রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১

আসাম ও মিজোরামের সীমান্ত বিরোধ; আবারো সহিংস লড়াই

আসাম ও মিজোরামের মধ্যে সীমান্ত উত্তেজনা তীব্র হওয়ার প্রেক্ষাপটে ১৭ অক্টোবর সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। দুই রাজ্যের অধিবাসীদের মধ্যকার ওই সঙ্ঘর্ষে অন্তত চারজন আহত হয়েছে। মিজোরামের এক অধিবাসীর মারাত্মক আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সঙ্ঘর্ষের সময় তার গলা কেটে গেছে বলে রাজ্যের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

মিজোরাম ১৯৭২ সাল পর্যন্ত আসামের অংশ ছিল। ওই সময় এটি হয় আলাদা ইউনিয়ন টেরিটরি। ১৯৮৭ সালে সে পূর্ণ রাজ্য হয়। দক্ষিণ আসামের তিনটি রাজ্য চাচার, হৈলাকান্দি ও করিমগঞ্জের সাথে মিজোরামের কোলাসিব, মামিত ও আইজওয়াল জেলার ১৬৪.৬ কিলোমিটার দীর্ঘ সীমান্ত রয়েছে।

এই সীমান্ত নিয়ে বিরোধের জের ধরে দুই রাজ্যের মধ্যে অনেকবারই সহিংস সঙ্ঘাতের সৃষ্টি হয়েছে। ১৯৯৪ সাল থেকে বেশ কয়েক দফা আলোচনা হয়েও বিরোধটির অবসান ঘটেনি।

পুরনো বিতর্ক জেগে ওঠেছে

চলতি মাসের প্রথম দিকে আসামের কর্মকর্তারা করিমগঞ্জ-মামিত সীমান্তের বিরোধপূর্ণ এলাকায় একটি খামার বাড়ি ও ফলস পুড়িয়ে দেয়ার পর বর্তমানের উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

করিমগঞ্জ পুলিশ সুপারিনটেন্ডেন্ট ময়াঙ্ক কুমার বলেন, তারা আমাদের সংরক্ষিত বনে ঢুকে চাষাবাদ করছিল। আইন অনুযায়ী তাদের উচ্ছেদ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এরপর মিজোরাম পুলিশ ও মিজো আইআরবি [ইন্ডিয়ান রিজার্ভ ব্যাটালিয়ন] নিয়ে আমাদের ভূখণ্ডে হানা দিয়ে ক্যাম্প স্থাপন করে। তারা বাঙ্কার তৈরী করে যুদ্ধের মতো উপস্থিতি বজায় রেখেছে। পরিস্থিতি এখন উত্তপ্ত রয়েছে।

মাতিতের ডেপুটি কমিশনার লালরোজামা পুলিশ বাঙ্কারের কথা স্বীকার করে বলেন, তা হয়েছে মিজোরামের এলাকায়। তিনি বলেন, আমরা আমাদের এলাকা সংরক্ষণ করছি।

উভয় পক্ষের জেলা কর্মকর্তারা পরিস্থিতি শান্ত করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। ফলে করিমগঞ্জ-মামিত সীমান্তের পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। তবে শনিবার চাচার-কলাসিব সীমান্তে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এখানে সৃষ্ট আগুন সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

ব্লেম গেইম

উভয় পক্ষ ১৭ অক্টোবরের সঙ্ঘর্ষ নিয়ে পরস্পরবিপরীত বক্তব্য দিয়ে আসছে। মিজোরামের জেলা কর্মকর্তা ও জাতিগত সংস্থাগুলো অভিযোগ করছে, দুপুরে আসাম পুলিশ শিহাপুই গ্রামে মিজোরাম পুলিশের একটি থানা গুঁড়িয়ে দেয়। তারা সেখানে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের সাথে খারাপ ব্যবহার করে বলেও খবরে প্রকাশ। কলাসিবের ডিসি এইচ লালথাঙ্গিলা বলেন, আসাম পুলিশের উপস্থিতিতে আসামের লোকজন একটি কোভিড চেকপয়েন্ট ধ্বংস করে দিয়েছে।

ওই সন্ধ্যাতেই কলাসিব জেলার শহর ভাইরেঙ্গতেতে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। শহরের লোকজন আসাম সীমান্তের লাইলাপুরের গ্রাম থেকে আসা লোকজনের সাথে সঙ্ঘর্ষে লিপ্ত হয়।

মিজো নাগরিক সমাজের গ্রুপগুলো জানায়, লায়লাপুরের লোকজন পাথর নিক্ষেপ করে।

তবে চাচার জেলা প্রশাসন এ ধরনের দাবি প্রত্যাখ্যান করে বলেন, মিজোদের কিছু লোক আসামে ঢুকে কয়েকটি অস্থায়ী দোকানে অগ্নিসংযোগ করেছে। চাচারের পুলিশ সুপারিনন্ডেন্ট বানওয়ার লাল মিনা বলেন, আসাম কোনো ধরনের আগ্রাসন চালায়নি। তা হয়েছে অন্য পক্ষ থেকে।

মিজোরামের শক্তিশালী ছাত্র সংগঠন মিরোজ জিরলাই পল কয়েকটি দোকানে আগুন লাগানোর কথা স্বীকার করলেও তিনি জোর দিয়ে বলেন, তা হয়েছে মিজোরামের ভেতরে। তিনি দাবি করে বলেন, ওই আগুন দিয়েছে বাংলাদেশী অভিবাসীরা। তারা করোনা মহামারির সুযোগ নিয়ে মিজোরামের ভেতরে ঢুকে পড়েছে, বৈরেগতে ট্যাক্সি স্ট্যান্ডের কাছে দোকানপাট বসিয়েছে।

আহত ও সভা

সংঘাতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। লালথাঙ্গিনা বলেন, মিজোরামের তিনজন আহত হয়েছে, তাদের একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মিনা বলেন, আসামের একজন আহত হয়েছে।

শনিবারের পর আর কোনো সঙ্ঘর্ষ না হলেও কর্মকর্তারা বলছেন, বিরোধের নিষ্পত্তি এখনো হয়নি। তবে লায়লাপুরের লোকজন রাস্তা বন্ধ করে নিত্যপণ্যের সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে।

রোববার বিকেলে মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা জরুরি মন্ত্রিসভার সভা ডেকে সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান।

মন্ত্রিসভার বৈঠক থেকে ইস্যু করা বিবৃতিতে মিজোরাম সরকার ঘোষণা করে, তারা আক্রান্ত সীমান্ত এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করবে। তিনি বিষয়টি আসাম সরকারের কাছে উত্থাপন করবেন বলেও জানান। বিষয়টি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েও জানানো হবে বলে তিনি জানান।

সূত্র: স্ক্রল.ইন

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img