বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৯, ২০২১

‘শিক্ষা কার্যক্রম থেকে ইসলামী শিক্ষা বাদ দিয়ে জাতিকে নাস্তিকতায় দীক্ষিত করার ষড়যন্ত্র চলছে’

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড আগামী বছর ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষায় ধর্মশিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করার যে চূড়ান্ত পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির আমীর মাওলানা সরওয়ার কামাল আজিজি ও মহাসচিব মাওলানা মুসা বিন ইযহার।

সোমবার (৩০ নভেম্বর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, জাতীয় শিক্ষা কার্যক্রম থেকে ধর্মশিক্ষাকে ক্রমাগতভাবে গুরুত্বহীন করে দিয়ে দেশের মানুষকে নাস্তিকতায় দীক্ষিত করার একটি হীন ষড়যন্ত্র চলছে বলে আমরা মনে করি।

নেতৃদ্বয় বলেন, যেখানে চারিদিকে অন্যায়-দুর্নীতিসহ নৈতিক পদস্খলন জনিত অসংখ্য দুর্ঘটনায় জাতি দিশেহারা সেখানে ইসলামী শিক্ষার মাধ্যমে নীতি-নৈতিকতার আলো ছড়িয়ে দিয়ে জাতিকে সঠিক পথে আনা খুবই প্রয়োজন ছিল। সরকার জনগণের কল্যাণে এই সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ না করে কাদের প্ররোচনায় উল্টো পথে হাঁটছে তা আমাদের কাছে বোধগম্য নয়। এভাবে চলতে থাকলে নৈতিক পদস্খলন জনিত অরাজকতা চরম আকার ধারণ করবে।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, অবিলম্বে দেশ-জাতির স্বার্থে বিরোধী নাস্তিক্যবাদীদের প্ররোচনায় গ্রহণ করা এই আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে ধর্মশিক্ষাকে সর্বস্তরে বাধ্যতামূলক করতে হবে।

নেতৃদ্বয় বলেন, একটি সুস্থ সুশৃংখল জাতি গঠন করে উন্নতি ও সফলতার পথে চলতে হলে নীতি নৈতিকতা শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। আর এর জন্য একমাত্র পথ হল, শিক্ষার সর্বস্তরে কুরআন-হাদিস শিক্ষা বাধ্যতামূলক করে পুরো শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানো।

তারা বলেন, বাংলাদেশসহ সারা পৃথিবীতে আজ ইসলামের যে গণজোয়ার শুরু হয়েছে তাতে ইসলাম বিরোধী শক্তি দিশেহারা হয়ে ইসলাম ও মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে বিভিন্নমুখী ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু মনে রাখতে হবে ইসলামী শক্তিকে দমন করার মত কোন শক্তি পৃথিবীতে নেই।
নেতৃদ্বয় ইসলাম ও ইসলামী শিক্ষাকে সমাজের সর্বস্তরে ছড়িয়ে দিতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানোর জন্য তৌহিদী জনতার প্রতি আহ্বান জানান।

spot_imgspot_img

আরও