Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

ইনসাফ আমার চেতনার বাতিঘর

আরিফ মুসতাহসান | বিশেষ প্রতিনিধি : ইনসাফ


সময়টা ২০১৩। এসময় হেফাজতের উত্থান; ৬ এপ্রিল লংমার্চ; ৫ মে’র কালোরাতের কথা ভুলে যাবার নয়। বিশেষকরে ৫ ও ৬ মে হেফাজতের অনেক নেতাকর্মী শহীদ, গুম, আহত এবং গ্রেফতার হয়েছেন। সেসময় হেফাজতের পক্ষে সত্য সংবাদ প্রচারে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করায় ‘দিগন্ত টেলিভিশন’ ও তৎকালীন সারা জাগানো দৈনিক পত্রিকা ‘আমার দেশ’ একেবারে বন্ধ করে দেওয়া হয়। বাকিসব মিডিয়া মাজলুমকে জালিম রূপে উপস্থাপনের অপচেষ্টায় লিপ্ত থেকেছে। তখন মিডিয়ার ষড়যন্ত্রে হেফাজতের কী নাজুক অবস্থা! তা সবার অবগত থাকার কথা।

ইনসাফ প্রতিষ্ঠা: হেফাজত পরবর্তী সময়ে ইসলামী মিডিয়ার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। বিশেষ করে জালিমের বিরুদ্ধে মাজলুমের কণ্ঠস্বরকে উঁচিয়ে ধরতে, মুসলমানদের স্বপক্ষের কথাগুলো তুলে ধরতে অনলাইন পত্রিকার মাধ্যমে মিডিয়া কার্যক্রম শুরু করেন সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার। মুক্তিযুদ্ধের ৪টি স্তম্ভের একটি হলো ‘ইনসাফ’ বা ন্যায়বিচার। সেই ইনসাফের প্রতীক হিসেবে পত্রিকার নামকরণ করা হয় ‘ইনসাফ’। অনলাইনের স্বার্থে ‘ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম’ যুক্ত করা হয়। ২০১৪ সালের ৫’মে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হাটহাজারী মাদরাসায় ‘ইনসাফ’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। ইনসাফ ৬ বছর পূর্ণ করেছে। দীর্ঘ ৬ বছর ‘ইনসাফ’ আস্থার প্রতীক হিসেবে পাঠকের মন জয় করতে সক্ষম হয়েছে, আলহামদুলিল্লাহ।

আমার ইনসাফে আসা: মিডিয়ায় কাজ করা কখনোই সহজ বিষয় নয়। বিশেষ করে স্বচ্ছভাবে সংবাদ প্রচারে প্রায়শই বাঁধার সম্মুখীন হতে হয়। ২০১৭ সালের শেষের দিকে হাটহাজারী পড়াশোনাকালীন বন্ধু আলামিন ফারাজের মাধ্যমে ইনসাফের সম্পাদক মহোদয় সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার স্যারের সাথে পরিচয় হয়। উনার উৎসাহ ও সার্বিক দিকনির্দেশনায় আনুষ্ঠানিকভাবে মিডিয়ায় কাজ করা শুরু।

হাটহাজারী প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি, বিশেষ প্রতিনিধি, এছাড়াও মুসলিম বিশ্ব বিভাগে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ আল্লাহ এই অধমের দ্বারা আদায় করে নিয়েছেন।

সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার: ইনসাফ বললে যার নাম দৃশ্যপটে ভেসে উঠে তিনি হলেন ইনসাফের কর্ণধার, সম্পাদক ও প্রকাশক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার। শুধু ইনসাফ কেন্দ্রিক নয়, মিডিয়াতে উনার কি অবদান শুধু তাঁর সাথে যারা চলাফেরা করেছেন তারাই একমাত্র বলতে পারবেন। আমি তাঁর কাছ থেকে শিখেছি কিভাবে একজন সাংবাদিক নৈতিকতা বজায় রেখে সংবাদ প্রচার করবে, আমি শিখেছি কিভাবে সংবাদ উপস্থাপনে জালিম-মাজলুমের অবস্থান স্পষ্ট করতে হয়। ইসলামি মিডিয়া নিয়ে তাঁর ভাবনা, চিন্তার প্রসারতা যে কাউকেই ভাবিয়ে তুলবে।

‘১৩ সালের হেফাজত পরবর্তী সময়ে ইসলামি অঙ্গনে মিডিয়ার অভাব পূরণ করতে তিনি যেভাবে এগিয়ে এসেছেন। স্রোতের বিপরীতে গিয়ে ইসলামী মিডিয়াকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। তা ছিল তখনকার সময় অভাবনীয় চিন্তাভাবনা। শত বাধা স্বত্বেও তিনি পিছু হটেননি। যার ফসল আজকের ইনসাফ ও মিডিয়ায় ইসলামী অঙ্গনের অবস্থান।

‘১৪ সালের সেই দিনটির মতো আজকের দিনটি সমান নয়। আলহামদুলিল্লাহ আমরা মিডিয়া জগতে বেশ সফলতার স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হয়েছি। একসময় দৈনিক পত্রিকাগুলো আমাদের কুৎসা রটাতে ব্যস্ত থাকত; আজ তারা ক্ষেত্রবিশেষ আমাদের চেয়েও বেশি ইসলামী নিউজ প্রকাশে ব্যস্ত। কিন্তু তারা এখনো আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত, তবে আগের মত সাধারণ মানুষ তা আর গ্রহণ করেনা। ইনশাআল্লাহ সবাই যদি মাহফুজ খন্দকার স্যারের মতো সম্মিলিতভাবে এগিয়ে আসে, তাহলে আমাদের বিজয় নিশ্চিত।

ইনসাফ টীম: একটা দলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অনেক কিছু সম্ভব। টিমওয়ার্ক অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ইনসাফে যেমন সম্পাদক মাহফুজ স্যারের গুরুত্ব অপরিসীম, ঠিক তেমনি এমন কিছু ব্যক্তি রয়েছেন যাদের কথা স্মরণ না করলেই নয়।

মারজান হোসাইন চৌধুরী। ইনসাফের নির্বাহী সম্পাদক। যিনি পড়াশোনায় একজন জেনারেল শিক্ষিত। দ্বীনের প্রতি তাঁর দরদ দেখে আমি ঈর্ষান্বিত হই এবং লজ্জাবোধ করি। তিনি ইনসাফ প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই ইনসাফের সাথে আছেন। ইনসাফ সম্পাদক তাকে নিয়ে প্রায় বলে থাকেন, “দীর্ঘ এ যাত্রায় তিনিই একমাত্র সবসময় আমার পাশে থেকেছেন”। নিঃস্বার্থ, আত্মগর্বহীন ও সাদা মনের চরিত্র আমি তাঁর মাঝে দেখতে পাই। আল্লাহ তাঁর মেহনতকে কবুল করুন। তাঁর কাজ আমাদের জন্য অনুপ্রেরণার খোরাক বানান। আমীন।

আলাউদ্দিন বিন সিদ্দিক। ইনসাফের বার্তা সম্পাদক। যারা ইনসাফকে ভালোভাবে ফলো করেন, তাদের জন্য তাকে নিয়ে বেশি কিছু বলার প্রয়োজন নেই। একজন মাদরাসা পড়ুয়া ছাত্র কিভাবে সাংবাদিকতার জগতে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে পারে, তার উত্তম নিদর্শন হচ্ছেন আলাউদ্দিন বিন সিদ্দিক। তিনি যখন জুব্বা পরিধান করে ক্যামেরা হাতে বাইতুল মুকাররম থেকে শুরু করে ঢাকার এপাড়-ওপাড় চড়ে বেড়ান, মানুষের সামনে এক নতুন দৃশ্যপট উন্মোচন হয়। তিনি মাঠের কাজে যেমন একটিভ, অফিসের কাজে তেমন সচল। তিনি খুব সমন্বয়ের সাথে অন্যান্য কর্মীদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করেন। ইনসাফে কাজের জন্য আমি বিশেষ ভাবে তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ। তিনি না থাকলে হয়তো আমার পক্ষে এতদূর আসা সম্ভব হতো না। আল্লাহ ইনসাফের জন্য তাঁর এই ত্যাগকে কবুল ফরমান। আমি দোয়া করি আল্লাহ যেনো তাকে সর্বদা সুস্থ রাখেন। তাঁর কাজ যেনো পরবর্তীদের জন্য নিদর্শন ও অনুপ্রেরণামূলক হয়ে থাকে।

ইনসাফে এসে আরো যাদের কথা ভুলার মতো নয়, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর ব্যক্তিগত সহকারী মাওলানা ইনআমুল হাসান ফারুকী ভাই অন্যতম। এছাড়াও হাটহাজারীতে থাকা অবস্থায় বন্ধুবর আলামিন ফারাজ ও জুনাইদ আহমদ ভাইয়ের অবদান শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করতে হয়।

বর্তমান টীমে অন্যান্য যারা রয়েছেন, বিশেষকরে মুহাম্মাদ জিন্নুরাইন আব্বাছি, মাহবুবুল মান্নান, মাহবুব শাহীন ও তাদের প্রত্যেকের জন্য হৃদয়ের গহীন থেকে ভালোবাসা রইলো। আল্লাহ তাদের উভয় জাহানে কামিয়াবি করুন। আমীন।

ইনসাফ আমার চেতনার বাতিঘর। এই চেতনা বিশ্বভূবনে ছড়িয়ে দিতে চাই। সবাই যেনো ইনসাফকে চিনতে পারে, ইনসাফের চেতনাকে ধারণ করতে পারে। ইনসাফ এখন অনলাইনে যথাসম্ভব কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বর্তমান যুগ অনলাইন নির্ভর, ভবিষ্যতে আরো অনলাইন ও প্রযুক্তি নির্ভর হবে। আমার স্বপ্ন ইনসাফ একদিন পূর্ণাঙ্গ অনলাইন টেলিভিশন ও অনলাইন পত্রিকার চাহিদা পূরণ করতে সক্ষম হবে। পাঠকের চাহিদা পূরণে আরো সক্ষমতা বাড়বে, ইনশাআল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *