বুধবার, মে ৩১, ২০২৩

ইস্তানবুল বিজয়ী সুলতান মুহাম্মদ আল ফাতিহের মৃত্যুবার্ষিকী

মাত্র ২১ বছর বয়সী এক যুবক যে কি না বিশ্বের সবচেয়ে সুরক্ষিত শহর কনস্টান্টিনোপল (ইস্তানবুল) বিজয় করে পুরো বিশ্বকে চমকে দিয়েছিলেন, আজ তার মৃত্যুবার্ষিকী।

বিশ্ব বিজেতা বা ফাতিহ সুলতান খেতাব সুলতান মুহাম্মদ আল ফাতিহ ১৪৮১ সনের ৩ মে আজকের এই দিনে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেছিলেন।

নতুন এক অভিযানে যাওয়ার পথে তৎকালীন উসমানীয় সালতানাতের গেবজের নিকটস্থ হুনকারচায়িরি বা তেকফুরচায়িরি এলাকায় মৃত্যু বরণ করেছিলেন তিনি।

মৃত্যুকালে এই বিখ্যাত সুলতান ও সমরবিদের বয়স ছিলো মাত্র ৪৯ বছর।

ঐতিহাসিক বর্ণনায় এই মহান সুলতানের মৃত্যুর পেছনে দু’ধরণের কারণ পাওয়া যায়। প্রথমত, অধিকাংশ ঐতিহাসিকই মনে করেন যে, স্বাভাবিক অসুস্থতার কারণে তার মৃত্যু হয়েছিলো। আবার কেউ কেউ মনে করেন যে বিষক্রিয়ার কারণে অভিযানের যাত্রাপথেই তার মৃত্যু হয়েছিলো। তারা বলেন, বিষক্রিয়া অত্যন্ত ধীরগতির হওয়ায় একজন স্বাভাবিক অসুস্থ ব্যক্তির ন্যায় অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন তিনি। সাধারণ অসুস্থতার ন্যায় পরিলক্ষিত হওয়ায় এতে কারো সন্দেহেরও অবকাশ ছিলো না।

এক্ষেত্রে কে বিষ প্রয়োগ করেছেন তা নিয়েও ঐতিহাসিকদের মাঝে বিরোধ দেখা যায়। ঐতিহাসিকদের কেউ বলেন, ইহুদিধর্ম থেকে ইসলামে ধর্মান্তরিত হওয়া ইয়াকুব নামী এক পাশা তাকে বিষ প্রয়োগ করেছিলো। আবার কেউ বলেন যে, রাজ চিকিৎসকদের অন্যতম, পার্সিয়ান এক চিকিৎসক তাকে বিষ প্রয়োগ করেছিলেন।

তার আমলে উসমানী সালতানাতের রাজধানী এদির্নে থেকে তৎকালীন বিশ্বের সবচেয়ে সুরক্ষিত শহর কনস্টান্টিনোপলে স্থানান্তরিত হয়েছিলো।

এই শহরটির বিজয় ছিলো মূলত হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ভবিষ্যদ্বানীর অংশ।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কনস্টান্টিনোপল বা কুস্তুনতুনিয়া সম্পর্কে বলেছিলেন,
لتفتحن القسطنطينية، فلنعم الأمير أميرها، ولنعم الجيش ذلك الجيش

“ অবশ্যই অবশ্যই তোমরা (মুসলিমরা) কুস্তুনতুনিয়া বিজয় করবে। কতই না উত্তম হবে তার আমীর। আর কতই না উত্তম হবে সেই সেনাদল। ”

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এই ভবিষ্যদ্বাণীতে বর্ণিত উত্তম সেনাদলের অন্তর্ভুক্ত হতে আর নেতৃত্বদানকারী উত্তম আমীর হতে সুলতান মুহাম্মদ আল ফাতিহ এর আগ পর্যন্ত যুগে যুগে সাহাবায়ে কেরাম, তাবেয়ীন ও তাবে তাবেয়ীনরাও কুস্তুনতুনিয়া বিজয়ের জন্য বহু অভিযান পরিচালনা ও তাতে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

এমনকি সাহাবী আবু আইয়ুব আনসারি রাহিমাহুল্লাহও বার্ধক্যে উপনীত ও অসুস্থ হওয়া সত্ত্বেও কুস্তুন্তুনিয়া অভিযানে অংশগ্রহণ করেছিলেন। অভিযানকালে তিনি একজন তাবেয়ীকে বলেছিলেন, এই অভিযানে যদি কুস্তুনতুনিয়া বিজয় না হয় আর আমার ইন্তেকাল হয়ে যায় তবে আমাকে প্রাচীরের নিকটেই দাফন করিও।

এছাড়া সেলজুকদের সবচেয়ে শক্তিশালী সুলতান যিনি মালাজগির্তের যুদ্ধে মাত্র কয়েক হাজার সৈন্য নিয়ে একাই অস্ত্রে সজ্জিত হাজার হাজার সেনা সম্বলিত পুরো খ্রিস্টান বিশ্বের ক্রুসেড জোটকে ধরাশায়ী করেছিলেন, তিনিও কুস্তুন্তুনিয়ায় অভিযান পরিচালনা করেছিলেন। এমনকি তিনি তা বিজয়ও করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে তা আবার হাতছাড়া হয়ে যায়।

পরিশেষে ২১ বছর বয়সী টগবগে যুবক সুলতান মুহাম্মদ আল ফাতিহ যিনি ইসলামী আইন শাস্ত্র, জ্যামিতি, বিজ্ঞান, ভূগোল, সমর বিদ্যাসহ বিভিন্ন বিষয়ে তুমুল পারদর্শী ছিলেন, পৃথিবীর ইতিহাসের অসাধারণ সমর কৌশল দেখিয়ে কুস্তুন্তুনিয়া বা কনস্টান্টিনোপল বিজয় করেছিলেন।

তিনি ৩ দিক দিয়ে সমুদ্র ও পাহাড় দিয়ে সুরক্ষিত কনস্টান্টিনোপল অবরোধের জন্য প্রথমে একটি নৌবাহিনী গড়ে তুলেন। তারপর কনস্টান্টিনোপল দুর্গের অপরাজয়ে দেওয়াল ভাঙ্গতে বিখ্যাত হাঙ্গেরিয়ান/জার্মান কামান নির্মাতা আরবানকে দিয়ে তৎকালীন বিশ্বের সবচেয়ে বড় কামান নির্মাণ করেন। এতে শত্রুরাও ধোকা খেয়ে যায়। কেননা উসমানীয়রা মাঝারি পাল্লার কামানের জন্য প্রসিদ্ধ ছিলো। তাছাড়া বড় পাল্লার কামান বানানোর মতো দক্ষতা উসমানীয়দের তখন ছিলো না। এছাড়া বসফরাস প্রণালি দিয়ে যাতে কোনো সাহায্য না আসতে পারে তাই তিনি মাত্র ৩ মাসে বসফরাস প্রণালির পাশে দুর্গ নির্মাণ করে তা সম্পূর্ণ উসমানীয়দের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছিলেন।

বাধ সাধে বসফরাস ও গোল্ডেন হর্ণে ডুবন্ত লোহার শিকল। যা অতিক্রম করা ছিলো উসমানীয় নৌবহরের জন্য অসাধ্য। কারণ কাঠের জাহাজগুলো শেকল অতিক্রম করতে পারতো না। অতিক্রমের চেষ্টায় অনেক জাহাজ ভেঙ্গেও যেতো।

তখন তিনি রাতের আধারে পাহাড়ের উপর দিয়ে নিয়ে গিয়ে যুদ্ধজাহাজগুলো গোল্ডেন হর্ণে প্রবেশ করান এবং পরিপূর্ণ ভাবে কনস্টান্টিনোপল আক্রমণের জন্য সক্ষম হয়ে উঠেছিলেন।

তার শাসনামলে উসমানীয় সালতানাত কনস্টান্টিনোপল, এশিয়া মাইনর, সার্বিয়া, আলবেনিয়া,ইতালি ও ক্রিমিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছিলো।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img