শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২২

আফগানিস্তান : তালেবানের ক্ষমতা গ্রহণের এক বছর

আজ ১৫ আগস্ট। ২০২১ সালের এইদিনে দখলদার মার্কিন বাহিনী থেকে মুক্ত হয় আফগানিস্তান। কাবুল বিজয়ের মধ্য দিয়ে মার্কিনীদের মদদপুষ্ট আশরাফ গণী সরকারকে পূর্ণরূপে উৎখাত করে আবারো ইমারাতে ইসলামিয়া গঠন করে তালেবানের নেতৃত্বে আফগান জনগণ।

টানা ২০ বছর যুদ্ধের পর এই বিজয় অর্জন করে আফগান জনগণ। এই যুদ্ধে প্রান দিতে হয়েছে হাজার হাজার আফগানীকে। একই সাথে তাদের লড়তে হয়েছে মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনী ও নিজ দেশের বিশ্বাসঘাতকদের সঙ্গে।

পশ্চিমরা বিশ্ববাসীর কাছে তালেবানের ”ইমেজ” এমনভাবে তৈরি করেছিলো যে, ধারণা করা হচ্ছিলো ক্ষমতায় এসেই তালেবান বিরোধীদের ওপর গণহত্যা চালাবে! নারীদের বন্ধি করে রাখবে! গণমাধ্যমের স্বাধীনতা কেড়ে নেবে! দেশকে দুর্ভিক্ষের দিকে নিয়ে যাবে! এবং বিশ্ববাসীর জন্য আফগানিস্তানকে হুমকির কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করবে!

বিরোধীদের সাথে আচরণ
কিন্তু গত এক বছরে এর কোনটিই ঘটেনি। তালেবান ক্ষমতায় এসে বিরোধীদের ওপর কোন গণহত্যা তো দূরের কথা সাধারণ গণগ্রেপ্তার বা হয়রানিও করেনি। মার্কিনীদের মদদপুষ্ট সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই থেকে শুরু করে আবদুল্লাহ, সবাই স্বাধীনভাবে আফগানিস্তানেই অবস্থান করছেন। বিদ্রোহী গুষ্ঠিগুলোর সাথে তালেবানের আচরণ ছিলো সংলাপ কেন্দ্রিক। আহমদ শাহ মাসুদের ছেলে আহমদ মাসুদ বিদ্রোহ করলেও তার সাথে শক্তি প্রয়োগের পরিবর্তে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চালিয়েছে তালেবানের নেতারা।

আর্থিক অবস্থা
২০০১ সাল পরবর্তী মার্কিনপন্থী সরকারগুলো পরিচালিত হতো বিদেশীদের অর্থায়নের ওপর নির্ভর করে। ২০২১ সালে তালেবান ক্ষমতায় আসার পর আমেরিকা সহায়তার বদলে উল্টো আফগানিস্তানের রিজার্ভ আটকে দেয়। এতেকরে আর্থিক সংকটে পড়তে হয় দেশটিকে। এছাড়াও বেশ কয়েকটি বড় ভূমিকম্প আঘাত হানে আফগানিস্তানে। এতকিছুর পড়েও দিব্যি টিকে আছে তালেবানের নেতৃত্বাধীন আফগান সরকার! এই বছরের মে মাসে ১৮৬.৭ বিলিয়ন আফগানী (আফগানিস্তানের মুদ্রা) রাজস্ব আয় ধরে ২৩১.৪ বিলিয়ন আফগানীর বাজেট ঘোষণা করেছে তালেবানের নেতৃত্বাধীন সরকার।

বিদেশী রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক
পশ্চিমারা ধারণা তৈরি করেছিলো যে, তালেবান ক্ষমতায় আসলেই আফগানিস্তান সন্ত্রাসবাদের কেন্দ্রে পরিণত হবে। কিন্তু তেমনটা হয়নি। আল কায়দা প্রধান আয়মান আল জাওয়াহিরীর ওপর মার্কিনীদের ড্রোন হামলা ব্যাতিত উল্লেখযোগ্য কোন ঘটনা গত এক বছরে আফগানিস্তানে ঘটেনি। উল্টো বিশ্বের অনেক দেশের সাথে সম্পর্ক উন্নয়ন হয়েছে গত এক বছরে। চীন, রাশিয়া, কাতার, তুরস্ক, পাকিস্তান, ইরান, ভারতসহ অনেক দেশের সাথেই সুসম্পর্ক গড়ে উঠেছে তালেবানের নেতৃত্বাধীন আফগান সরকারের। মার্কিনীদের সাথেও একাধিকবার আলোচনায় বসেছে তালেবান সরকারের মন্ত্রীরা। ক্ষমতায় আসার আগে থেকেই তালেবান নেতৃত্ব দাবি করে আসছে তারা আফগানিস্তানকে কোন বিদেশী রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে দেবে না। এখনো তারা এই কথা বলে যাচ্ছে।

নারী অধিকার
তালেবান ক্ষমতায় আসার পরেও বেশীরভাগ ক্ষেত্রে নারীরা এখনো তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। টেলিভিশন থেকে শুরু করে বিমানবন্দর, সব ক্ষেত্রেই নারীদের উপস্থিতি রয়েছে। তবে ইসলামী পোশাক পরার ওপর জোর দিয়েছে তালেবান সরকার। এতে করে নারীদের পোশাকের ক্ষেত্রে বেশ কিছু পরিবর্তন এসেছে। আফগান নারী উদ্যোক্তাদের সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে তালেবানের নেতৃত্বাধীন সরকার। দফায় দফায় নারী উদ্যোক্তাদের সাথে বৈঠক করেছেন একাধিক মন্ত্রী।

তবে মেয়েদের স্কুল খোলা নিয়ে এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি আফগান সরকার। তারা জানিয়েছে পূর্ণ আলাদা স্কুলের ব্যবস্থা না থাকায় মেয়েদের স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত বিলম্বিত হচ্ছে। একই সাথে তারা জানিয়েছে, নারী শিক্ষার ওপর কোনরকম নিষেধাজ্ঞা নেই সরকারের পক্ষ থেকে।

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা
গণমাধ্যমের স্বাধীনতা এখনো অপরিবর্তিত রয়েছে। আফগান গণমাধ্যমগুলো আগের মতোই খবর প্রকাশ করে যাচ্ছে। সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সমালোচনাতেও মুখোর রয়েছে তারা। এসবের জন্য বড় কোন চাপে পড়তে হচ্ছে না তাদের। নারীদের সংবাদ উপস্থাপনের সময় হিজাব পরা ছাড়া আর উল্লেখযোগ্য তেমন কোন পরিবর্তন আসেনি আফগান গণমাধ্যমে।

উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন
তালেবান ক্ষমতায় আসার পর বেশ কিছু পরিবর্তন এসেছে আফগানিস্তানে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় পরিবর্তন এসেছে দেশের নামের ক্ষেত্রে। ”ইসলামী প্রজাতন্ত্র আফগানিস্তান” থেকে ”ইমারাতে ইসলামিয়া আফগানিস্তান” নামকরণ করা হয়েছে। পতাকায় এসেছে বড় পরিবর্তন। আগের পতাকা পরিবর্তন করে সাদা জমিনের মধ্যে কালো হরফে কালেমা খচিত পতাকাকে গ্রহণ করেছে তালেবান সরকার। এছাড়াও সরকার কাঠামোতে এসেছে কিছু পরিবর্তন। পূর্বের রাষ্ট্রপতি পদ বিলুপ্ত হয়েছে। এখন রাষ্ট্র প্রধান হলেন আমিরুল মুমিনীন বা সর্বোচ্চ নেতা। এছাড়াও একজন প্রধানমন্ত্রী ও ৩ জন উপ প্রধানমন্ত্রী রয়েছে বর্তমান আফগানিস্তানে। তালেবান নেতৃত্ব এখন পর্যন্ত কোন শাসনতন্ত্র ঘোষণা না করলেও ইতোমধ্যে তারা জানিয়েছে শরিয়া আইনেই চলবে শাসনব্যবস্থা। ধারণা করা হচ্ছে অচিরেই শাসনতন্ত্র ঘোষণা করবে আফগান সরকার।

প্রধান শত্রু
মার্কিনীরা চলে যাওয়ার পর আফগানীদের প্রধান শত্রুতে পরিণত হয়েছে খারেজী গোষ্ঠী আইএস বা দায়েশ। ক্ষমতায় এসে তালেবানকে এদের সাথে লড়ে যেতে হচ্ছে। দায়েশ একের পর এক আত্মঘাতী হামলা চালিয়ে দেশের আইন-শৃঙ্খলা হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে। একাধিকবার অভিযান চালিয়েও সমূলে তাদের উৎখাত করতে পারছে না তালেবানের নেতৃত্বাধীন সরকার। তবে দায়েশকে মোকাবেলায় কোন বিদেশী শক্তির সহায়তা নিতে আগ্রহী নয় তালেবান।

spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img