মঙ্গলবার, নভেম্বর ৩০, ২০২১

হক কথা বলতে আলেমগণ কারো রক্তচক্ষু ভয় করেন না: আল্লামা নুরুল ইসলাম জেহাদী

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নায়েবে আমীর, নাজিরহাট মাদরাসার মজলিসে শূরার সদস্য ও ঢাকা মাখযানুল উলুম মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক আল্লামা নুরুল ইসলাম জেহাদী বলেছেন,ওলামায়ে কেরাম ওরাসাতুল আম্বিয়া তথা নবীগণের উত্তরসূরী। নবীগণের দায়িত্ব ছিলো ইসলামের সুমহান বানী উম্মতের সামনে তুলে ধরা। নবী রাসুলগণ আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিলকৃত কোন বিধান উম্মতের উপর চাপিয়ে দেননি। শত বাধা-বিপত্তির মধ্যেও উম্মতের সামনে হক কথার দাওয়াত পেশ করেছেন। যারা গ্রহণ করেছে তারা উভয় জাহানেই সফলকাম হয়েছেন। নবীগণের উত্তরসূরী হিসেবে ওলামায়ে কেরামের উপরও সেই দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে। তাই ওলামায়ে কেরাম হক কথা জাতীর সামনে তুলে ধরতে কারো রক্তচক্ষু ভয় করেন না।

গতকাল ২৪ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বাদ ইশা চট্টগ্রাম নাজিরহাট নাছিরুল উলুম বড় মাদরাসার বার্ষিক মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে এসব কথা বলেন তিনি।

আল্লামা নুরুল ইসলাম জেহাদী আরো বলেন,নমরুদ হযরত ইব্রাহিম আঃ এর সাথে চ্যালেঞ্জ করে সফল হতে পারেনি, ফিরআউন হযরত মুসা আঃ এর সাথে চ্যালেঞ্জ করে সফল হয়নি আজকের দিনেও যারা আলেমদেরকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিচ্ছে তারাও সফলকাম হতে পারবে না,ইনশাআল্লাহ। নবীগণের সাথে বেআদবি করার ফলে নমরুদ ফিরআউনদের যেই অশুভ পরিণতি হয়েছিল আজ যারা ওলামায়ে কেরামের সাথে বেআদবি করেছে তাদেরও সেই পরিণতি বরণ করতে হবে।

তিনি বলেন, বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ‘তোমাদের কেউ যদি কোনো খারাপ কাজ বা বিষয় দেখে তাহলে সে যেন হাত দিয়ে তা পরিবর্তন করে দেয়, যদি তা করতে অপারগ হয় তাহলে যেন মুখ দিয়ে তার প্রতিবাদ করে, যদি তাও করতে সক্ষম না হয় তাহলে যেন অন্তর দিয়ে তা ঘৃণা করে, আর এটাই হচ্ছে ঈমানের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বলতম স্তর।

‘আমাদের হাতে রাষ্ট্রীয় শক্তি নেই তাই আমরা হাতে বাঁধা প্রদান করতে যাবো না।কিন্তু মুখে বলার শক্তি আমাদের রয়েছে তাই হক কথা বলতে আমরা কখনো কুণ্ঠাবোধ করবো না। হক বলতে সরকার প্রশাসন কারো রক্তচক্ষু আমরা ভয় করিনা। ওলামায়ে কেরাম যদি হক কথা না বলেন,দ্বীনের সঠিক কথা উম্মাতের নিকট না তুলে না ধরেন তাহলে এর জন্য আল্লাহ তায়া’লার দরবারে জবাবদিহি করতে হবে। তাই ওলামায়ে কেরাম ভাস্কর্য ইস্যুতে ইসলামের বিধান কি তা দেশ ও জাতীর সামনে তুলে ধরেছেন। এখন তা মানা না মানা সরকার সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বিষয়।’

দুইদিন ব্যাপী মাহফিলের প্রথম দিনে গতকাল অন্যান্যদের মধ্যে আরো বয়ান করেন,মুফতী নজরুল ইসলাম কাসেমী,ডক্টর আ.ফ.ম. খালেদ হোসেন,মাওলানা হাবিবুল্লাহ মাহমুদ কাসেমী,মাওলানা নাসির উদ্দীন মুনীর, মুফতী ফখরুদ্দিন প্রমুখ।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img