রবিবার, ডিসেম্বর ৪, ২০২২

ইংরেজদের থেকে স্বাধীন হয়ে অন্য দেশের গোলামী করার জন্য পাকিস্তান সৃষ্টি হয়নি : ইমরান খান

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, সাত মাস পূর্বে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে আমাদেরকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়। আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের সাথে মিলে গিয়েছিল আমাদের মীর জাফর মীর সাদেকরা। কেন না অভ্যন্তরীণ গাদ্দারদের সহযোগিতা ছাড়া কখনই আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র সফল হতে পারে না।

তিনি বলেন, সেনাবাহিনী নয়, রাজনৈতিক দল দেশকে ঐক্যবদ্ধ রাখে। তা না হলে পূর্ব পাকিস্তান আলাদা হতো না। কিন্তু দেশের সবচেয়ে বড় দলকে নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টা চলছে।

আজ শনিবার (১৯ নভেম্বর) সরকার বিরোধী লংমার্চে দেওয়া বক্তব্যে ইমরান খান এসব কথা বলেন। পায়ে গুলি লেগে আহত অবস্থায় বাসায় অবস্থান করায় ভিডিও লিংকের মাধ্যমে তিনি বক্তব্য রাখেন।

ইমরান খান বলেন, ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ স্লোগানের উপরে পাকিস্তান সৃষ্টি হয়েছে। ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ মানেই আমি আল্লাহ ছাড়া সবকিছু থেকে স্বাধীন। ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ আমাদের স্বনির্ভরতা দেয়, আত্মসম্মান দেয়।

তিনি বলেন, কায়েদে আজম জানতেন যে তিনি বেশি দিন বাঁচবেন না। কিন্তু তিনি অসুস্থতার বিষয়টি কাউকে জানতে দেননি, যেন পাকিস্তান সৃষ্টিতে কোন বাধা না আসে।

ইমরান বলেন, আমরা যখন বড় হচ্ছি, তখন দেখেছি লাখ লাখ লোক হিন্দুস্তান থেকে পাকিস্তানে এসেছে। এমন কেউ ছিলো না যাদের ঘরে কেউ না কেউ গণহত্যার শিকার হয়নি। এসব আত্মত্যাগের বিনিময়ে পাকিস্তান তৈরি হয়েছে। এজন্য তৈরি হয়নি যে আমরা ইংরেজদের থেকে স্বাধীন হয়ে অন্য কোন দেশের গোলামী করবো।

তিনি বলেন, আমরা এমন দেশে চাই যেটা স্বনির্ভর হবে। আমাদের নিজেদের সিদ্ধান্ত নিজেরাই নেবো। আমার আফসোস লাগে তারপরও আমাকে হিন্দুস্থানের উদাহরন দিতে হচ্ছে। আমরা একই সাথে স্বাধীন হয়েছি। তারা দাঁড়িয়ে গিয়েছে। তাদের পররাষ্ট্রনীতি দেখুন। তারা স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। তাদের রাশিয়া থেকে তেল নেওয়া প্রয়োজন, তারা নিচ্ছে। আবার আমেরিকার সাথেও সম্পর্ক রাখছে। ভারতের সিদ্ধান্তে আমেরিকা নারাজ হলেও মেনে নিতে বাধ্য হয়েছে। আমরাও সেটাই করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের সরিয়ে যাদের বসানো হয়েছে, সাত মাস হয়ে গেলেও তারা রাশিয়া থেকে তেল আনতে পারেনি। কারণ তাদের যারা বসিয়েছে, সে প্রভুরা নারাজ হবে।

সাবেক পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই পাকিস্তান যে সিদ্ধান্ত নেবে, সেখানে প্রথমেই দেখতে হবে জাতির লাভ আছে কি না। আমরা আমেরিকার যুদ্ধ অংশগ্রহণ করেছি তাতে জাতির কোন লাভ হয়নি। আমাদের ৮০ হাজার মানুষকে প্রান দিতে হয়েছে।

আফগান যুদ্ধে আমেরিকারকে সহযোগিতা তীব্র সমালোচনা করে ইমরান বললেন, এই যুদ্ধ অংশগ্রহণ করা আমাদের জন্য কোনভাবেই  লাভজনক ছিল না। কিন্তু তখনকার নেতৃত্ব চাপ সহ্য করতে পারেনি, হাটুগেড়ে বসে গেছে। পরবর্তীতে জারদারি ও নওয়াজ শরীফ ক্ষমতায় আসার পর আমেরিকার সামনে একেবারে শুয়ে পড়েছে। এদের আমলে পাকিস্তানি ৪০০ ড্রোন হামলা হয়েছে। আমাকে দুনিয়ায় একটি উদাহরণ দেখান, যেখানে আপনি যাদের জন্য যুদ্ধ করতেছেন তারাই আপনার উপর ড্রোন হামলা করে!

spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img