বৃহস্পতিবার, মে ২৬, ২০২২

সর্বাত্মক লকডাউনে চরম যাতায়াত ভোগান্তিতে শ্রমিকরা

নিষেধাজ্ঞা শেষে আসছে সর্বাত্মক লকডাউন। ১৪ এপ্রিল থেকে শুরু হয়ে এই লকডাউন চলবে সপ্তাহব্যাপী। এসময় সবকিছু বন্ধ থাকলেও, শ্রমিকদের যাতায়াতের জন্য প্রতিষ্ঠান নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় নিয়ে যাবে। এমন পরিস্থিতিতে শ্রমিকরা পড়েছে বেশ ভোগান্তিতে।

তারা বলেন, শ্রমিকদের দায়িত্ব না নিয়ে মালিকদের সুবিধা দিতে লকডাউনে তাদের সঙ্গে মশকরা করা হয়েছে। সামনে অভাব, আর পেছনে করোনার ঝুঁকি। তাই পরিবহনের ব্যবস্থা না থাকলেও হেঁটে কারখানায় যেতে হয়।

সরকারের দেওয়া কঠোর নিষেধাজ্ঞায় গাজীপুরের চন্দ্রার পোশাক শ্রমিক জানান, গণপরিবহন বন্ধ থাকায় প্রায় ছয় কিলোমিটার হেঁটে কারখানায় যেতে হয়েছে। আমি যে কারখানায় কাজ করি, ওই কারখানায় স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বালাই নেই। নেই হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা হাত ধোয়ার ব্যবস্থাও

বাংলাদেশ ন্যাশনাল লেবার ফেডারেশন সভাপতি মরিয়ম আক্তার শিউলি বলেন, ক্রেতাদের চাপে কমপ্লায়েন্স কারখানাগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মানা হলেও নন-কমপ্লায়েন্স কারখানায় স্বাস্থ্যবিধি মানা হয় না। এ রকম প্রায় দুই হাজার কারখানা আছে। এসব অনেক কারখানা বিজেএমইএ এবং বিকেএমইএ সদস্য নয়। ফলে তাদের নজরদারির সুযোগ কম। এ ছাড়া ওয়াশিং, প্রিন্টিং কারখানায় কোনো স্বাস্থ্যবিধিই মানা হয় না।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img