বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২

নিওম দ্যা লাইন | সভ্যতার নতুন বিপ্লবে সৌদি

‘নিওম’ মরুর বুকে কাঁচের প্রাচীরে আচ্ছাদিত একটি শহর। থাকবে না কোনো দূষণ, যানজট ও কোনো ধরনের বিকর্ষণ শক্তি। সবকিছুই নিয়ন্ত্রিত হবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে। প্রযুক্তির কল্যাণে মুহুর্তেই হাজির হবে জীবন চাহিদার সবকিছু। থাকবে থ্রিডি নকশায় স্থাপিত কৃত্রিম দৃশ্য ও প্রকৃতি। হু হু করে আকাশপথে উড়ে বেড়াবে যানবাহন আর স্থলে চলবে শুধুমাত্র সুপারসনিক ট্রেন। এমনকি পৃথিবীর চিরচেনা মধ্যাকর্ষন শক্তিও থাকবে শূন্যের কোঠায় ফলে যেকোনো বস্তু তার আপন ভরের সাথে সাথে বিকর্ষণ শক্তিও হারাবে; ভেসে বেড়াবে শূন্যে!

সোমবার ২৫ জুলাই সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মুহাম্মাদ বিন সালমান নিওম প্রজেক্টের পরিকল্পনা ও ডিজাইন ঘোষণা করেন। এসময় তিনি বলেন, বিশ্বের আশ্চর্য সমূহের অন্যতম হতে যাচ্ছে নিওম।

তিনি আরো বলেন, ‘দ্যা লাইন’ দুষণমুক্ত স্বাস্থ্যসম্মত এমন একটি নগর ব্যবস্থা যা বিশ্ব এর আগে দেখেনি।

নিওম সৌদি আরবের তাবুক প্রদেশে অবস্থিত। এর এক দিকে আকাবা উপসাগর এবং আরেক দিকে লোহিত সাগর অবস্থিত। নিওম একটি সুদীর্ঘ লাইন সিটি যার দৈর্ঘ্য ১৭০ কিলোমিটার, উচ্চতা ৫০০ মিটার এবং প্রস্থ ২০০ মিটার। এতে ৯০ লাখ মানুষ বসবাস করতে পারবে। এর বাজেট ধরা হয়েছে ৫০০ বিলিয়ন ইউএস ডলার। এর মাধ্যমে ৩ লাখ ৮০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান তৈরি হবে। এটি সৌদি আরবের মোট জিডিপিতে প্রতি বছর ৪৫ বিলিয়ন ইউএস ডলার যুক্ত করবে।

৩ স্তর বিশিষ্ট শহর: নিওম এ ৩টি স্তর থাকবে। ১ম স্তরে জনসাধারণের চলাচল ও প্রাকৃতিক পরিবেশে আবাসন ব্যবস্থা থাকবে। ২য় স্তরে অফিস ও যাবতীয় সুযোগ সুবিধা থাকবে। ৩য় স্তর একদম নিচে হাইস্পিড ট্রেন ব্যবস্থা থাকবে।

দূষণমুক্ত এলাকা: নিওমে কোনো গাড়ি, সড়ক এবং দূষণ থাকবে না। শুধু প্রাকৃতিক পরিবেশে নাগরিকদের হাটার জন্য রাস্তা থাকবে। যাতায়াত ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ট্রেনের উপর নির্ভর করবে। এখানে হাইস্পিড ট্রেন চলাচল করবে, যার গতি হবে ঘন্টায় ৫০০ কিলোমিটারের কাছাকাছি। ১৭০ কিলোমিটারের এলাকায় এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে যেতে সময় লাগবে মাত্র ২০ মিনিট। এতে কোনো বাঁক থাকবে না, যার কারণে ট্রেনের গতি কমাতে হবে না।

স্বয়ংক্রিয় বিদ্যুৎ ও পানি ব্যবস্থা: এখানে বিদ্যুৎ ও পানি উৎপাদনে কোনো জ্বালানি খরচ করতে হবে না। তাই পরিবেশ থাকবে দূষণমুক্ত ও স্বাস্থ্য সম্মত। বিদ্যুৎ সম্পূর্ণ সোলার সিস্টেমে উৎপাদন হবে। এবং সাগরের পানি সরাসরি এখানে এনে বাষ্প করে ফুটানো হবে।

স্বয়ংক্রিয় সেবা: এখানে বসবাসরত নাগরিকরা নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল জিনিসপত্র অটোমেটিক সিস্টেমে ২-৫ মিনিটের মধ্যে হাতের নাগালে পাবে৷ কৃষি, খামার সহ যাবতীয় দ্রব্য এখানেই উৎপাদন করা হবে।

থ্রিডি প্রযুক্তি: নিওমের সবকিছু থ্রিডি প্রযুক্তিতে ডিজাইন করা হবে। এরজন্য বিশ্বের সেরা আর্কিটেকচারদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। থ্রিডি ও প্রকৃতির সংমিশ্রণে একটি অসাধারণ দৃশ্য স্থাপন করা হবে।

জিরো গ্র‍্যাভিটি: নিওমে বিকর্ষণ শক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। সাধারণত কোনো বস্তু উপরে নিক্ষেপ করা হলে স্বাভাবিকভাবে তা নিচের দিকে ধাবিত হয়। এটাকে বিকর্ষণ শক্তি বলে। এখানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ব্যবহার করে এমন পরিবেশ তৈরি করা হবে যে কোনো বস্তু শুন্যে আপন স্থানে বহাল থাকবে। বিশ্বে এই প্রথম নিওমে জিরো গ্র‍্যাভিটি চালু হচ্ছে।

কাচের দেয়াল: ১৭০ কিলোমিটারের পুরো স্থাপনাটির বাহিরের অংশে স্বচ্ছ কাচ দিয়ে ঢেকে দেওয়া হবে। এতো দীর্ঘ ও সুউচ্চ স্থাপনাটিকে নিঃসন্দেহে কাচের দেয়াল বলা যায়।

পাহাড় ও ঐতিহাসিক স্থাপনা: নিওমের ১৭০ কিলোমিটার এলাকায় যেসমস্ত পাহাড় ও ঐতিহাসিক স্থাপনা রয়েছে সেগুলোকে আপন স্থানে বহাল রেখে আধুনিক ডিজাইনে সুসজ্জিত করা হবে। এগুলো বিনোদন কেন্দ্র ও রিসোর্ট হিসেবে ব্যবহার করা হবে।

বিমানবন্দর: নিওমে নিজস্ব বিমানবন্দর তৈরি করা হয়েছে। এটি পৃথিবীর কেন্দ্রে অবস্থান করায় সারাবিশ্ব থেকে পর্যটকরা খুব সহজেই এখানে আসতে পারবেন।

তথ্য সূত্র : আরব নিউজ, নিওমের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট।
spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img