গণস্বাস্থ্যের করোনা কিটের পরীক্ষা আরও পিছিয়েছে

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের গবেষকদের উদ্ভাবিত করোনার অ্যান্টিবডি কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আরও কিট চেয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)।

সোমবার দেশ গণমাধ্যমকে এ কথা জানিয়েছেন বিএসএমএমইউর উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া।

গত ২ জুন গণস্বাস্থ্য বিএসএমএমইউকে দেওয়া এক চিঠিতে সরবরাহ করা অ্যান্টিজেন ফেরত চেয়ে চিঠি দেয়।

চিঠিতে বলা হয়, যথাযথ প্রক্রিয়ায় রোগীদের লালা সংগ্রহ না করায় অ্যান্টিজেন পরীক্ষার ফলে ত্রুটি পাওয়া যাচ্ছে।

ওই সময় মহিবুল্লাহ খন্দকার দেশ রূপান্তরকে বলেছিলেন, আমাদের দুইটি কিট। একটি হচ্ছে অ্যান্টিবডি ও অপরটি অ্যান্টিজেন। অ্যান্টিবডি কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষা প্রায় শেষ পর্যায়ে। আমরা বিএসএমএমইউকে একটি চিঠি দিয়ে বলেছি যে এই কিটের ব্যাপারে প্রতিবেদন সম্পন্ন করে যাতে তারা ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে দিয়ে দেয়। আর অ্যান্টিজেন কিটের ব্যাপারে বলেছি, তারা যে নমুনা সংগ্রহ করছে, সেই নমুনায় থুথু ও কফ থাকায় পরীক্ষায় ত্রুটি পাওয়া গেছে।

তিনি আরও বলেন, লালা আমাদের জিহ্বা থেকে নিঃসৃত হয়। এটি আমাদের মুখের সবচেয়ে তরল পদার্থ। জিহ্বার আশপাশ থেকেই এটি আসে। কিন্তু, কিটের জন্য সংগ্রহ করা নমুনায় দেখা গেছে, যাদের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে তাদের কাশি দিয়ে জোর করে লালা বরে করে দিচ্ছে। এর ফলে গলার ভেতরের দিক থেকে কফ চলে আসছে। যা লালার সঙ্গে মিশে যাচ্ছে। সেই কারণেই অ্যান্টিজেন কিটে ফল ‘এরর’ দেখাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *