শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২৩

গুজরাটে জয় পেয়েছে বিজেপি

টানা সপ্তমবার গুজরাটে ক্ষমতায় এসেছে ভারতের উগ্র হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপি। বিধানসভার মোট ১৮২ আসনের মধ্যে কংগ্রেসকে ১৭–তে নামিয়ে তারা একাই পেল ১৫৬টি। রাজ্যের ভোট–ইতিহাসে এত আসন আজ পর্যন্ত কোনো দল পায়নি। পার্বত্য এ রাজ্যে বিজেপিকে হারিয়ে ক্ষমতা দখল করে নিল কংগ্রেস। এ সাফল্য হীনবল ও হতোদ্যম কংগ্রেসের কাছে একঝলক তৃপ্তির বাতাস।

এদিকে হারের খবরে হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম ঠাকুর দুপুরেই জানিয়ে দেন জনতার রায় মেনে পদত্যাগ করছেন।

গুজরাটে বিজেপির জয়ের রেকর্ডের পাশে কংগ্রেসও রেকর্ড করল সবচেয়ে কম আসন পাওয়ার। রাজ্য গঠনের পর এত খারাপ ফল কংগ্রেস কখনো করেনি। এবারের ভোটে কংগ্রেস পেল মাত্র ১৭টি আসন। বিজেপি যেখানে প্রায় ৫৫ শতাংশ ভোট পেয়েছে, কংগ্রেসের প্রাপ্ত ভোটের হার সেখানে কমে হয়েছে সাড়ে ২৬ শতাংশ। নির্বাচন কমিশনের রিপোর্ট দেখাচ্ছে, আম আদমি পার্টি (আপ) পাঁচটি মাত্র আসন জিতলেও তাদের প্রাপ্ত ভোটের হার ১৩ শতাংশের মতো। গুজরাটে আসন জেতার মধ্য দিয়ে আপ জাতীয় দলের মর্যাদাও পেয়ে গেল।

হিমাচল প্রদেশের মোট ৬৮ আসনের মধ্যে কংগ্রেস পেয়েছে ৩৯টি, যা গতবারের তুলনায় ১৮টি বেশি। সমসংখ্যক আসন হারিয়ে বিজেপি জিতেছে ২৬টি। ৩ কেন্দ্র জিতেছেন দুই প্রধান দলের বিক্ষুব্ধরা। প্রতি পাঁচ বছর শাসক বদলের যে ঐতিহ্য রাজ্যটি ধরে রেখেছিল, বিজেপির প্রবল প্রচেষ্টা সত্ত্বেও তার অন্যথা হলো না। রাজ্যবাসী খারিজ করে দিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ‘ডাবল ইঞ্জিন’ তত্ত্ব।

মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম ঠাকুর দুপুরেই জানিয়ে দেন জনতার রায় মেনে পদত্যাগ করছেন। কংগ্রেসের কে মুখ্যমন্ত্রী হবেন, তা নিয়ে চলছে জোর জল্পনা। দাবিদার একাধিক। হিমাচল প্রদেশ জয় কংগ্রেসের পক্ষে যতটা মধুর, ততটাই শ্লাঘার বিষয় প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর। এবারের ভোটে তিনিই ছিলেন এ রাজ্যে দলের কান্ডারি।

spot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img