রবিবার, মার্চ ৭, ২০২১

অনলাইন নিউজ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে ভারত সরকার

অনলাইন সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে ভারত সরকার। দেশটির অনলাইন নিউজ পোর্টাল, নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন প্রাইম ভিডিও এবং হটস্টারের মতো কন্টেন্ট সরবরাহকারীদের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিতে একটি আদেশ জারি করা হয়েছে।

গত সোমবার প্রেসিডেন্ট রাম নাথ কোবিন্দের স্বাক্ষর করা আদেশটি জারি করা হয়। সরকারের এই নতুন নিয়ম ফেসবুক, টুইটার ও ইন্সটাগ্রামের মতো সামাজিক যোগাযোগের প্লাটফর্মের জন্যও প্রযোজ্য হবে।

নতুন এই নিয়মের ফলে অনলাইন প্লাটফর্মে চলচ্চিত্র, অডিও-ভিজ্যুয়াল এবং নিউজ ও সমসাময়িক বিষয়ের ওপর নির্মিত কন্টেন্টগুলো ভারতের মন্ত্রণালয়ের অধীনে আসবে।

গত মাসে এক পিটিশনের জবাবে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট একটি স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার মাধ্যমে ডিজিটাল প্লাটফর্মগুলোকে ওপর থেকে নিয়ন্ত্রণ করতে সরকারকে নির্দেশ দেয়। ভারতের শীর্ষ আদালত এই আদেশ তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় এবং ইন্টারনেট ও মোবাইল অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্ডিয়াকে পাঠিয়ে দেয়।

এর আগে পৃথক এক মামলায় ভারতের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় ডিজিটাল প্লাটফর্ম নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজনের কথা জানিয়ে শীর্ষ আদালতকে এজন্য অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে একটি গঠনের অনুরোধ জানায়।

অনলাইন প্লাটফর্মের ডিজিটাল কন্টেন্ট নিয়ন্ত্রণে এতোদিন ভারতে কোনও আইন কিংবা স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা ছিল না। প্রিন্ট মিডিয়া দেখভালের দায়িত্ব রয়েছে প্রেস কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ার এবং নিউজ চ্যানেলগুলো পর্যবেক্ষণের দায়িত্ব নিউজ ব্রডকাস্টার অ্যাসোসিয়েশনের (এনবিএ)।

কী রয়েছে সেই আইনে?

২০১৮ সালের প্রস্তাবিত ওই আইনে বলা হয়েছে, ইউটিউব, ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম, বাইট ড্যান্স, টিকটকের মতো অ্যাপে কোনও পোস্ট সম্পর্কে ভারতীয় গোয়েন্দারা তথ্য চাইলে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তার উৎস, অর্থাৎ প্রথম কে পোস্ট বা শেয়ার করেছিল, সেটা জানাতে হবে। এই সব সংস্থাগুলোকে অন্তত ১৮০ দিন অর্থাৎ ৬ মাসের সব তথ্য রাখতে হবে, যাতে তদন্তের প্রয়োজনে সেগুলো উদ্ধার করা যায়। এর পাশাপাশি এক জন গ্রিভান্স অফিসার নিয়োগ করতে হবে, যিনি ইউজারদের অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবেন এবং ভারতের তদন্তকারী সংস্থাগুলো ও সরকারের সঙ্গে সমন্বয়ের কাজ করবেন।

হোয়াটসঅ্যাপের মূল সংস্থা ফেসবুক গোড়া থেকেই এর বিরোধিতা করে আসছে। তাদের বক্তব্য, হোয়াটসঅ্যাপে সব কিছুতেই এন্ড টু এন্ড সাবস্ক্রিপশন প্রযুক্তি রয়েছে। যার অর্থ, শুধুমাত্র দুই প্রান্তের দু’জন ব্যবহারকারীই তাদের মধ্যে আদানপ্রদান করা কল, মেসেজ, ছবি বা ভিডিওর তথ্য পাবেন। তৃতীয় কোনও ব্যক্তি, এমনকি হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষও সেগুলোর তথ্য পাবে না। ভারত সরকারের এই আইন মানলে গ্রাহকদের সেই সুরক্ষা বিঘ্নিত হবে।

তবে আইন বিশেষজ্ঞদের মতে, আইন কার্যকরহলে সেটা না মেনে আর কোনও উপায় থাকবে না সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থাগুলোর। আইন মানতে বাধ্য হবে। তবে বিদেশি ব্যবহারকারীরাও এই আইনের আওতায় আসবে কিনা, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

শেয়ার: