বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২১

প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী পাপুলকে দেশে আনা হবে, বলছে দুদক

দুর্নীতি দমন কমিশন জানিয়েছে, প্রয়োজন হলে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী পাপুলকে দেশে আনার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কুয়েতে বিচারের মুখোমুখি লক্ষ্মীপুরের সংসদ সদস্য কাজী শহীদ ইসলাম পাপুলের বিরুদ্ধে দেশেও অর্থপাচারের মামলা রয়েছে।

তবে আইনজীবীরা বলছেন, পারস্য উপসাগরীয় দেশটিতে বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত পাপুলকে দেশে আনা সম্ভব নয়।

মানবপাচার, অর্থপাচার, শ্রমিক শোষণ, ঘুস প্রদান ও ভিসার অবৈধ লেনদেনের দায়ে দেশটিতে বিচারের মুখোমুখি লক্ষ্মীপুরের এই স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য। কুয়েতের আইন অনুযায়ী, অভিযোগ প্রমাণ হলে পাঁচ থেকে দশ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে তার।

এরমধ্যেই প্রায় দেড়শ কোটি টাকা অর্থপাচারের দায়ে পাপুল এবং তার স্ত্রী, কন্যা ও শ্যালিকার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

মো. মোজাম্মেল হক খান কমিশনার (অনুসন্ধান), দুর্নীতি দমন কমিশন জানান, তদন্ত কর্মকর্তা যদি মনে করেন তাকে আটক করা প্রয়োজন তাহলে সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক ব্যাবস্থা নেয়া হবে। মামলার প্রয়োজনে তাকে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী দেশে আনা হবে।

দুর্নীতি দমন কমিশন এর আইনজীবী খুরশীদ আলম খান আইনী প্রক্রিয়া বিষয়ে বলেন, পাপুলকে দেশে আনা সম্ভব, তবে কুয়েতে বিচার শেষ হওয়ার আগে নয়। সেক্ষেত্রে দেশে অর্থপাচারের মামলায় তাকে পলাতক দেখিয়ে বিচার চলবে।

তিনি আরও বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশন সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বা ইন্টারপোলের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকার কুয়েত সরকার কে তার অবস্থান জানাবে। তখন কুয়েত সরকার যেভাবে রেসপন্স করবে সেইভাবে ওই সময় ওই অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img