বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২১

‘চীন সেনা প্রত্যাহার করে নিচ্ছে’ এমন ভুয়া খবর প্রচার করছে ভারতীয় মিডিয়া

ভারতীয় মিডিয়ায় সৈন্য প্রত্যাহার পরিকল্পনা নিয়ে ভারতীয় ও চীনা সামরিক বাহিনীর আলোচনা ও চূড়ান্ত করা নিয়ে যেসব প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে, সেগুলো সঠিক নয় এবং তা দুই পক্ষের লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক হবে না বলে গ্লোবাল টাইমস জানতে পেরেছে।

টাইমস অব ইন্ডিয়া বৃহস্পতিবার জানায়, চীন ও ভারত পূর্ব লাদাখের সঙ্ঘাতময় এলাকা থেকে সৈন্য, ট্যাঙ্ক, হাইটজার ও সাজোয়া যান প্রত্যাহার করতে মোটামুটিভাবে সম্মত হয়েছে।

মিডিয়াটিতে একটি সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে আরো জানায়, ৬ নভেম্বর কোর কমান্ডার পর্যায়ের বৈঠকে দুই পক্ষ প্রস্তাবিত প্রত্যাহার পরিকল্পনা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা ও চূড়ান্ত করেছে।

ভারতীয় মিডিয়ায় প্রকাশিত প্রত্যাহার পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে: চীনা সেনাবাহিনী তাদের বর্তমান ফিঙ্গার ৪ এলাকা থেকে সরে ফিঙ্গার-৮-এর পূর্ব দিকে ফিরে যাবে। আর ভারতীয় সৈন্য ফিঙ্গার ২ ও ৩ থেকে তাদের সৈন্য প্রত্যাহার করবে। ফিঙ্গার ৪ থেকে ৮ পর্যন্ত এলাকাগুলোতে টহল দেয়া হবে না। তিন তিন ধরে প্রতিদিন ৩০ ভাগ করে সৈন্য প্রত্যাহার করা হবে।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, প্রচণ্ড শীতের মধ্যে ১৫ হাজার ফুট উঁচুতে সৈন্য মোতায়েন করা খুবই কঠিন কাজ। এ কারণেই চীন উত্তেজনা প্রশমনে নমনীয় করেছে।

কিন্তু বৃহস্পতিবার গ্লোবাল টাইমস জানতে পেরেছে যে কোর কমান্ডারদের অষ্টম রাউন্ডের বৈঠকে আলোচনা বেশ ভালো হলেও মিডিয়ায় যে প্রত্যাহার পরিকল্পনা প্রকাশ করা হয়েছে তা ঠিক নয়।

ভারতের কঠোর অবস্থান নিয়ে কয়েকটি ভারতীয় মিডিয়ায় প্রকাশিত খবর আংশিকভাবে সত্য। এর লক্ষ্য হলো দেশের জাতীয়তাবাদকে উস্কে দেয়া।

সূত্রগুলো গ্লোবাল টাইমসকে জানিয়েছে, ভারতীয় মিডিয়া সবসময় লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি), সৈন্য প্রত্যাহার ইত্যাদি নিয়ে অবাস্তব প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

সিনঘুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যাশনাল স্ট্র্যাটেজি ইনস্টিটিউটের গবেষণা বিভাগের পরিচালক কিয়ান ফেঙ গ্লোবাল টাইমসকে বলেন, ভারতীয় মিডিয়ায় সৈন্য প্রত্যাহার নিয়ে যেসব তথ্য প্রকাশ করেছে, তা তাদের নিজেদের বানানো। তবে এতে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর একতরফা প্রত্যাহারের কিছু কথা প্রকাশ পেয়েছে।

তবে এতে দুই পক্ষের সম্মতির বিষয়টি প্রতিফলিত হয়নি। চূড়ান্ত পরিকল্পনাও প্রকাশ পায়নি।

কিয়ান বলেন, হিন্দু ধর্মের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উৎসব দিওয়ালিকে সামনে রেখে চীনকে চাপে রাখতে এবং সেইসাথে ভারতীয়দের ওপর থেকে চাপ কমনোর জন্য মিডিয়ার মাধ্যমে জনসাধারণের কাছে তথাকথিত সৈন্য প্রত্যহার নিয়ে কিছু তথ্য দিতে চাচ্ছে ভারত।

কিয়ান বলেন, ভারতের সামরিক বাহিনীর আগ্রহের বিষয়টি বোধগম্য। কারণ আবহাওয়া ক্রমাগত শীতল হচ্ছে। ফলে লজিস্টিক সরবরাহের ওপর চাপ বাড়ছে।

চীন ও ভারত ৬ নভেম্বর একটি যৌথ বিবৃতির মাধ্যমে উল্লেখ করে যে দুই পক্ষ সংলাপ অব্যাহত রাখতে একমত হয়েছে। তারা সামরিক ও কূটনৈতিক চ্যানেলের মাধ্যমে বিদ্যমান বিরোধগুলো মীমাংসার চেষ্টা করবে।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img