল দ্বীপ থেকে নিজের দ্বীপ আগালেগায় ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। কিন্তু তিনিও ‘পরেরবার চেষ্টা করুনের’ শিকার। তাকে প্রতিবার জানানো হয়, যে জাহাজে চড়ে তিনি দ্বীপে ফিরে যাবেন ওই জাহাজে কোনো জায়গাই খালি নেই।

আল জাজিরার অনুসন্ধানী টিম বন্দরের সাথে সম্পৃক্ত সব কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেছে।

সামরিক নৌঘাটির ব্যাপারে জানতে চায়লে মরিশাসের সরকার ২০১৮ সালের মতো আবারো জানায় যে, আগালেগায় সামরিক ঘাটি স্থাপনে ভারতের সাথে মরিশাস সরকারের কোনো ধরণের চুক্তি সম্পাদিত হয়নি। তাছাড়া আগালেগা দ্বীপের লোকজনকে দ্বীপান্তর করার কোনো ইচ্ছাও তাদের নেই।

সামরিক ঘাটি শব্দের ব্যবহার স্পষ্ট করতে গিয়ে তারা জানায় যে, সামরিক সরঞ্জাম মজুদকরণ, সেনা সদস্যদের আশ্রয় ও স্থায়ী ভাবে সামরিক অভিযান পরিচালনার সুবিধার ক্ষেত্রে মরিশাসের আগেলাগায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর কোনো কর্তৃত্বে নেই।

অপরদিকে ভারতের প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে এবিষয়ে জানতে চাওয়া হলে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি তারা।

প্রসঙ্গত এর আগে ২০১৮ সালেও লোকমুখে ও মিডিয়া রিপোর্টে আগালেগা দ্বীপে সামরিক ঘাঁটির অবকাঠামো তৈরির বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে মরিশাস ও ভারত দু’দেশের সরকারই তা অস্বীকার করে বসে এবং জানায় যে, দ্বীপবাসীর কল্যাণার্থেই এই অবকাঠামো নির্মাণ করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, আগালেগা দ্বীপের বাসিন্দারা নিজেদের ভাগ্যে ডিয়াগো গার্সিয়া দ্বীপের দুর্ভাগ্য নেমে আসার আশঙ্কা করছে, যা পূর্বে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অনৈতিক উপনিবেশের একটি অংশ ছিলো। কেননা ১৯৬৬ সালে ব্রিটিশরা যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ওই দ্বীপটি লিজ দিয়েছিলো তার ক্ষেত্রেও ঠিক একই রকমের ঘটনা ঘটেছিলো।

১৯৭১ সালে ডিয়াগো গার্সিয়া দ্বীপের পুরোটাই মার্কিনীদের সামরিক ঘাঁটি বনে যায় এবং তার বাসিন্দাদেরকে জোরপূর্বক অন্যত্র স্থানান্তরিত করে দিয়ে সেখানে বসবাসে বাধ্য করা হয়।

বর্তমানে দ্বীপটি ১৫ জন পৃথক পৃথক মার্কিন কমান্ডের আবাসের পাশাপাশি মার্কিন সাবমেরিন ইউনিট, দূরপাল্লার বোমারু বিমান ও সারফেস ফ্লিট হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

সূত্র : আল জাজিরা

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img