রবিবার, ডিসেম্বর ৪, ২০২২

আসামি ছিনতাই; আগেই সতর্ক করেছিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

পুলিশের চোখে স্প্রে ছুড়ে রাজধানীর আদালতপাড়া থেকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামিকে ছিনিয়ে নেওয়ার পরই দেশে জারি করা হয় রেড অ্যালার্ট। অথচ ঘটনার প্রায় এক মাস আগে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের আদালতে আনা-নেওয়ার সময় পুলিশি নজরদারি আরও বাড়াতে অনুরোধ করেছিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ।

কারণ হিসেবে তারা বলেছিল, কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যরা ওই সময় বন্দিদের মাদক, মোবাইল ফোন ও বিভিন্ন অবৈধ দ্রব্য দিয়ে থাকেন। বন্দিদের নিরাপত্তাও ওই সময় শিথিল থাকে। এ কারণে নিরাপত্তা আরও জোরদার করতে পুলিশ অধিদফতরকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিতে ২৫ অক্টোবর জননিরাপত্তা বিভাগে চিঠি দেয় সুরক্ষা সেবা বিভাগ।

চিঠিতে বলা হয়- দেশের কারাগারে আটক বন্দিদের কারা ফটক থেকে পুলিশি পাহারায় আদালতে নেওয়া হয়। আদালতের কার্যক্রম শেষে পুনরায় কারাগারে প্রত্যাবর্তনের সময়ে যাতে বন্দিরা মাদক, মোবাইল ফোন ও বিভিন্ন অবৈধ দ্রব্য বহন করতে না পারে। এ লক্ষ্যে ওই সময়ে পুলিশি নজরদারি ও তল্লাশি কার্যক্রম জোরদার করার জন্য পুলিশ অধিদফতরকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো। এর আগেও কারাগারের অনিয়ম ও দুর্নীতি তদন্তে ২০২০ সালের ১৭ নভেম্বর সুরক্ষা সেবা বিভাগের তৎকালীন যুগ্মসচিব মুনিম হাসানের নেতৃত্বে গঠিত হয়েছিল কমিটি।

ওই কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে নিয়মিতভাবে প্রিজনভ্যানে আসামিদের কোর্টে পাঠানো হয়। সাম্প্রতিককালে অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রিজনভ্যানে গমনকারী আসামিরা তাদের আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে কথা বলার জন্য কর্তব্যরত পুলিশ ৪/৫টি মোবাইল ফোন প্রিজনভ্যানে দেওয়া হয়। কারাগার থেকে আসামিদের কোর্টে প্রিজনভ্যানের মাধ্যমে আনা নেওয়ার কাজটি পুলিশ করে থাকে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানান, সুরক্ষা সেবা বিভাগের চিঠি পাওয়ার পর সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করা হয়েছিল। তা সত্ত্বেও দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা ঘটল; যা অনাকাক্সিক্ষত। এ বিষয়ে ইতোমধ্যে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে তারা প্রতিবেদন দেবে। এ ঘটনায় কাদের গাফিলতি ছিল তা তদন্তে উঠে আসবে নিশ্চয়। গতকালই বন্দি ছিনতাইয়ের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটি।

এদিকে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ছিনতাইয়ের ঘটনা তদন্তে গতকালই সুরক্ষা সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিবের (কারা) নেতৃত্বে ৪ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে মন্ত্রণালয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- পুলিশ মহাপরিদর্শকের একজন প্রতিনিধি (ডিআইজি পদমর্যাদা), কারা অধিদফতরের অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, ঢাকা। কমিটিকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। একইভাবে পুলিশ অধিদফতরও চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। পুলিশ সদর দফতরের ডিআইজি (অডিট) মুহাম্মাদ আমিনুল ইসলামকে প্রধান করে গঠিত কমিটির সদস্য সচিব হলেন অতিরিক্ত ডিআইজি (ক্রাইম মেট্রো) মুহাম্মাদ হাসানুজ্জামান। সদস্যরা হলেন- সিটিটিসির ড. এ এইচ এম কামরুজ্জামান ও সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার (মেট্রো সাউথ) মুহাম্মাদ আনিচুর রহমান। কমিটিকে তিন কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img