ইসরাইলকে বিশ্বাসঘাতক সুদানের স্বীকৃতির বিরুদ্ধে হামাসের ক্ষোভ

ফিলিস্তিনের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের পর ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার মাধ্যমে স্বীকৃতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আরব দেশ সুদান।

গত শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল ও সুদানের অন্তর্বর্তী সরকার আলাদা বিবৃতি দিয়ে স্বীকৃতি দেওয়ার বিষয়টি জানিয়েছে।

দখলদার ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলকে বিশ্বাসঘাত সুদানের স্বীকৃতির বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস। এই তথাকথিত চুক্তিকে “বিশ্বাসঘাতকতা” হিসেবে আখ্যায়িত করেছে ফিলিস্তিন নেতৃবৃন্দ।

হামাস বলেছে, এই চুক্তি কেবল ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রীকেই উপকৃত করেছে। এটি “রাজনৈতিক পাপ”। এই চুক্তি ফিলিস্তিন জনগণ এবং তাদের ন্যায্য অধিকারের জন্য ক্ষতিকর, এমনকি সুদানের জাতীয় স্বার্থকেও ক্ষতিগ্রস্ত করবে।”
সম্পর্ক স্বাভাবিক করার মাধ্যমে ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলকে সুদানের স্বীকৃতির বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিবাদ চলছে দেশটিতে। সেদেশের আলেমদের সর্বোচ্চ সংস্থা, বিরোধী দল থেকে শুরু করে সাধারণ জনগণ এর তীব্র প্রতবাদ জানাচ্ছে।

এদিকে সুদানের অন্তর্বর্তী সামরিক সরকারের ন্যাক্কারজনক এই সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা ও বিক্ষোভ করছে সুদানবাসী।দেশটির অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল উম্মাহ’র নেতা ও দুইবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী সাদিক আল-মাহদি। তিনি তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের পরিণতির ব্যাপারে সামরিক সরকারকে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন।

সুদানি সাংবাদিকদের প্রধান সংগঠনের প্রধান আস-সাদিক আর-রুজাইকি বলেছেন, সুদানের জনগণ ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের বিরোধী।

এর আগে সাম্প্রতিক সময়ে মার্কিন চাপের মুখে তেল আবিবের সঙ্গে খার্তুমের সম্পর্ক স্থাপনের গুঞ্জন শুরু হওয়ার পর সুদানের আলেমদের সংগঠন ‘মাজমায়ে ফিকহে ইসলামি’ তেল আবিবের সঙ্গে যেকোনো ধরনের সম্পর্ক স্থাপনকে ‘হারাম’ বলে ফতোয়া দিয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *