মঙ্গলবার, নভেম্বর ৩০, ২০২১

ভয়ংকর অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান বানালো পাকিস্তান

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


দ্বৈত আসন বিশিষ্ট জেএফ-১৭ থান্ডারব্লক (২) যুদ্ধবিমান নিজেদের বিমান বহরে যুক্ত করার পাশাপাশি একই ফর্মুলার উন্নত ভার্সন জেএফ-১৭ থান্ডারব্লক (৩) উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু করেছে পাকিস্তান বিমানবাহিনী পিএএফ।

বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) আনুষ্ঠানিক ভাবে জেএফ-১৭ থান্ডারব্লক(২) ‘র অন্তর্ভুক্তি ও ব্লক (৩) ‘র উৎপাদন প্রক্রিয়া আরম্ভ উপলক্ষে পাকিস্তান অ্যারোনটিকাল কমপ্লেক্সে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে পাক এয়ারফোর্স।

অনুষ্ঠানে, পাক বিমানবাহিনীর যুদ্ধাভিযান, প্রশিক্ষণ সক্ষমতা বৃদ্ধি ও আকাশপথে পার্শ্ববর্তী প্রতিদ্বন্দ্বী রাষ্ট্র ভারতের যে কোনো ধরণের হুমকি মোকাবিলায় পাক-বিমানবাহিনীর আধুনিকায়নের অংশ হিসাবে জেএফ-১৭ থান্ডারব্লক (২) যুদ্ধবিমানগুলো ডিজাইন করা হয়েছে উল্লেখ করে পাক এয়ারফোর্স প্রধান চীফ মার্শাল মুজাহিদ আনওয়ার বলেন, দেশীয় ফর্মুলায় তৈরি এই যুদ্ধ সরঞ্জামের কল্যাণে পিএএফের ফাইটার পাইলটদের উন্নত যুদ্ধ প্রশিক্ষণ আরো বৃদ্ধি যেমন পাবে, তেমনি ইন্ডিয়ান এয়ার ফোর্সের যুদ্ধবিমানের তুলনায় পাক এয়ারফোর্সের যুদ্ধবিমানের যে ঘাটতি রয়েছে তাও কিছুটা লাঘব হবে।

কেনোনা ভারতের ২ সহস্রাধিক এয়ারক্রাফটের বিপরীতে এয়ারক্রাফট ও হেলিকপ্টার সমেত পাকিস্তান বিমানবাহিনীর সক্ষমতা সর্বসাকুল্যে মাত্র ৯ শতাধিক!

নির্ধারিত সময়ের আগেই আধুনিক যুদ্ধবিমান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করায় পাকিস্তান অ্যারোনটিকাল কমপ্লেক্স পিএসি ও চীনা ন্যাশনাল অ্যারো- টেকনোলজি ইমপোর্ট এন্ড এক্সপোর্ট করপোরেশন সিএটিআইসিকে অভিনন্দন জানিয়ে চীফ মার্শাল বলেন, পাক এয়ারফোর্সের বিমান বহরে জেএফ-১৭ থান্ডারব্লক (২)‘র অন্তর্ভুক্তি ও তার উন্নত ভার্সন থান্ডারব্লক (৩) ‘র উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু করা, পাক এয়ারফোর্সের জন্য একটি ঐতিহাসিক মাইলফলক এবং দুর্দান্ত সাফল্যের বিষয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে দেশটির বিমানবাহিনীর প্রধান চীফ মার্শাল মুজাহিদ আনওয়ার এবং পাকিস্তানে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত নংরং এর উপস্থিতিতে পাক ও চীন এভিয়েশন কর্পোরেশন কর্তৃক যৌথভাবে নির্মিত মোট ১৪টি জেএফ-১৭ থান্ডারব্লক (২) যুদ্ধবিমান, পাক এয়ারফোর্স পিএএফের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠান শেষে ফরাসি রাফায়েলের মোকাবিলায় যুদ্ধে বহুবিধ ভূমিকা পালন করার ক্ষমতা সম্পন্ন জেএফ-১৭ থান্ডারব্লকের উন্নত ভার্সন ব্লক থ্রির উৎপাদন কার্যক্রমেরও উদ্বোধন করেন পাক এয়ার চীফ ও চীনা রাষ্ট্রদূত নংরং।

অপরদিকে পাক নৌবাহিনী, ভূমি থেকে সরাসরি আকাশের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম এমন মিসাইলের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে বলেও জানা যায়।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ৩৬টি অত্যাধুনিক রাফায়েল যুদ্ধবিমান ইন্ডিয়ান এয়ারফোর্সে এসে যুক্ত হয়েছে, যার জন্য ৪ বছর আগে ফরাসি প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক ডাসল্ট এভিয়েশনের সাথে তারা ৭.৮ বিলিয়ন ইউরোর (৯.২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার) প্রতিরক্ষা চুক্তি করেছিল।

পাকিস্তান বিমানবাহিনী আকাশপথে ভারতের এই হুমকি মোকাবিলায় তাদের কাছে থাকা জেএফ-১৭ ব্লক(১) এর উন্নত ভার্সন তৈরির লক্ষ্যে চীনের সাথে যৌথভাবে ব্লক (২) ও ব্লক (৩) উৎপাদনের প্রক্রিয়া শুরু করেছিল। সেই উৎপাদন প্রক্রিয়ার ফলে তাদের বিমান বহরে সর্বশেষ যুক্ত হয়েছে জেএফ-১৭ এর ব্লক (২)। তাছাড়া, ব্লক (৩) এর উৎপাদন এখন প্রক্রিয়াধীন।

২০০৯ সাল থেকে পাক এভিয়েশন কর্পোরেশন পিএসি, পাক এয়ারফোর্সের জন্য জেএফ-১৭ ব্লক (১) এবং ব্লক (২) মিলিয়ে শতাধিক যুদ্ধবিমান দেশে উৎপাদন করে দিয়েছে। তবে সিঙ্গেল ইঞ্জিন বিশিষ্ট বহুবিধ ভূমিকা পালনে সক্ষমতা সম্পন্ন যুদ্ধবিমানগুলো তারা চীনের সাথে মিলে যৌথভাবে তৈরি করেছে।

১৩৫০ কি.মি বা ৮৪০ মাইলের বিশাল ব্যাসার্ধ জুড়ে আক্রমণ করার ক্ষমতা সম্পন্ন জেএফ-১৭ থান্ডারব্লক(২) বিমানটি ৩৬৩০ কেজি (৮০০০ পাউন্ড) অস্ত্র সরঞ্জাম বহনের পরেও ঘন্টায় ২২০০ কি.মি.(১৩৭০ মাইল) গতিবেগে উড়ে বেড়াতে সক্ষম।

সূত্র: ইয়েনি শাফাক।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img