শনিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২১

কওমী মাদরাসার বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবে না: হেফাজত মহাসচিব

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের (ভারপ্রাপ্ত) মহাসচিব ও ঢাকা খিলগাঁও মাখজানুল উলুম মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক আল্লামা নুরুল ইসলাম জিহাদী বলেছেন, কওমী মাদরাসা কুরআন হাদীস শিক্ষার প্রাণকেন্দ্র। দ্বীন রক্ষার মজবুত দূর্গ। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতিষ্ঠিত মক্কার দারে আরকম ও মদীনার দারুচ্ছুফফার অংশ হলো কওমী মাদরাসা। কওমী মাদরাসার ইতিহাস,সোনালী ইতিহাস। ইসলাম মুসলমান,দেশ ও জাতীর কল্যাণে কওমী মাদরাসা এবং ওলামায়ে কওমীয়ার অবদান অনস্বীকার্য। কওমী মাদরাসায় পড়ে কুরআন-সুন্নাহর সঠিক জ্ঞান অর্জন করে দ্বীনের ধারক-বাহক, দেশপ্রেমিক ও সুনাগরিক তৈরী হয়। সম্প্রতি কওমী মাদরাসা ও হক্কানি ওলামায়ে কেরামের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র চলছে। আমাদের বক্তব্য সুস্পষ্ট- দ্বীন প্রচারের অন্যতম মাধ্যম কওমী মাদরাসা ও ওয়াজ মাহফিলের বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবে না।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) বাদ মাগরিব নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লাস্থ মারকাজে তালীমুস সুন্নাহ’ র বার্ষিক ইসলাহী মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আল্লামা নুরুল ইসলাম জিহাদী বলেন, কওমী মাদরাসা বাংলাদেশের জন্য রহমত স্বরূপ। বৈশ্বিক মহামারী নোভেল করোনা ভাইরাসে বিশ্বে লক্ষ লক্ষ মানুষ মারা গেছে। সুপার পাওয়ার, উন্নত বহু রাষ্ট্রও করোনায় লণ্ডভণ্ড হয়েগেছে। তবে আল্লাহ তায়া’লার অশেষ রহমতে বাংলাদেশে করোনায় তেমন প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। কওমী মাদরাসায় হিফজখানার কোমলমতি শিশুরা গভীর রাতে ঘুম থেকে উঠে ওজু করে তাহাজ্জুদের নামাজ পড়ে, কুরআন তিলাওয়াত করে, জিকির আযকার করে। এর বরকতেই আল্লাহ তায়া’লা করোনা ভাইরাস থেকে বাংলাদেশকে হেফাজত করেছেন।

হেফাজত মহাসচিব বলেন, কওমী মাদরাসা সরকারি কোন অনুদানে চলে না। আল্লাহর বিশেষ রহমত এবং জনসাধারণের সার্বিক সহযোগিতায় পরিচালিত হয় এবং জনগণের খেদমতে নিয়োজিত থাকে। তাই কওমী মাদরাসায় সার্বিক সহযোগিতা করা আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য।

আল্লামা নুরুল ইসলাম জিহাদী বলেন, একটি চিহ্নিত গোষ্ঠী কওমি মাদরাসা এবং ওলামায়ে কেরামকে সরকারের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের অপচেষ্টা করছে। ওলামায়ে কেরামের কোন ভূমিকা সরকারের বিরুদ্ধে নয়। ওলামায়ে কেরামের সকল আন্দোলন সংগ্রাম নাস্তিক মুরতাদ ও ইসলাম বিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে। কওমী মাদরাসার হক্কানি ওলামায়ে কেরাম ওয়াজ-নসিহতের মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে মদ,জুয়া,খুন-খারাবি সহ সকল প্রকারের অন্যায় অপরাধ থেকে বিরত রাখতে জোরালো ভূমিকা পালন করেন ৷ দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা এবং স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় জনগনকে উৎসাহিত করেন। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখ ও পরিতাপের বিষয় আজ একটি চিহ্নিত মহল কওমী মাদরাসা ও হক্কানি ওলামায়ে কেরামের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে।

শায়েখ জাকারিয়া ইসলামিক রিচার্স সেন্টারের পরিচালক মুফতী মিজানুর রহমান সাঈদের সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে আরো বয়ান করেন দেওনার পীর অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী, মধুপুরের পীর মাওলানা আব্দুল হামীদ,মাওলানা খুরশিদ আলম কাসেমী, মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদ, মুফতী লুৎফুর রহমান ফরায়েজি ও মাওলানা মামুনুল হক প্রমূখ।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img