শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২৩

কুরআন অবমাননাকারীদের শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত সুইডিশ দূতাবাস বন্ধ রাখতে হবে : ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী

এস এম সাইফুল ইসলাম : সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে পবিত্র কুরআনে আগুন দেওয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন তাহরীকে খাতমে নুবুওওয়্যাত বাংলাদেশের আমীর মুফতি ড. সাইয়্যেদ মুহাম্মাদ এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী (জৌনপুরী পীর)।

তিনি বলেন, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর শ্রেষ্ঠ মু’জিযা পবিত্র কুরআনুল কারীমে আগুন ধরিয়ে সুইডেনের উগ্রপন্থিরা মুসলমানদের হৃদয়ে রক্তের ক্ষরণ সৃষ্টি করেছে। সুইডেন সরকার যতদিন পর্যন্ত দোষীদেরকে উপযুক্ত শাস্তি না দিবে, ততদিন পর্যন্ত বাংলাদেশে সুইডিশ দূতাবাস বন্ধ করে রাখতে হবে। যদি বাংলাদেশ সরকার এই পদক্ষেপ নিতে অপারগ হয়, তবে বাংলাদেশের মুসলমান রাজপথে নেমে আসতে বাধ্য হবে।

আজ সোমবার (২৪ জানুয়ারি) নারায়ণগঞ্জ এর আব্বাসী মঞ্জিল জৌনপুর দরবার শরীফের প্রাঙ্গণে “সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় পবিত্র কুরআনুল কারীমে অগ্নি সংযোগের নিন্দা ও প্রতিবাদে তাহরীকে খাতমে নুবুওয়্যাত বাংলাদেশের উদ্যোগে এক মানব বন্ধন” এ এসব কথা বলেন তিনি।

মুফতী এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী বলেন, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে যে নিন্দা প্রকাশ করা হয়েছে তাতে আমরা সন্তুষ্ট নই। সরকারের উচিত, সুইডেনের রাষ্ট্রদূত কে তলব করে রাষ্ট্রীয়ভাবে নিন্দা প্রস্তাব পেশ করা।

জৌনপুরী পীর বলেন, ৫৭ টি মুসলিম রাষ্ট্রের ২০০ কোটি মুসলমান নিয়ে মুসলিম বিশ্ব। আর মুসলিম বিশ্বকে ছাড়া পরাশক্তি চিন্তাও করা যায় না। কুরআনুল কারীম অগ্নি সংযোগ করার মাধ্যমে সুইডেন তার মানচিত্রে আগুন ধরিয়েছে। এমন একদিন আসবে ইসলামপন্থীরা সুইডেন বিজয় করে ইসলামী শরিয়াহ আইন বাস্তবায়ন করবে এবং এসকল কুখ্যাত উগ্রপন্থীদের কে মৃত্যুদন্ডের শাস্তি কার্যকর করবে ইনশাআল্লাহ।

জাতীসংঘের নিশ্চুপ ভূমিকা নিয়ে ড. আব্বাসী বলেন- এটি একটি খ্রিস্টান ক্লাব। এর মাধ্যমে মানবাধিকার বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না। তিনি প্রশ্ন করে বলেন- কেন সুইডেনের প্রতিনিধি কে তলব করে জাতি সংঘ প্রতিবাদ করে নাই তা মুসলিম বিশ্ব জানতে চায়।

এই ব্যাপারে ইসলামপন্থী রাজনীতিবিদগণের ভূমিকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কুরআনুল কারীমের বিরুদ্ধে এই ন্যাক্কারজনক আচরণের পরেও আপনারা চুপ কেন? মনে রাখতে হবে বাংলাদেশের মুসলমানদের বাদ দিয়ে ক্ষমতায় যাওয়াও যায় না, থাকাও যায় না।

মানব বন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন তাহরিকে খাতমে নুবুওয়্যাত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় মহাসচিব মাওলানা আরিফুর রহমান, মাওলানা বারাতুল ইসলাম, মাওলানা গোলাম মোস্তফা, মাওলানা শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

spot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img