ইরানের ফারজাদ-বি গ্যাসক্ষেত্রটিও ভারতের হাতছাড়া

এবার পারস্য উপসাগরে ওএনজিসি বিদেশ লি.-এর আবিষ্কৃত ফারজাদ-বি গ্যাসক্ষেত্রটিও ভারতের হাতছাড়া হতে চলেছে। ক্ষেত্রটির উন্নয়নের কাজ কোন বিদেশী কোম্পানিকে না দিয়ে নিজেরাই করবে বলে তেহরান সিদ্ধান্ত নেয়ায় ভারতের আর কোন আশা থাকছে না বলে সূত্র জানিয়েছে।

ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ব অয়েল অ্যান্ড নেচারাল গ্যাস কর্পোরেশন (ওএনজিসি)’র বৈদেশিক বিনিয়োগ কোম্পানি ওএনজিসি বিদেশ লি. (ওভিএল) ২০০৮ সালে ফার্সি অফশোর এক্সপ্লোরেশন ব্লকে এই অতিকায় গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার করে।

ক্ষেত্রটির উন্নয়নে ওভিএল ও এর অংশীদাররা ১১ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের প্রস্তাব দেয়। পরে এই ক্ষেত্রের নামকরণ করা হয় ফারজাদ-বি।

ওভিএলের প্রস্তাবটি বেশ কয়েক বছর ঝুলিয়ে রাখার পর চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি ভারতকে ‘না’ করে দিয়ে ন্যাশনাল ইরানিয়ান অয়েল কো. (এনআইওসি) জানায় যে, ফারজাদ-বি উন্নয়নের জন্য একটি ইরানি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করা হবে। এসব অগ্রগতি সম্পর্কে সরাসরি খবর রাখেন এমন সূত্রগুলো থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

সূত্রগুলো জানায়, এরপরও ক্ষেত্রটির উন্নয়নের জন্য এনআইওসি’র সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রাখে ওভিএল এবং মূল্যায়নের জন্য প্রস্তাবিত চুক্তিটির শর্তাবলী দেখতে চায়। কিন্তু ভারতের এই অনুরোধে ইরান সাড়া দেয়নি।

ফারজাদ-বি ক্ষেত্রে মোট মজুতের পরিমাণ ২১.৭ ট্রিলিয়ন কিউবিক ফিট, যার ৬০ শাতংশ উত্তোলনযোগ্য। এই ক্ষেত্র থেকে প্রতিদিন প্রায় ১.১ বিলিয়ন কিউবিক ফিট গ্যাস উত্তোলন করা যাবে।

সূত্রগুলো বলে, বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া তথ্যে বুঝা যায় ইরান গ্যাস ক্ষেত্রটির উন্নয়নে স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানকে বাছাই করেছে। তবে ওভিএল আশা ছাড়েনি এবং চুক্তি করার জন্য ইরানি কর্তৃপক্ষকে তোষামোদ করে যাচ্ছে।

পারস্য উপসাগরের ইরানি অংশে অবস্থিত ৩,৫০০ বর্গ কিলোমিটার ফার্সি ব্লকটির গভীরতা ২০-৯০ মিটার।

এই ব্লকের জন্য ২০০২ সালে ২৫ ডিসেম্বর ৪০% অপারেটরশিপ ইন্টারেস্টে ইরানের সঙ্গে এক্সপ্লোরেশন সার্ভিস কন্ট্রাক্ট (ইএসসি) চুক্তি সই করে ওভিএল। অন্যান্য অংশীদারের মধ্যে রয়েছে ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশন (আইওসি) ৪০% ও অয়েল ইন্ডিয়া লি. (ওআইএল) ২০%।

ব্লকটিতে গ্যাস আবিষ্কারের পর ২০০৮ সালের ১৮ আগস্ট একে বাণিজ্যিক লাভজনক বলে ঘোষণা করে এনআইওসি। অনুসন্ধানের চুক্তির মেয়াদ ২০০৯ সালের ২৪ জুন শেষ হয়।

ভারতীয় প্রতিষ্ঠানটি ফারজাদ-বি গ্যাস ক্ষেত্রের উন্নয়নে ২০১১ সালের এপ্রিলে ইরানিয়ান অফশোর অয়েল কোম্পানির (আইওওসি) কাছে একটি মাস্টার প্লান জমা দেয়।

ফারজাদ-বি গ্যাস ক্ষেত্রের জন্য একটি উন্নয়ন পরিষেবা চুক্তি (ডিএসসি) নিয়ে ২০১২ সালের নভেম্বর পর্যন্ত আলোচনা হয়। কিন্তু কঠিন শর্ত ও ইরানের উপর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে তা চূড়ান্ত হয়নি।

ক্ষেত্রটির উন্নয়নে ২০১৫ এপ্রিলে ইরানের সঙ্গে ফের আলোচনা শুরু করে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান। তখন এনআইওসি আলোচনায় প্রতিনিধি হিসেবে পার্স অয়েল অ্যান্ড গ্যাস কোম্পানিকে (জিওজিসি) নিয়োগ করে।

এরপর ২০১৬ সালের এপ্রিল থেকে একটি ব্যাপকভিত্তিক পরিকল্পনার আওতায় ফারজাদ-বি গ্যাস ক্ষেত্রের উন্নয়ন নিয়ে ইরানের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে আসছিলো ভারত। কিন্তু সেই আলোচনা কোন পরিণতি লাভ করেনি।

এদিকে, নতুন জরিপের ভিত্তিতে ২০১৭ সালের মার্চে পিওজিসি’র কাছে একটি সংশোধিত প্রভিশনাল মাস্টার ডেভলপমেন্ট প্লান (পিএমডিপি) দাখিল করা হয় বলে সূত্রগুলো জানায়।

কিন্তু ২০১৮ সালের নভেম্বরে ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় এই প্লানের কারিগরি জরিপ করা যায়নি, যা কোন বাণিজ্যিক আলোচনার পূর্ব শর্ত।

এই ব্লকে ভারতীয় কনসোর্টিয়াম এ পর্যন্ত ৪০০ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছে।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও পিটিআই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *