রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২১

‘বাংলাদেশে অফিস খুলে হিন্দুদের পশ্চিমবঙ্গ যেতে সাহায্য করছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ’

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক ঘটনাপ্রবাহের উপর গভীর নজর রাখছেন প্রতিবেশী বাংলাদেশের সিলেটের চৌধুরী অরূপ আর টাঙ্গাইলের মধুপুরের মোজাম্মেল হোসেন। তারা উদ্বেগের সাথে দেখছেন যে, পশ্চিমবঙ্গে এখন যেটা ঘটছে, সেটা আগে কখনও ঘটেনি। তারা উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছেন যে, পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের দ্রুত প্রধান্য বিস্তার করছে।

এই দুজনের ধারণার কারণ হলো উগ্র হিন্দুত্ববাদের কারণে পশ্চিমবঙ্গে সাম্প্রতিক উত্তেজনা বেড়ে যাওয়া। দক্ষিণ এশিয়ায় সাধারণভাবে হিন্দু-মুসলিম সম্পর্কের উপর এর প্রভাব পড়েছে। ২০১৯ সালে ভারতের পার্লামেন্ট নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনের মধ্যে ১৮টি পেয়েছে হিন্দুত্ববাদী ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)।

স্ত্রীর ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতা যেতে হয় ভাস্কর চৌধুরীকে। অন্যদিকে হোসেনের নিজেরই ক্যান্সার রয়েছে। চৌধুরী আর হোসেনের মতো হাজার হাজার বাংলাদেশি চিকিৎসা, ব্যবসায় ও পর্যটক হিসেবে পশ্চিমবঙ্গ এবং ভারতের অন্যান্য রাজ্যগুলোতে যান। এদের সবাই আশঙ্কার মধ্যে আছেন যে, পশ্চিমবঙ্গের ২০২১ সালের অ্যাসেম্বলি নির্বাচনের আগে হয়তো হিন্দুত্ববাদীরা মুসলিম-বিরোধী এবং বাংলাদেশ-বিরোধী কার্ড খেলার চেষ্টা করবে।

পশ্চিমবঙ্গের উগ্র হিন্দুত্ববাদী বিজেপি প্রধান দিলিপ ঘোষের বিতর্ক সৃষ্টির প্রবণতা রয়েছে। সম্প্রতি তিনি এক বক্তৃতায় বলেছেন: “বিজেপি পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতায় আসলে এখানে বসবাসরত ১০ মিলিয়ন অবৈধ বাংলাদেশি মুসলিমকে ফেরত পাঠানো হবে”। ঘোষের এই উগ্র বক্তব্যের মাধ্যমে বাংলার মুসলিম এবং বাংলাদেশি – যারা পর্যটন বা চিকিৎসার জন্য এসেছেন, তাদের বিরুদ্ধেও অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। ভারতীয় কর্মকর্তারা অবশ্য এই ধরনের আশঙ্কাকে বিবেচনায় নিচ্ছেন না।

রাজ্যের উপজাতীয় জঙ্গলমহল এলাকায় উগ্র হিন্দুত্ববাদী আরএসএসের প্রচারক ছিলেন দিলিপ ঘোষ। সেখান থেকে তাকে পশ্চিমবঙ্গের বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী করা হয়। কলকাতার সিনিয়র সাংবাদিক সমির কে পুরকায়স্থ বলেন, তার উত্থান বিজেপির বর্ণভিত্তিক সামাজিক কৌশলের প্রতিনিধিত্ব করে। তিনি সাউথ এশিয়ান মনিটরকে বলেন, “পশ্চিমবঙ্গে উগ্র জাতীয়তাবাদী ঢোল পেটানো এবং ভোটারদের বিভক্ত করার ক্ষেত্রে ঘোষ একজন উপযুক্ত ব্যক্তি”।

বিজেপির উত্থান ও হিন্দু শরণার্থী ফ্যাক্টর

এক দশক আগেও যে দলটির কোন নির্বাচনী উপস্থিতি ছিল না, এটা উল্লেখযোগ্য যে, সেই বিজেপিই এখন পশ্চিমবঙ্গে বিগত কয়েক বছরে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আবীর্ভূত হয়েছে। কিন্তু হিন্দুত্ববাদীদের নজর সবসময় পশ্চিমবঙ্গে এবং ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর উপর ছিল।

বাংলাদেশ বিষয়ক পর্যবেক্ষক সুখরঞ্জন দাসগুপ্ত ব্যাখ্যা করে বলেন, “হিন্দু ডানপন্থীরা এমনকি স্বাধীনতার আগে থেকেই গ্রামীণ বাংলায় সক্রিয় ছিল। কিন্তু এখন নরেন্দ্র মোদি-অমিত শাহ জুটি এটাকে বাংলার শহর এলাকাতেও টেনে এনেছে। বিজেপি হিন্দু অভিবাসীদেরকে মুসলিমদের থেকে আলাদা করার চেষ্টা করছে। বিজেপি বাংলার হিন্দুদেরকে কট্টর করে তুলতে পেরেছে – বিশেষ করে দেশভাগের সময়ের শরণার্থীদের, আগে যারা কমিউনিস্ট হিসেবে পরিচয় দিয়ে এসেছে – এদেরকে দিয়ে হিন্দু আর মুসলিমদের আলাদা করেছে তারা। সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট অ্যাক্ট (সিএএ) পাস করে বিজেপি এটা প্রতিষ্ঠিত করেছে যে, বাংলাদেশের হিন্দুরা অভিবাসী আর মুসলিমরা ‘অবৈধ অনুপ্রবেশকারী”।

দাসগুপ্ত বললেন, “বহু বছর ধরে হিন্দু ডানপন্থীরা বর্তমান বাংলাদেশ থেকে পশ্চাদপদ নমশুদ্র সম্প্রদায়ের হিন্দুদের পশ্চিমবঙ্গে আসতে সাহায্য করেছে”।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং সাংস্কৃতিক ভাষ্যকার জওহর সরকার লিখেছেন: “বাংলায়, বিজেপি এখন বেপরোয়া বামপন্থী, কংগ্রেস এবং এমনকি সাবেক তৃণমূল সমর্থকদের সম্মেলনকেন্দ্র হয়ে উঠেছে যারা এই দলের পতাকার নিচে জড়ো হয়েছে। কারণ, তারা ভাবছে এই দলের হাতে কেন্দ্রীয় সরকার এবং আধাসামরিক বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ থাকায় তারা দায়মুক্তি পেয়ে যাবেন”।

দাসগুপ্ত সাউথ এশিয়ান মনিটরকে বলেন, “আরএসএস-সংশ্লিষ্ট বিশ্ব হিন্দু পরিষদ এখন বাংলাদেশের সবগুলো জেলায় তাদের অফিস খুলেছে এবং বাংলাদেশের নিম্নবর্ণের হিন্দুদের তারা পশ্চিমবঙ্গে চলে যাওয়ার জন্য সাহায্য করছে”।

বিজেপি একটা বিষাক্ত পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করছে, যেখানে এরই মধ্যে সংখ্যালঘুদের (মুসলিমদের) বিরুদ্ধে অপপ্রচার শুরু হয়েছে এবং সহিংসতা উসকে দেয়া হয়েছে।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img