প্রথমবারের মতো আফগানিস্তান সফরে যাচ্ছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান

মার্কিন মদদপুষ্ট আফগান সরকারের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে কাবুল সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। আফগান শান্তি প্রক্রিয়ায় পাকিস্তান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে, এবং জো বাইডেন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেয়ার পর এ বিষয়ে আরও আলোচনা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সফরের দিনক্ষণ এখনও ঘোষণা করা হয়নি তবে মার্কিন মদদপুষ্ট আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভাষ্যমতে আগামী সপ্তাহে এই সফর হতে পারে।

২০১৮ সালের আগস্টে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়ার পর এটাই হবে ইমরান খানের প্রথম আফগানিস্তান সফর।

এই মুহূর্তের সার্বিক পরিস্থিতি

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আফগানিস্তান ও ইরাক থেকে আরও মার্কিন সেনাদের সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রতিরক্ষা দফতরের তথ্য অনুযায়ী এই সিদ্ধান্তের ফলে আফগানিস্তানে সেনা সংখ্যা ৪৫০০ থেকে ২৫০০তে নেমে আসবে। অবশ্য বাইডেনের টিম থেকে এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করা হয়নি।

তালেবানের সাথে আমেরিকার চুক্তি অনুযায়ী ২০২১ সালের মে মাসের মধ্যে সব মার্কিন সেনাকে সরিয়ে নেয়া হবে। কিন্তু তত্ত্বগত দিক থেকে তালেবানদেরকে এ জন্য কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। সেগুলো এখনও পূরণ হয়নি বলেই মনে হয়।

আফগানিস্তানের মার্কিন মদদপুষ্ট সাবেক জাতীয় সরকারের সাবেক ডেপুটি মন্ত্রী আজমল শামস বলেছেন, “আফগান সরকার হয়তো ভাবছে যে, বাইডেনের জয়ের মাধ্যমে মার্কিন নীতিতে কিছু পরিবর্তন আসতে পারে। কিন্তু বাইডেন যখন ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন, তখন তার দৃষ্টিভঙ্গি ট্রাম্পের নীতির চেয়ে আলাদা কিছু ছিল না”।

চলতি বছরের শুরুর দিকে বাইডেন ফরেন অ্যাফেয়ার্সে লিখেছেন, “অনন্ত যুদ্ধ বন্ধ করার সময় পার হয়ে গেছে, যে যুদ্ধের কারণে আমেরিকাকে প্রচুর রক্ত আর অর্থ দিতে হয়েছে”। তিনি আরও লিখেন: “আফগানিস্তান ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে আমাদের সেনাদের বড় অংশকে ফিরিয়ে আনা দরকার।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তার সফরে মার্কিন মদদপুষ্ট কাবুল সরকারের প্রেসিডেন্ট ঘানি, আফগানিস্তানের হাই পিস কাউন্সিলের প্রধান ড. আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ এবং অন্যান্য কর্তৃপক্ষের সাথে বৈঠক করবেন এবং আফগান নেতৃত্বাধীন ও আফগান কর্তৃত্বাধীন শান্তি প্রক্রিয়ার ব্যাপারে পাকিস্তানের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেন।

সূত্র: জিভিএস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *