শনিবার, অক্টোবর ২৩, ২০২১

কাশ্মীরসহ ভারতের ৮ রাজ্যে হিন্দুদের ‘সংখ্যালঘু’ মর্যাদা দিতে পারে বিজেপি সরকার

ভারতের ৮ টি রাজ্যে হিন্দুদের সংখ্যালঘু মর্যাদা দেওয়ার বিবেচনা করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। দেশটির হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকার এ ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করছে। গণমাধ্যমে প্রকাশ, লাক্ষাদ্বীপ, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, মেঘালয়, কাশ্মীর, অরুণাচল প্রদেশ, মণিপুর এবং পাঞ্জাবে হিন্দুরা সংখ্যালঘু মর্যাদা পেতে পারেন।

১৯৯২ সালে হিন্দু সন্ত্রাসীদের হাতে অযোধ্যায় বাবরী মসজিদ শহীদ হওয়ার পরে মুসলিম সম্প্রদায়কে খুশি করার উদ্দেশ্যে কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন করা হয়েছিল। ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত সরকারি গেজেটে পাঁচটি ধর্মীয় সম্প্রদায়- মুসলিম, খ্রিস্টান, শিখ, বৌদ্ধ এবং পার্সীদের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় হিসেবে বিজ্ঞাপিত করা হয়েছিল। এ সংক্রান্ত ২(গ) ধারায় বলা হয় যে, কেন্দ্রীয় সরকার যাদেরকে সংখ্যালঘু হিসাবে বিবেচিত করবে তারাই সংখ্যালঘু হবে।

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে আটটি রাজ্যে হিন্দুরা সংখ্যালঘু। এগুলো হল- লাক্ষাদ্বীপ ২.৫ শতাংশ, মিজোরাম ২.৭৫ শতাংশ, নাগাল্যান্ড ৮.৭৫ শতাংশ, মেঘালয় ১১.৫৩ শতাংশ, জম্মু ও কাশ্মীর ২৮.৪৪ শতাংশ, অরুণাচল প্রদেশ ২৯ শতাংশ, মণিপুর ৩১.৩৯ শতাংশ এবং পাঞ্জাবে ৩৮.৪০ শতাংশ।

উল্লেখিত ওই ৮ রাজ্যে হিন্দুদের সংখ্যালঘু মর্যাদা দেওয়ার দাবি অবশ্য অনেকদিন ধরেই জানানো হচ্ছে হিন্দুত্ববাদী মহল থেকে। ২০১৭ সালের অক্টোবরে সুপ্রিম কোর্টে এ সংক্রান্ত এক আবেদন জানিয়েছিল হিন্দুদত্ববাদী বিজেপি নেতা অশ্বিনী উপাধ্যায়। তার দাবি, ওই সকল রাজ্যে হিন্দুদের সংখ্যালঘুদের মর্যাদা দেওয়া উচিত এবং সংখ্যালঘুদের দেওয়া অধিকারও তাদের পাওয়া উচিত। তিনি ১৯৯৩ সালে জারি করা কেন্দ্রীয় সরকারের প্রজ্ঞাপনকেও সম্পূর্ণ অসাংবিধানিক ঘোষণা করার দাবি জানান। একইসঙ্গে, সুপ্রিম কোর্টের কাছে আবেদন তিনি ওই রাজ্যগুলোতে হিন্দুদের সংখ্যালঘু হিসেবে ঘোষণার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারকে নির্দেশ দেওয়ার আবেদন জানিয়েছিলেন।

২০১৭ সালের নভেম্বরে সুপ্রিম কোর্ট অবশ্য হিন্দুদের সংখ্যালঘু মর্যাদা চেয়ে আবেদনের শুনানি করতে অস্বীকার করেছিল। আদালত আবেদনকারীকে ওই বিষয়ে সংখ্যালঘুদের জন্য জাতীয় কমিশনের কাছে যেতে বলেন। এরপরে আবেদনকারী তার আবেদন প্রত্যাহার করে নেয়।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img